প্রথমদিনেই ১৫টি নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর বাইডেনের

নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেছেন বাইডেন। ছবি: বিবিসি

নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেছেন বাইডেন। ছবি: বিবিসি

যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছেন জো বাইডেন। গতকাল বুধবার (২০ জানুয়ারি) সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি জন রবার্ট তাকে শপথ বাক্য পাঠ করিয়েছেন।

শপথ গ্রহণের পর কোনো সময়ের অপচয় না করেই অনেকগুলো নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেছেন বাইডেন। অন্তত ১৫টি আদেশে তিনি স্বাক্ষর করেছেন এবং আগামী কয়েকদিনে আরো কিছু আদেশে তিনি স্বাক্ষর করবেন।

হোয়াইট হাউসে তার পূর্বসূরী ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রথম দুই সপ্তাহে আটটি নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেছিলেন আর প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা করেছিলেন নয়টি আদেশে।

পরে এক টুইট বার্তায় বাইডেন বলেন, সংকট মোকাবেলার ক্ষেত্রে অপচয় করার মতো কোনো সময় নেই।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন যে ১৫টি নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেছেন তার প্রথমটিই ছিলো করোনাভাইরাস মোকাবিলা বিষয়ে। এর বাইরে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর মধ্যে আছে জলবায়ু পরিবর্তন ও অভিবাসন।

এছাড়া আরো রয়েছে: ১. ট্রাম্পের অভিবাসন সংক্রান্ত নীতিমালা বাতিল, ২. মেক্সিকোর সাথে সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণের জন্য অর্থ সংগ্রহে  ট্রাম্পের দেয়া জরুরি ঘোষণা প্রত্যাহার, ৩. কেন্দ্রীয় সরকারের চাকুরিজীবীদের জন্য ও ফেডারেল ভবন ও হোয়াইট হাউসে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নতুন অফিসে মাস্ক ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশ, ৪. কিছু দেশ- বিশেষ করে মুসলিম দেশ থেকে ভ্রমণের ওপর যে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল তার অবসান ও কিস্টোন এক্সএল পাইপলাইন বিষয়ে দেয়া ট্রাম্পের অনুমোদন প্রত্যাহার করবেন। পরিবেশবাদীরা ও ন্যাটিভ আমেরিকান গ্রুপ এই পাইপলাইনের বিরোধিতা করছে।

মন্ত্রিসভার সদস্যদের অনুমোদন দেয়া শুরু

এসব নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে বাইডেন বুঝিয়ে দিলেন, ট্রাম্পের নীতি পাল্টে দিতে তিনি দেরি করতে রাজি নন।  

এছাড়া শপথের পরই বাইডেন মন্ত্রিসভার সদস্যদের অনুমোদন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে সিনেটে। এর মধ্যেই একজনকে অনুমোদন দিয়েছে সিনেট। ন্যাশনাল ইন্টেলিজেন্সের পরিচালক হিসেবে ৮৪-১০ ভোটে অনুমোদন পেয়েছেন অ্যাভরিল হেইনস। ৫১ বছর বয়সী হেইনস এ পদে প্রথম নারী। তিনি এর আগেও জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার নানা পদে কাজ করেছেন।

বাইডেন প্রশাসন আরো কয়েকজন কেবিনেট সদস্যের দ্রুত অনুমোদন চাইছিলো কিন্তু অধিবেশন শেষ হওয়াতে আর তা হয়নি।

এদিকে বাইডেনের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি জানিয়েছেন, স্থানীয় সময় আগামীকাল শুক্রবার (২২ জানুয়ারি) থেকেই বিদেশি নেতাদের ফোন করতে শুরু করবেন নতুন প্রেসিডেন্ট। শুরুতেই তিনি কথা বলবেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর সাথে।

জেন বলেন, তবে এ মূহুর্তে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে কথা বলার কোনো পরিকল্পনা প্রেসিডেন্টের নেই। তার শুরুর দিককার ফোনগুলো হবে সহযোগী ও সমমনাদের সাথে। -বিবিসি

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh