ICT Division

কোস্টারিকাকে গুড়িয়ে দিয়ে স্পেনের রেকর্ড গড়া জয়

বিশ্বকাপের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো ম্যাচে সাত গোল করলো সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ন স্পেন। কোস্টারিকাকে উড়িয়ে দাপটের সাথে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করলো দলটি।

গতকাল বুধবার (২৩ নভেম্বর) দোহার আল থুমামা স্টেডিয়ামে ‘ই’ গ্রুপের ম্যাচে কোস্টারিকার বিপক্ষে ৭-০ গোলে জিতেছে স্পেন। বিশ্বকাপে এটাই তাদের সবচেয়ে বড় জয়। তাদের রেকর্ড ছিল ১৯৯৮ সালে বুলগেরিয়ার বিপক্ষে ৬-১ ব্যবধানের জয়। । সেই রেকর্ড ভেঙে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে সাত গোল দিল স্পেন।

খেলার শুরু থেকেই স্পেনের আক্রমণ শুরু হয়। পঞ্চম মিনিটে পেদ্রির কাছ থেকে বল পেয়ে দূরের পোস্টে একটুর জন্য শট লক্ষ্যে রাখতে পারলেন না। নবম মিনিটে আবার সুযোগ তৈরি করলেন পেদ্রি। কিন্তু কাজে লাগাতে পারলেন না এসেনসিও। রিয়াল মাদ্রিদ ফরোয়ার্ডের শট বেরিয়ে গেল বার ঘেঁষে।

১৩ তম মিনিটে আর ভুল করেননি দানি ওলমো। মাঝমাঠ থেকে গাভির বাড়ানো বল ডিবক্সের ভেতর পেয়ে কেইলর নাভাসের মাথার উপর দিয়ে বল জালে জড়ানো ওলমো। বিশ্বকাপে স্পেনের হয়ে শততম গোলটি আসলো তার পা থেকেই। ২১ মিনিটে স্কোরলাইন ২-০ করে স্পেন। বাম পাশ থেকে বার্সার জর্দি আলবার ক্রসে রিয়াল মাদ্রিদের আসেনসিওর বুলেট গতির শট রুখতে ব্যর্থ হন নাভাস।

আলবা ফাউলের শিকার হওয়ায় পেনাল্টি পায় স্পেন। ৩১তম মিনিটে সফল স্পট কিকে দলের তৃতীয় গোলটি করেন তরেস। নাভাসকে অন্য দিকে পাঠিয়ে জাল খুঁজে নেন বার্সেলোনার এই ফরোয়ার্ড। প্রথমার্ধের বাকি সময়ে চাপ ধরে রাখে ২০১০ আসরের চ্যাম্পিয়নরা। তবে আর গোলের দেখা পায়নি তারা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই যেন আরো গোলের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে স্পেন। ম্যাচের ৫৪ মিনিতে আবারো দলের হয়ে গোল করেন ফেরান তোরেস । জাতীয় দলের হয়ে এটি তার ১৫তম গোল। ৪ গোল দিয়েও স্পেনের আক্রমণ চলতে থাকে। স্ট্রাইকার মোরাতাকে বদলি হিসেবে নামায় তারা।

তারই দেওয়া পাস থেকে ৭৪ মিনিটে গোল করে দলকে ৫ গোলের লিড এনে দেন মিডফিল্ডার গাভি। এই গোলের ফলে এক ইতিহাস গড়েন এই বার্সা ফুটবলার। স্পেনের সবচেয়ে কমবয়সী ফুটবলার হিসেবে বিশ্বকাপে গোল করলেন তিনি। ম্যাচের একদম শেষে ৮৯ মিনিটে স্পেনের হয়ে ষষ্ঠ গোল করেন পিএসজির ফুটবলার কার্লস সোলার। ম্যাচের অতিরিক্ত ৯২ মিনিটে সর্বশেষ গোলটি করে স্পেন। ওলমোর পাস থেকে বদলি হিসেবে নামা মোরাতা গোল করে দলকে ৭-০ গোলের বিশাল জয় এনে দেন।

এই বিশাল জয়ে গ্রুপের শীর্ষে উঠে আসলো লুইস এনরিকের দল। ২০১০ সালের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে বিশ্বে নতুনভাবে আবির্ভাব হয় স্প্যানিশ ফুটবলের। যদিও ২০১৪ ও ২০১৮ বিশ্বকাপে সেভাবে নিজেদের মেলে ধরতে পারেনি। তবে তারা যে এবার বিশ্বকাপের অন্যতম দাবিদার সেটা বুঝিয়ে দিল। 

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //