সরকার পরিবর্তনে গণজাগরণের আশায় বিএনপি

সরকার পরিবর্তনে বিএনপি গণজাগরণের প্রত্যাশা করছে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

তিনি বলেন, ‘দলের লক্ষ্য অর্জনে, কোথা মৃত্যু হবে কোথায় হবে না সেটা নিয়েও বিএনপির নেতৃবৃন্দ ভাবে না।’ ‘তারা শুধু একটা সুযোগ একটা পরিবেশের অপেক্ষায় আছে, একটি গণজাগরণের মধ্যে এই সরকারকে বিদায় দিযে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র একাত্তরের যে স্বপ্ন সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে আমরা বদ্ধ পরিকর।’

দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫৬তম জন্মদিন উপলক্ষে শুক্রবার (২০ নভেম্বর) সকালে এক দোয়া মাহফিলে অংশ নিয়ে তিনি এই মন্তব্য করেন।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘আজকের তরুণ সমাজকে বলব, আগামী দিনটা আপনারদের। আপনাদের বয়সে আমরা বাংলাদেশ কেমন দেখব সেই কারণে একাত্তর সালে যুদ্ধ করেছিলাম। কিন্তু যে বাংলাদেশ দেখতে চেয়েছিলাম সেই বাংলাদেশ দেখতে পারি নাই এখনো। সেই বাংলাদেশ দেখার যে লড়াই সেই লড়াইয়ে আপনাদের পাশে আমর আছি।’ ‘আমরা সামনে থাকতে বললেও আছি, পিছে থাকতে বললেও আছি। অর্থাত আমরা কখনোই আপনাদের ছেড়ে যাবো না।’

গয়েশ্বর বলেন, ‘আমাদের নিষেধ আছে- যার জন্মদিন পালন করছি স্বয়ং তার পক্ষ থেকেও আহবান আছে যে, কেক কাটা নয়। দোয়া এবং পারলে গরীবদের মাঝে কিছু সাহায্য সামগ্রি দেওয়া। কিন্তু আবেগ তো এই নিষেধ মানে না।’

‘আজকে কম হলেও ১০ হাজার কেক কাটা হবে। কারণ আবেগের জায়গায় কিন্তু বাস্তবতা পরাজিত হয়।’

তিনি বলেন, ‘জাতীয়তাবাদের একমাত্র ঠিকানা তারেক রহমান। খালেদা জিয়া আজকে জেলবন্দি থেকে তিনি আজকে গৃহবন্দি। এই যে একটি অবস্থা এই অবস্থা থেকে অতিক্রম করতে পারে এই তরুন সমাজ ও যুব সমাজ যারা যুগে যুগে পরিবর্তন ঘটিয়েছে।’

‘আগামী দিনটা কিন্তু আজকের যুবকদের, আজকের তরুনদের। সেকারণে আগামী বাংলাদেশটা কেমন হবে, কেমন দেখতে চান তার জন্য আপনারা সক্রিয় হয়ে আপনারা আগামী বাংলাদেশটা বিনির্মানের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। যার অগ্রভাগে নেতৃত্ব দেবেন অত্যন্ত সাহসিকতার সাথে সেটা জনাব তারেক রহমান। আজকে থেকে আমরা চেষ্টা করি আগামী দিন যেন আমাদের তার নেতুত্বে, তার উপস্থিতিতে জন্মদিন পালন করতে পারি।’

কেন্দ্রীয় দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত দলের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্সের পরিচালানায় দোয়া মাহফিলে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমানউল্লাহ আমান বক্তব্য রাখেন।

দোয়া মাহফিলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম মহাসচিব মজিবুর রহমান সারোয়ার, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুল ইসলাম হাবিব, আমিনুল হক, মীর সরফত আলী সপু, শহিদুল ইসলাম বাবুল, হারুনুর রশীদ, অঙ্গসংগঠনের কাজী আবুল বাশার, সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, মোরতাজুল করীম বাদরু, সাদেক আহমেদ খান, কাজী মনিরুজ্জামান মুনির, নজরুল ইসলাম তালুকদার, এসকে সাদী, মেহিদী হাসান পলাশ, আবদুর রহিমসহ কয়েক‘শ নেতা-কর্মী অংশ নেয়।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh