শেরপুরের সন্ত্রাসী বাহিনীর অত্যাচারে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

শেরপুর জেলা শহরের পূর্বসেরী অষ্টমীতলা মহল্লায় একটি চিহ্নিত সন্ত্রাসী বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন করেছে স্থানীয় ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।

আজ শনিবার (২৯ জুন) দুপুরে শহরের অষ্টমীতলা ঢাকা-টাঙ্গাইল বাস টার্মিনাল মোড়ে শেরপুর-জামালপুর মহাসড়কে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। পরে সেখানে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগীরা সন্ত্রাসী বাহিনীর নানা অত্যাচারের কাহিনী তুলে ধরেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, ভুক্তভোগী এলাকাবাসীর পক্ষে আরিফুর রহমান নিশান। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, স্থানীয় প্রভাবশালী বাসিন্দা অ্যাডভোকেট মোখলেসুর রহমান দীর্ঘ ১৫ বছর যাবত স্থানীয় অষ্টমিতলাস্থ জামে মসজিদ, কাশিমুল উলুম হোসাইনিয়া মাদ্রাসা এবং কবরস্থান কমিটিতে এলাকাবাসীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক সভাপতি পদবী দখল করে আসছিলেন।

মোখলেছুর রহমান তার ছেলেকে দিয়ে দীর্ঘদিন যাবত একটি সন্ত্রাসী বাহিনী গঠন করে এই অঞ্চলে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। ওই সন্ত্রাসী বাহিনীর প্রধান অ্যাডভোকেট মোখলেছুর রহমানের ছেলে মোর্শেদুর রহমান অতীতে জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে আগ্নেয়াস্ত্রসহ পুলিশের কাছে আটক হয়ে দীর্ঘ ৬ মাস জেলহাজতে ছিলেন। সেখান থেকে শেরপুর এসে সন্ত্রাসী বাহিনী গঠন করে এলাকায় বিভিন্ন ধরনের দখলবাজি, বালুমহলে চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপকর্মের মাধ্যমে এই অঞ্চলে এক ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করছে।

মুক্তিযোদ্ধা ও অ্যাডভোকেট মোখলেছুর রহমান একজন লেবাসধারী ভদ্রলোক। তিনি বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে মুক্তিযোদ্ধা জাতীয়তাবাদী ফোরামে ছিলেন, পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে তিনি মুক্তিযোদ্ধা আওয়ামী লীগ ফোরামে যোগদান করেন। যে সরকার ক্ষমতায় আসে তখন তিনি সেই সরকারের দলেই থাকেন।

উল্লেখিত মসজিদ মাদ্রাসা কমিটির অন্য সদস্যদের সিদ্ধান্ত ছাড়াই সকল সিদ্ধান্ত তিনি একাই নেন। যে কারণে এলাকাবাসী তার বিভিন্ন অনিয়ম ও টাকা আত্মসাতের বিষয়ে প্রতিবাদ করায় আমাদের উপর সম্প্রতি ওই সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে হামলা, বাড়ি-ঘর ভাংচুরসহ বিশিষ্ট শ্রমিকনেতা ও ফার্নিচার ব্যবসায়ী, সমাজসেবক জনাব শরাফত আলীসহ কয়েকজনকে মারপিট করে গুরুতর আহত করেছিল। ঐ ঘটনায় তারাই আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। অ্যাডভোকেট হওয়ার সুবাদে আমাদের বিরুদ্ধে একেরপর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে আসছেন। তাদের দেওয়া মিথ্যা মামলার কারণে আমাদের নিরপরাধ বিশিষ্ট ফার্নিচার ব্যবসায়ী বাদশা মিয়া এবং আবু সাইদ বর্তমানে জেলহাজতে আছেন। আমারা তাদের অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি চাই। আমরা এই লেবাসধারী মোখলেছুর রহমানের মাধ্যমে মসজিদ মাদ্রাসার টাকা আত্মসাৎকারী ও তার সৃষ্টি করা সন্ত্রাসী বাহিনীর কাছে এলাকাবাসী জিম্মি হয়ে পড়েছি।

এমতাবস্থায় আমরা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি, এই লেবাসধারী অ্যাডভোকেট মোখলেছুর রহমানের মিথ্যা মামলায় এই অঞ্চলের মানুষ অতিষ্ঠ। তারই সৃষ্টি করা সন্ত্রাসী বাহিনীর নির্মূল চাই এবং আমরা শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করতে চাই।

সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মো. মনসুর মিয়া, মো. বাদল মিয়া, শরাফত মিয়া, জাহাঙ্গীর আলম, মজিদ মিয়া ও কালু মিয়া। এছাড়া মানববন্ধনে এলাকার ৩ শতাধিক ভুক্তভোগী নারী-পুরুষ উপস্থিত ছিলেন।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2024 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //