সাংবাদিককে মামলার হুমকি কেন্দুয়ার ইউএনও’র (ভিডিও)

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহমুদা বেগমের বিরুদ্ধে এক সাংবাদিককে মামলার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে । শনিবার (১৩ আগস্ট) সন্ধ্যায় মুঠোফোনে এই হুমকি দেন তিনি। এ ঘটনায় জেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

দৈনিক সংবাদ ও ইংরেজি অবজারভারের কেন্দুয়া উপজেলা প্রতিনিধি হুমায়ূন কবীরকে এ হুমকি প্রদানের অভিযোগ উঠেছে। তিনি কেন্দুয়া প্রেসক্লাবের সদস্যও।

সাংবাদিক হুমায়ূন কবীর জানান, শনিবার ভোরে উপজেলার বলাইশিমুল খেলার মাঠের জায়গায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য নির্মাণাধীন প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে ওই দিন বিকেলে ইউএনও উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করেন। পরে তিনি সেই ভিডিও নিজের ফেসবুক পেজে পোস্ট করেন।

‘এসময় ইউএনও জানতে চান, সংবাদ সম্মেলনে তার (ইউএনও) দেওয়া বক্তব্য কেন ফেসবুকে দিয়েছি। উপহারের ঘরে আগুন দেওয়ার ঘটনায় যে মামলা হবে সেই মামলায় আমাকে আসামি করার হুমকি দেন তিনি।’

হুমায়ূন কবীর বলেন, ইউএনও মহোদয় ক্ষুব্ধ হয়ে আমাকে বলেন, আপনাকে কি ফেসবুকে ছাড়ার জন্য আমি বক্তব্য দিয়েছি? আমি প্রেসব্রিফিং যা দিয়েছি, সেটা দিয়ে নিউজ করবেন। তখন আমি বলি আমি সাংবাদিক হিসেবে কি ফেসবুকে দিতে পারি না? উত্তরে তিনি বলেন, আপনি যদি বিরোধিতা করেন তাহলে আমি আজকেই মামলায় ঢোকাতে বাধ্য হবো।

এ ঘটনায় সাংবাদিকদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়।

কেন্দুয়া উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী চৌধুরী বলেন, সংবাদ সম্মেলনের ভিডিও প্রচার করায় হুমায়ূন কবীরের তো কোনা অপরাধ দেখছি না। ইউএনও কেন তাকে মামলায় আসামি করার হুমকি দিলেন বুঝতে পারছি না।

জানতে চাইলে ইউএনও মাহমুদা বেগম বলেন, সাংবাদিক হুমায়ূন প্রথম থেকেই এজেন্ডা নিয়ে কাজ করছেন। নানা সময়ে এই প্রকল্পের বিরুদ্ধে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছে। এসব স্ট্যাটাসের কমেন্টে অশালীন কথাবার্তা লেখা হয়েছে। কোনো ব্যবস্থা নিইনি। সাংবাদিকদের সাথে নানা সময়ে নানা বিষয়ে আনকোড কথাবার্তাও হয়। তিনি সেগুলোও ফেসবুকে প্রচার করে দেন। আমি এ ধরনের কোনো কথাবার্তা বলিনি। এটা এডিট করে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে ফেসবুকে দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, বিষয়টি শুনে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগতসহ ইউএনওকে শতর্ক করা হয়েছে।


সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //