১৫ হাজার কর্মী নেবে বাংলাদেশ রেলওয়ে

বাংলাদেশ রেলওয়েতে ১৫ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন রেলপথমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন।

সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে দিনাজপুর রেলওয়ে স্টেশন উঁচু ও বর্ধিত প্লাটফর্মের উদ্বোধন ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

রেলমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন পর্যটন নগরী কক্সবাজার পর্যন্ত রেললাইন সম্প্রসারণ করার। আমরা আশা করছি, আগামী ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে কক্সবাজার পর্যন্ত রেলপথ সম্প্রসারিত হবে এবং দিনাজপুর থেকে সরাসরি কক্সবাজারে যাওয়া যাবে। শুধু তাই নয়, পঞ্চগড় থেকে ভারতের শিলিগুড়ি পর্যন্ত রেলওয়ের মাধ্যমে মানুষ যাতায়াত করতে পারবে। ইতোমধ্যেই সেই সমীক্ষার কাজ চলছে।

তিনি বলেন, এই বছরের মধ্যে ১০ থেকে ১৫ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী রেলওয়েতে নিয়োগ দেওয়া হবে। ফলে রেলওয়েতে যে ঘাটতি আছে তা পূরণ হবে। পঞ্চগড় থেকে খুলনা ট্রেন চলাচল করবে, এটার ঘোষণা দেয়া লাগবে না। মুক্তিযুদ্ধের সময়ে আমাদের রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিল ৩ হাজার কিলোমিটার আর সড়কপথ ছিল সাড়ে ৩ হাজার কিলোমিটার। আজকে সড়ক পথ বর্ধিত হয়ে প্রায় ৪০ হাজার কিলোমিটার হয়েছে, তবে রেলপথ আরো ২০০ কিলোমিটার কমে হয়েছে ২৮০০ কিলোমিটার। তাহলে রেল কত অবহেলিত! ’৭২-৭৩ সালে রেলওয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী ছিল ৬৮ হাজার, যেটি এখন কমে দাঁড়িয়েছে মাত্র ২৫ হাজার। সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় শ্রমিক ছিল ১০ হাজার যেটি এখন কমে এসে হয়েছে মাত্র ১৪০০।

রেলওয়েকে পাবলিক করতে পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছিল। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর ভারসাম্যপূর্ণ যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে কাজ করছেন। রেলওয়েকে ঢেলে  সাজানোর জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগের জন্য যমুনা সেতু পরিকল্পনা করা হয়েছিল তবে তাতে রেল ছিল না, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর সেই ডিজাইন পরিবর্তন করে এটিতে রেলওয়ে চলাচল যুক্ত করেছেন। এখন তিনি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন, আরেকটি রেলওয়ে সেতু নির্মাণের।

তিনি বলেন, মোংলা পর্যন্ত রেল লাইন সম্প্রসারণের কাজ শুরু হয়েছে। আগামী বছরের জুলাই মাসের মধ্যে মোংলা পর্যন্ত রেল চালু হবে। পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে আগামী ২০২৪ সালের মধ্যে রেল চালু হবে। যেদিন পদ্মা সেতু সড়কপথের জন্য খুলে দেওয়া হবে সেই দিনই যেন আপাতত ভাঙ্গা থেকে মাওয়া পর্যন্ত রেল চালু করা যায় সেই লক্ষ্য নিয়ে কাজ এগিয়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে রাজশাহী (পশ্চিম) জোনের মহাব্যবস্থাপক মিহির কান্তি গুহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব সেলিম রেজা, মহাপরিচালক ডিএন মজুমদার, দিনাজপুরের পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh