কাজে আসছে না পুঠিয়ার কোটি টাকার ইউড্রেন

পানিবন্দি অবস্থা থেকে এলাকাবাসীকে রেহাই দিতে রাজশাহীর পুঠিয়া পৌরসভায় প্রায় তিন বছর আগে নির্মিত হয় কোটি টাকার একটি ইউড্রেন; কিন্তু এটি নির্মাণ সত্ত্বেও অতিরিক্ত বৃষ্টিপাত হলেই আশপাশের নিচু এলাকায় দীর্ঘ জলাবদ্ধতা দেখা দেয়। এতে কৃষকদের রোপণ করা ধান ও পুকুরের মাছ ভেসে যায়।

পৌরবাসীরা বলছেন, জলাবদ্ধতা নিরসনে অপরিকল্পিতভাবে ইউড্রেন নির্মাণ করা হয়, যা কোনো কাজে আসছে না। বিষয়গুলো নিয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে লিখিত আবেদন করেও কোনো সুফল মিলছে না।

পৌরসভা সূত্রে জানা গেছে, এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসনে ২০১৯-২০ অর্থবছরে পৌর এলাকার ৭ ও ৮ নম্বর ওয়ার্ডে ইউড্রেন নির্মাণকাজ হাতে নেওয়া হয়, যা পুঠিয়া পল্লী বিদ্যুৎ অফিস থেকে মূসাখাঁ নদী পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার হওয়ার কথা ছিল। আবহাওয়া ও জলবায়ু অধিদপ্তরের অধীনে এ কাজে বরাদ্দ দেওয়া হয় এক কোটি টাকা; কিন্তু নির্মাণ হয় মাত্র ২৯৭ মিটার ড্রেন। এখন নতুন করে বরাদ্দ না আসায় কাজ বন্ধ রয়েছে।

পৌরবাসী মাসুদ রানা বলেন, ‘বিগত সময় বর্ষা মৌসুমে পৌরসভার ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের অতিরিক্ত পানি ২ নম্বর ওয়ার্ড হয়ে কান্তারবিলে চলে যেত। কয়েক যুগ ধরে এভাবেই চলছিল; কিন্তু ২ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের সামনে তিন-চারজন প্রভাবশালী ব্যক্তি দুই বছর ধরে পানি চলাচলের ক্যানেলটিতে অবৈধভাবে মাটি ভরাট করে রেখেছেন। এতে করে পানি চলাচল বন্ধ রয়েছে। এদিকে দুদিনের বৃষ্টির শতাধিক বিঘা ফসলি জমি ও পুকুর তলিয়ে গেছে।’

তবে পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের জন্য প্রায় তিন কিলোমিটার ড্রেন করা প্রয়োজন। বিগত সময়ে আমরা যে টাকা বরাদ্দ পেয়েছি তাতে ২৯৭ মিটার পাকা ড্রেন নির্মাণ হয়েছে। প্রায় এক কিলোমিটার কাঁচা ড্রেন খনন করা হয়েছে। এখন কিছু অংশ খনন বাকি আছে। নতুন করে বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। বরাদ্দ পেলে কাজ শুরু করব।’ তিনি এ সময় আরও বলেন, জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রাথমিক কিছু কাজ করা হবে।

এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান জি এম হীরা বাচ্চু বলেন, ‘পৌরসভা এলাকায় জলাবদ্ধতার বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা পানি নিষ্কাশনের জন্য পদক্ষেপ নিচ্ছি।’

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //