অভিবাসী চায় ‘বিশ্বের সবচেয়ে সুখী’ দেশ

ফিনল্যান্ডে বয়স্ক মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। ফাইল ছবি

ফিনল্যান্ডে বয়স্ক মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। ফাইল ছবি

জাতিসংঘের বিচারে বিশ্বের সবচেয়ে সুখী দেশ ফিনল্যান্ড। কিন্তু সুখী দেশ এবার বড় সমস্যার মুখে পড়েছে। জাতিসংঘের তথ্যানুসারে, ফিনল্যান্ডে কর্মজীবী মানুষের প্রতি ১০০ জনের মধ্যে ৪০ জনের বয়সই ৬৫ ঊর্ধ্ব। অর্থাৎ প্রায় অর্ধেক মানুষই বৃদ্ধ। 

৫৫ লাখ জনসংখ্যার দেশটির সরকার হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, জনসেবা ও ক্রমবর্ধমান পেনশন ঘাটতি মেটাতে দেশটিতে অভিবাসী শ্রমিকের সংখ্যা দ্বিগুণ করা প্রয়োজন।

ফিনল্যান্ডের স্থানীয় নিয়োগ সংস্থা ট্যালেন্টেড সলিউশনের কর্মকর্তা সাকু তিহভরেনেন বার্তা সংস্থা এএফপিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ফিনল্যান্ড এখন কর্মক্ষম অভিবাসী দরকার, যা অস্বীকার করার উপায় নেই। দেশটিতে বয়স্ক মানুষের সংখ্যা ব্যাপক বেড়ে যাচ্ছে। সেই ঘাটতি পূরণের জন্য কর্মক্ষম মানুষ দরকার।

ইউরোপের অনেকে দেশেই জন্মহার বেশ কম। আর ফিনল্যান্ডে এর প্রভাব ব্যাপকভাবে পড়েছে।

একাডেমি অব ফিনল্যান্ডের রিসার্চ ফেলো চার্লস ম্যাথিস বলেছেন, বছরের পর বছর নীরব থাকার পর দেশটির সরকার ও ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানগুলো এখন বয়স্ক জনগোষ্ঠীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় কর্মক্ষম জনশক্তির প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি উপলব্ধি করতে পেরেছে। 

সমস্যা হলো, সরকার চাইলেই বিদেশিদের যে সবসময় দু-হাত বাড়িয়ে ফিনল্যান্ডে স্বাগত জানানো হয়, তা নয়। সুখী দেশের এটাই বড় সমস্যা।

২০৩০ সালে দেশের বয়স্ক মানুষের সংখ্যা দাঁড়াবে ৪৭ শতাংশ। সরকার চাইছে, অভিবাসীদের সংখ্যা বাড়িয়ে বছরে ২০ থেকে ৩০ হাজার করতে। না হলে জনসেবার কাজে অসুবিধা হবে।

চার বছর আগে ফিনল্যান্ড সরকার ‘ট্যালেন্ট বুস্ট’ কর্মসূচি নিয়েছে। অর্থ ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় এই কর্মসূচি রূপায়ণের দায়িত্বে। তাদের বক্তব্য, ফিনল্যান্ডের জন্য আরো দক্ষ শ্রমিক দরকার। সেটা পেতে গেলে অভিবাসীদের উপরই ভরসা করতে হবে। মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, ফিনল্যান্ডে কাজ করতে পারেন এমন মানুষের সংখ্যা কমছে। এর সংখ্যাবৃদ্ধি পুরোপুরি অভিবাসীদের উপর নির্ভর করছে। অভিবসীরা না এলে শ্রমিকদের সরবরাহ বজায় থাকবে না। এর প্রভাব ফিনল্যান্ডের অর্থনীতিতে পড়বে।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় জীবনযাত্রার মান, স্বাধীনতা, লিঙ্গ সমতার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি স্কোর নিয়ে সুখী দেশের শীর্ষে থাকা ফিনল্যান্ড বিশ্বের অভিবাসীদের কাছে অন্যতম আকর্ষণ। দেশটিতে দুর্নীতি, অপরাধ ও দূষণ খুবই নগণ্য।

এতদিন ফিনল্যান্ডের কোম্পানিগুলো বাইরের মানুষদের নিয়োগে উৎসাহ দেখায়নি। তাদের সেই মনোভাব এখনো যায়নি। কিন্তু শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না বলে তাদের মনোভাব বদলাতে হচ্ছে। তাদের রাষ্ট্রীয় ওয়েবসাইট বলছে, ট্যালেন্ট বুস্ট প্রোগ্রাম ফিনল্যান্ডের লেবার মার্কেটকে খুলে দেয়া নিয়ে বিতর্ককে জোরদার করেছে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh