ববির খারাপ সময়

ক্যারিয়ারের খুব খারাপ সময় পার করছেন অভিনেত্রী ইয়ামিন হক ববি। নতুন কোনো সিনেমা দিয়ে জ্বলে উঠতে পারছেন না, অন্যদিকে নির্মাতার সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়ালেন তিনি। এ ছাড়া বিয়ের খবর প্রকাশ ও মামলা মোকাদ্দমাতেও নাম জড়ালো তার।

‘ফুল অ্যান্ড ফাইনাল, ‘দেহরক্ষী, ‘রাজত্ব, ‘হিরো দ্য সুপারস্টার’ ও ‘বিজলী’সহ একাধিক ছবির মাধ্যমে বড়পর্দায় পরিচিতি পান এ গ্ল্যামারকন্যা। এরপর ক্যারিয়ারে আরও অনেকগুলো সিনেমা উপহার দিয়েছেন তিনি। ঈদে মুক্তি পেয়েছে তার অভিনীত ‘ময়ূরাক্ষী’ সিনেমা। তবে এ সিনেমাটি তার ক্যারিয়ারে ব্যর্থতা যোগ করল। ঈদে মাত্র দুটি সিনেমা হলে এটি মুক্তি পেয়েছে। যেটি অভিনেত্রীর ক্যারিয়ারে আর কোনো সিনেমার ক্ষেত্রে এমনটি হয়নি। এমনকি দর্শকও সিনেমাটি থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়।

এদিকে ঈদের রেশ কাটার আগেই সিনেমাটির পরিচালকের সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়ান অভিনেত্রী। এমনকি বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর আসে, নির্মাতার গায়েও তিনি হাত তুলেছেন। সোমবার অভিনেত্রী একটি সংবাদ সম্মলনের আয়োজন করেন। সেখানে কথার ফাঁকে সাংবাদিকেরা বারবার জানতে চান পরিচালকের গায়ে হাত তুলেছেন কি না? এ প্রসঙ্গে উত্তর দিতে বিব্রতবোধ করেন তিনি। কিন্তু একের পর এক একই প্রশ্ন করা হয় তাকে। প্রশ্নগুলো এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন নায়িকা।

এক পর্যায়ে তিনি জানান, রাশিদ পলাশের সঙ্গে কাজ করাটা তার ভুল হয়েছে, সে অনেক নাটকের জন্ম দিয়েছে, শুটিং সেটে অপেশাদার আচরণ করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এ সময় তিনি নির্মাতাকে নিয়ে আরও বলেন, ‘রাশিদ পলাশ যেভাবে কথা দিয়েছেন সেভাবে কাজ করতে পারেননি। তা ছাড়া আমার নাম ভাঙিয়ে তিনি অনেকবার প্রযোজকের কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন। অথচ আমি নিজের পেমেন্টই পুরোটা পাইনি। টাকা নিয়ে পলাশের সঙ্গে অনেকবার ঝামেলা হয়েছে। শেষের দিকে ডিস্ট্রিবিউশন নিয়েও ঝামেলা করেছে। শুটও ঠিকমতো করেননি।’

এখানেই গল্পের শেষ নয়। সিনেমার বাইরে এর মধ্যে অভিনেত্রীর নাম জড়ালো চুরির খাতায় ও মামলায়। গত ২৩ জুন গুলশান থানায় চিত্রনায়িকা ইয়ামিন হক ববির বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টা ও চুরির মামলা হয়েছে। রেস্টুরেন্ট ব্যবসাকে কেন্দ্র করে ভবনমালিকের সঙ্গে তার এই দ্বন্দ্ব হয়। এ ঘটনায় ববির পক্ষ থেকে পাল্টা মামলার ঘটনা ঘটে। সেই ঘটনা নিয়ে মুখ খুললেন তিনি।

এক সংবাদ সম্মেলনে ববি বলেন, ‘আমার রেস্টুরেন্ট ভেঙেছে, আমার লোকদের মেরেছে। হাসপাতালের ভর্তি থাকতে হয়েছে আমার লোকদের। সব দিক দিয়ে কঠিন সময় পার করতে হয়েছে। তারা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা হত্যাচেষ্টা ও চুরির মামলা করেছে। আমি তাদের কাছে ভবনের বৈধ কাগজপত্র চেয়েছি। সেটা না দিয়ে, দিনের পর দিন ঘুরিয়ে পরে তারা সন্ত্রাস দিয়ে আমাদের লোকদের মেরেছে। সেগুলো ধামাচাপা দিতেই মামলা করেছে।’ 

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2024 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //