সীমান্তে সৈন্য বাড়িয়েছে মিয়ানমার, অসন্তুষ্ট বাংলাদেশ

বাংলাদেশ-মিয়ানমার আন্তর্জাতিক সীমান্তে মিয়ানমারের সেনাদের গতিবিধি গত কয়েকদিনে বেড়ে যাওয়ায় অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ। গত কয়েকদিনে এ ধরনের তৎপরতা বৃদ্ধি পাবার প্রেক্ষাপটে উদ্বেগ জানিয়ে এরই মধ্যে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে চিঠিও দিয়েছে বাংলাদেশ। 

এদিকে মিয়ানমার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বাংলাদেশের বক্তব্য তারা তাদের সরকারের উচ্চ পর্যায়ে অবহিত করেছেন। কিন্তু ঘটনা সম্পর্কে তিনি কিছু বলেননি। বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বলেছেন, বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে আর পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী  শাহরিয়ার আলম বলেছেন, সীমান্তে সৈন্য বৃদ্ধির যে অজুহাত দিচ্ছে দেশটি তাতে সন্তুষ্ট নয় বাংলাদেশ।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, গত শুক্রবার থেকে বাংলাদেশ-মিয়ানমার আন্তর্জাতিক সীমান্ত এলাকার কাছাকাছি মিয়ানমারের সৈন্যদের টহল স্বাভাবিকের তুলনায় বেড়ে গেছে। সীমান্ত এলাকার অন্তত তিনটি পয়েন্টে সৈন্যদের ‘ব্যাপক সংখ্যক’ উপস্থিতি দেখা গেছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। যদিও সেটাকে সৈন্য সমাবেশ বলতে চাননি মিয়ানমারের কর্মকর্তারা। কিন্তু বাংলাদেশের পক্ষ থেকেও জানিয়ে দেয়া হয়েছে, সেনাদের সন্দেহজনক গতিবিধি বাংলাদেশের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, দুই দেশের মধ্যে সীমান্ত সম্পর্কিত চুক্তি অনুযায়ী সৈন্য সমাবেশের কারণ বা উদ্দেশ্য জানানোর কথা থাকলেও মিয়ানমার বাংলাদেশকে তা জানায়নি।

মঙ্গলবার দুপুরে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, নতুন করে সীমান্তে মিয়ানমারের সৈন্য সমাবেশের তথ্য মন্ত্রণালয় পেয়েছে। এক্ষেত্রে যেকোনো পরিস্থিতির জন্য সব সময় প্রস্তুত আছে বাংলাদেশ। 

পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানান, মিয়ানমার অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা বাড়ানোর যে অজুহাত দিচ্ছে তাতে সন্তুষ্ট নয় বাংলাদেশ। এক রাষ্ট্র যদি সীমান্তে কোনো ব্যাখ্যা ছাড়া সেনা পরিসর বৃদ্ধি করে সেটি পাশ্ববর্তী রাষ্ট্রকে চিন্তিত করে। আমরা আমাদের অসন্তুষ্টির কথা মিয়ানমারকে জানিয়েছি। বাংলাদেশে নতুন করে আর কোনো রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেয়া হবে না বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী।

সম্প্রতি বাংলাদেশ-মিয়ানমার আন্তর্জাতিক সীমান্তে মাছ ধরার ট্রলারে করে মিয়ানমারের সেনাদের সন্দেহজনক গতিবিধি লক্ষ্য করেছে বাংলাদেশ। সীমান্ত এলাকায় গত কয়েক দিনে মিয়ানমার সৈন্যদের উপস্থিতি দেখা গেছে। বিনা উসকানিতে সীমান্তের কাছে নতুন করে সেনাসমাবেশের বিষয়ে ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত অং কিউ মোয়েকে রবিবার তলব করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের আগস্টে নিপীড়নের অভিযোগ তুলে মিয়ানমার থেকে লাখ লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। তাদের এখনো ফিরিয়ে নেয়নি দেশটি।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, মিয়ানমার তাদের অভ্যন্তরীণ কোন সন্ত্রাসী বা বিচ্ছিন্নতবাদী গোষ্ঠীর জন্য সৈন্য সমাবেশ করলেও সীমান্তের কাছে হওয়ায় তা বাংলাদেশকে জানানো উচিত ছিলো। আমরা ভিজ্যুয়াল পেয়েছি কিছু এবং আমরা কিছু ছবিও পেয়েছি। সেটি হচ্ছে যে, মিয়ানমার সেনাবাহিনী সিভিলিয়ান বোট ব্যবহার করে বাংলাদেশের সীমান্তের কাছে তাদের বেশ কিছু জায়গায় সৈন্য সংখ্যা বৃদ্ধি করেছে। এসব ক্ষেত্রে যা হয়, প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলো তাদের অভ্যন্তরীণ কোনো ইনসারজেন্সির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে গেলে পাশ্ববর্তী রাষ্ট্রকে তা জানানোর একটা নিয়ম আছে। তো তারা আমাদেরকে না জানিয়ে এ কাজটি করেছে। আমরা একারণে সেটা তাদের এখানকার দূতাবাসকে জানিয়েছি।

তিনি আরো বলেছেন, আমরা প্রত্যাশা করি, এ ধরনের সৈন্য সমাবেশ ঘটানোর আগে- কী উদ্দেশ্যে করা হচ্ছে, কখন করা হচ্ছে এবং কী পরিমাণ করা হচ্ছে- এ বিষয়গুলো যেনো সবসময় আমাদের জানিয়ে রাখা হয়। তা না হলে এখানে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হতে পারে, এখানে অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

প্রসঙ্গত, সাধারণত দুই দেশের আন্তর্জাতিক সীমান্ত এলাকায় এ ধরনের সেনা টহল যদি বাড়ে এবং আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন হয়, তাহলে সংশ্লিষ্ট দেশের রাষ্ট্রদূতকে ‘তলব’ করে প্রতিবাদ জানানো হয়। কিন্তু এক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সীমান্ত এলাকায় সেনা টহল বেড়েছে, কিন্তু কোনো আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন হয়নি, সে কারণে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে উদ্বেগ জানানো হয়েছে। এছাড়া যেহেতু সীমান্ত এলাকায় স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি সেনা টহল লক্ষ্য করা গেছে, কর্মকর্তারা মনে করছেন ভবিষ্যতে সেটা উদ্বেগের কারণ হয়ে উঠতে পারে। এজন্যই আনুষ্ঠানিকভাবে সেটা জানিয়ে দেয়া হয়েছে।

এখানে আরো একটি বিষয় রয়েছে, মিয়ানমারের এই সেনা টহলের একটি অংশ হয়েছে সিভিলিয়ান বাহনে করে, অর্থাৎ মাছ ধরার নৌকায় করে। আর যে তিনটি পয়েন্টে তাদের দেখা গেছে সেগুলো হলো- কা নিউন ছুয়া, মিন গালারগি ও গার খুইয়া আর এই জায়গাগুলো মূলত মুসলিম অধ্যুষিত এলাকা। এটাকে সন্দেহজনক বলে মনে করছেন কর্মকর্তারা। কারণ মুসলিম অধ্যুষিত এলাকায় এ ধরনের সেনা টহল বাড়লে পরে হয়ত সেখানকার মুসলমানদের মধ্যে ভীতি ছড়িয়ে পড়তে পারে। যার ফলে আরো কিছু লোকজন হয়ত বাংলাদেশে ঢুকে পড়তে চাইবে, তারও একটা ঝুঁকি তৈরি হয়। ফলে এই সব বিষয় মাথায় রেখেই আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের উদ্বেগের কথা জানানো হয়েছে মিয়ানমারকে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh