খোলা বাজারে টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি আজ শুরু

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ভারত প্রতি টন পেঁয়াজের সর্বনিম্ন রপ্তানি মূল্য ৮৫০ মার্কিন ডলার ঘোষণা দেয়ার পর দেশে পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। গত দুইদিনে রাজধানীর পাইকারি ও খুচরা বাজারে দুদফা কেজিতে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে সর্বোচ্চ ২৫ টাকা।

এই পরিস্থিতিতে মূল্য বৃদ্ধিতে লাগাম টানতে খোলা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি মন্ত্রণালয়ে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে রবিবার বিষয়টি নিয়ে বৈঠক করেন। বৈঠকে আজ সোমবার থেকে সরকারি বিপণন সংস্থা টিসিবির মাধ্যমে ন্যায্যমূল্যে ট্রাক সেলের মাধ্যমে খোলা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি শুরুর সিদ্ধান্ত হয় বলে মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, পেঁয়াজ আমদানির ক্ষেত্রে এলসি মার্জিন ও সুদের হার কমাতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়ার জন্য বাংলাদেশের ব্যাংকে চিঠি পাঠিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এছাড়া বন্দরে আমদানি করা পেঁয়াজ দ্রুত খালাস করা ও নির্বিঘ্ন পরিবহন নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোর কাছেও চিঠি দেওয়া হয়েছে।

টিসিবির এক সূত্র জানিয়েছেন, খোলা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রির উদ্যোগ রবিবারই নেয়া হয়েছে। সোমবার প্রথম দিনে সীমান্ত এলাকা থেকে পেঁয়াজ সংগ্রহ করে তার দাম নির্ধারণ করা হবে। পাশাপাশি টিসিবির মাধ্যমে দ্রুত মিয়ানমার, তুরস্ক, মিসরসহ অন্যান্য দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির সিদ্ধান্ত হয়েছে।

ব্যবসায়ীদের মতে, বর্তমানে বছরে পেঁয়াজের চাহিদা প্রায় ৩০ লাখ টন। এ বছর ১৯-২০ লাখ টন দেশে উৎপাদন হয়। চাহিদার বাকি অংশটা আমদানিতে মিটছে। আর দেশের আমদানি করা পেঁয়াজের বেশির ভাগই আসে ভারত থেকে।

শুক্রবার ঢাকার অধিকাংশ বাজারে পেঁয়াজের দাম ছিল প্রতি কেজি ৫৫ টাকা থেকে ৬০ টাকা। ওই রাতেই পেঁয়াজের রপ্তানি মূল্য ৮৫০ ডলার বেঁধে দিয়ে ‍নির্দেশ জারি করে ভারত সরকার। শনিবারই এর প্রভাব পড়তে শুরু করে ঢাকার বাজারে। অনেক দোকানেই পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দেওয়া হয়। রবিবার সকালে অধিকাংশ দোকানেই ৭০ টাকা কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হয়, বিকালে অনেক জায়গায় তা আরো ১০ টাকা বাড়িয়ে ৮০ টাকা নেওয়া হয়। 

পেঁয়াজের রপ্তানি মূল্য বাড়িয়ে ভারতের নির্দেশনা জারির কারণে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা সুযোগ নিয়ে অস্বাভাবিক উপায়ে দাম বাড়াবে বলে আগেই সতর্ক করেছিলেন খাত সংশ্লিষ্টরা। বাস্তবতায় এর ব্যতিক্রম হয়নি।


মন্তব্য করুন

সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার

© 2019 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh