মানিকগঞ্জে বাদাম চাষিদের মাথায় হাত

মানিকগঞ্জে পদ্মা নদীর চর এলাকাগুলোতে বাদাম চাষ করে দিন বদলের স্বপ্ন দরিদ্র মানুষগুলো। কিন্তু এ বছর ভাঙন ও আগাম বন্যায় তাদের সেই স্বপ্ন দুঃস্বপ্নে পরিণত হয়েছে।

একদিকে নদী ভাঙন অপরদিকে পরিপক্ব হওয়ার আগেই ক্ষেত পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় বাদামের ফলন ভাল হয়নি। প্লাবিত চরে আশানুরূপ ফলন না হওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন বাদাম চাষিরা।

জানা যায়, জেলার হরিরামপুর, শিবালয় ও দৌলতপুর উপজেলার বিভিন্ন চরে ব্যাপক বাদাম চাষ হয়ে থাকে। কম খরচে বেশি লাভ হওয়ায় চরের দরিদ্র পরিবারগুলো কয়েক বছর ধরে বাদাম চাষ করে স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছে।

ডিসেম্বর-ফেব্রুয়ারি মাসে বোরো ধানের বদলে বাদাম চাষ করেন এসব এলাকার চাষিরা। এগুলো জুন-জুলাই মাসে উত্তোলন করা হয়। বাদাম চাষিদের সাথে কথা বলে জানা যায়, আগে চরের বেলে মাটিতে তেমন একটা ফসল হতো না। ফলে এখানকার মানুষের অভাব-অনটন ছিল নিত্যসঙ্গী।

গত কয়েক বছর ধরে পলি জমে ভরাট হওয়া চরের জমিতে ব্যাপকভাবে বাদাম চাষ হচ্ছে। এতে স্বাবলম্বী হয়ে উঠছেন চাষিরা। কিন্তু এ বছর ভাঙন ও পানির নিচে ক্ষেত ডুবে থাকায় বাদামের ফলন ভাল হয়নি। প্রতি একর জমিতে ২৪ থেকে ২৫ মণ ফলন হলেও এবার ফলন অর্ধেকে নেমে এসেছে বলে জানান ক্ষতিগ্রস্থ চাষিরা।

শিবালয় উপজেলার সুকুলিয়ার চরের হানিফের ২০ বিঘা, আমিরুলের ১৫ বিঘা, রঘুনাথপুরের আব্দুর রশিদের ৩০ বিঘা, ও আলোকদিয়া চরের মুজাম্মেলের ১০ বিঘা, তেওতা এলাকার কমল বিশ্বাসেী ৩০ বিঘা, আব্দুল বারির ২০ বিঘা ও নিবারুণ বিশ্বাসের ২০ বিঘা জমির সম্পূর্ণ বাদাম তলিয়ে গেছে।

হরিরামপুর উপজেলার উজানকান্দি এলাকার বাদাম চাষি সাহেব আলী ও আব্দুর রহমান জানান, তারা প্রায় ১৫/১৬ বছর ধরে বাদাম চাষ করছেন। অতিরিক্ত খরা ও বন্যার মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগে না পড়লে বাদাম চাষে লাভবান হওয়া খুব সহজ।

জমি চাষ করে শুধু একবার বাদামের বীজ বপন করে আসলেই হয়। অন্যান্য ফসলের মতো এত পরিচর্যা করতে হয় না। সময় মতো শুধু জমি থেকে গাছ তুলে এনে বাদাম ছাড়িয়ে পরিস্কার করে রোদে শুকিয়ে গুদাম জাত করলেই কাজ শেষ।

তারা আরো জানান, বাদাম চাষে ভয় হয় শুধু খরা ও আগাম বন্যার জন্য। বিগত চার বছর আগে আগাম বন্যায় তাদের জমির বাদাম তলিয়ে গেলে একেকজনের প্রায় এক থেকে দেড় লাখ টাকা করে ক্ষতি হয়।

এ বছর বাদামের বাজার ভাল থাকলেও, সময়ের আগে পানি চলে আসায় অধিকাংশ বাদাম ক্ষেত তলিয়ে গেছে, যতটুকু বাদাম তুলতে পারা গেছে তার ফলনও ভাল হয়নি।

মানিকগঞ্জে পদ্মার চরে বাদাম চাষ। 


দৌলতপুর উপজেলার বাঘুটিয়া, বাচামারা, জিয়নপুর ও চরকাটারি ইউনিয়নের চরগুলোতে নতুন মাটি পড়ায় প্রতিবছর বাদামের বাম্পার ফলন হওয়ায় কৃষকরা ব্যাপকহারে বাদাম চাষ করে থাকে। জেলার সিংহভাগ উৎপাদন দৌলতপুরেই হয়ে থাকে। কিন্তু এবারের আগাম বন্যায় কৃষকদের অধিকাংশ বাদাম তলিয়ে গেছে।

বাসাইল এলাকার শাহিদা বেগম জানান, আমি সাড়ে তিন বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করেছি যার অর্ধেক তলিয়ে গেছে। একই এলাকার হবিবর জানান ৮ বিঘা বাদাম চাষ করে তিন বিঘা ঘরে আনতে পেরেছেন, বাকি পাঁচ বিঘাই তলিয়ে গেছে।

নদীর পাড়ের জমিতে অন্যান্য ফসলের চেয়ে বাদাম চাষ বেশ সহজলভ্য, কম পরিশ্রমে অধিক ফলন হওয়ায় লাভও বেশি হয়। তাই প্রতিবছরই বাদাম চাষ করেন থাকেন এসব এলাকার কৃষকেরা। প্রতি বিঘা জমিতে বাদাম চাষে সবমিলে খরচ প্রায় ৫/৬ হাজার টাকা। ভাল ফলন হলে প্রতি বিঘা জমি থেকে প্রায় ৬ মণ বাদাম পাওয়া যায়।

প্রতি মণ বাদামের বর্তমান বাজার দর প্রায় সাড়ে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা। সেই হিসেবে প্রতি বিঘা জমি থেকে প্রায় ২৪/২৫ হাজার টাকার বাদাম বিক্রি করা যায়।

বাদামের গাছগুলো জ্বালানি হিসেবেও বেশ চাহিদা রয়েছে। চরাঞ্চলের জমিগুলোতে অন্যান্য ফসলের চেয়ে তাই বাদাম চাষই বেশ লাভজনক।

শিবালয় উপজেলার তেওতা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড মেম্বার মজনু শেখ জানান, নদী এলাকায় ফসলের আবাদ করা বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। যেকোনো সময় নদীর ভাঙন শুরু হলে ফসলের জমি চলে যায় নদীগর্ভে। তাই অল্প খরচে বাদাম চাষের প্রতি কৃষকদের আগ্রহও বেশি। কিন্তু এবার বন্যার পানি আগে চলে আসায় কৃষকদের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক আবু মো. এনায়েত উল্লাহ বলেন, ভাঙন ও আকস্মিক বন্যা হওয়ায় বাদাম উৎপাদন গত বছর ৩৪৮৫ হেক্টর হলেও এবছর ২৮৫০ হেক্টর হয়েছে। যা আমাদের লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে ৬৩৫ হেক্টর কম।

তিনি আরো বলেন, আমরা আগামীতে উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে আধুনিক ও নতুন বাদামের বীজ আমদানি করেছি যেমন ‘বারি চিনাবাদাম ৮’ অল্প খরচে অধিক বাদাম উৎপাদনে কৃষকদের উন্নত প্রশিক্ষণসহ এসব বীজ দিয়ে সহায়তা করা হবে। যারা ইতিমধ্যেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের তালিকা রাখা হচ্ছে, অফিসিয়াল ফান্ড এলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তাদেরকে প্রথম এ কর্মসূচির ভেতর নিয়ে আসা হবে। 

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //