কৃষি জমির টপসয়েল যাচ্ছে ইটভাটায়

খাগড়াছড়িতে প্রতিদিনই কৃষি জমির টপসয়েল কেটে নিচ্ছে করছে এক শ্রেণির দালাল। কৃষি জমির টপসয়েল কেটে নেওয়ায় কমছে আবাদি জমির পরিমাণ। খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে কৃষি জমির টপসয়েল কাটা বন্ধের দাবি জানিয়েছে  কৃষিবিদরা।

ভূ-প্রাকৃতিক গঠনের কারণে পার্বত্য এলাকায় কৃষি জমির পরিমাণ কম। কৃষি জমির টপসয়েল (উর্বর মাটি) কাটায় কমছে আবাদি জমির পরিমাণ। কৃষি জমির টপসয়েল কর্তনের মূল ইন্ধনদাতা হলো ইটভাটা মালিকরা। কৃষকদের বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে কৃষি জমির উপরিভাগ কাটছে ভাটা মালিকরা। 

কৃষি জমি সুরক্ষা ও ভূমি জোনিং আইন-২০১৩ অনুযায়ী কৃষি জমি কৃষিকাজ ছাড়া অন্য কোনো কাজে ব্যবহার করা যাবে না। আইন অমান্য করে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ভাটাগুলো ইট প্রস্তুত করতে কৃষি জমির টপসয়েল ব্যবহার করেছে। এক শ্রেণির দালাল টপসয়েল কেটে ইটভাটায় সরবরাহ করে।

সরেজমিনে দেখা যায়, খাগড়াছড়ির সদর উপজেলার কমলছড়ি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় কৃষি জমির টপসয়েল কেটে ইটভাটায় নিয়ে যাচ্ছে। প্রকাশ্যে আইন না মেনে টপসয়েল গাড়িতে করে পরিবহন করলেও প্রশাসন নিশ্চুপ। এই নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জেসমিন আক্তারকে অবহিত করা হলেও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

খাগড়াছড়ির পাহাড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আলতাফ হোসেন জানান, মাটি থেকে ১৫ ইঞ্চি পর্যন্ত টপসয়েল। প্রাকৃতিকভাবে টপসয়েল তৈরিতে অনেক বছর লাগে। মাটির উপর থেকে টপসয়েল কেটে ফেললে মাটির উর্বরতা নষ্ট হয়। এতে কৃষি জমির ফলন কমবে। এটা আমাদের কৃষির জন্য অশনি সংকেত।

খাগড়াছড়ির দীঘিনালা, গুইমারা, সদর উপজেলা, মাটিরাঙাসহ জেলার বেশির ভাগ এলাকায় একই চিত্র। জমির মালিকেরা জানান, সাধারণত ইটভাটার মালিকেরা বা মাটির কেনার দালালরা চুক্তি ভিত্তিতে জমির মাটি কিনে নেয়। আবার কেউ কেউ জমি খনন করে মাটি বিক্রি করে পুকুর বানাচ্ছে।

খাগড়াছড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কিশোর কুমার মজুমদার বলেন, টপসয়েল কৃষি জমির চাষাবাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এমনিতেই পার্বত্য এলাকায় টপসয়েলের পরিমাণ কম। প্রাকৃতিকভাবে কৃষি জমিতে প্রতি ইঞ্চি টপসয়েল তৈরি হতে সময় লাগে শত শত বছর। ইটভাটাসহ বিভিন্ন কাজে কৃষি জমির টপসয়েল ব্যবহার করার কারণে কৃষিতে অপূরণীয় ক্ষতি হচ্ছে।

অবৈধ ইটভাটায় কৃষি জমির মাটি ব্যবহার বন্ধে অভিযান জোরদার করা হবে জানিয়েছে জেলা প্রশাসক মো. সহিদুজ্জামান বলেন, টপসয়েল কাটা বন্ধে ইতোমধ্যে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। অভিযোগ পাওয়া গেলে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2023 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //