যুবলীগের কমিটি নিয়ে বিতর্ক, যা বললেন আ.লীগ নেতারা

যুবলীগের ২০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। গত শনিবার (১৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় যুবলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। কমিটিতে এমপি, সাবেক ছাত্রলীগ ও বিভিন্ন জেলা থেকে উঠে  আসা নতুন মুখ, সিসি কমিটির সদস্য ও সাবেক কমিটির বেশ কয়েকজনসহ কমিটিতে জায়গা পেয়েছেন কয়েকজন সাংবাদিকও।

অন্যদিকে, নতুন কমিটিতে বাদ পড়েছেন যুবলীগের গত কমিটির বিতর্কিত নেতারা। পাশাপাশি বয়স ৫৫ বছরের বেশি হওয়ায় বাদ পড়েছেন ৭০ জনের বেশি। এর আগে ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়। যুবলীগের সপ্তম কংগ্রেসে সংগঠনটির সভাপতি পদে আসেন শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক পদে আসেন মাঈনুল হোসেন খান নিখিল। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ঘোষণার এক বছর পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, যুবলীগের এ কমিটি নতুন বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। যার ফলে কমিটি নিয়ে মুখ খুলেছেন আওয়ামী লীগ নেতারাও। বিতর্কিত কয়েকজনকে যুবলীগের কমিটিতে পদ দেয়া ঠিক হয়নি বলে জানিয়েছেন দলটির কয়েক নেতা। এক্ষেত্রে আরো সতর্ক হওয়া উচিত ছিল বলে মনে করেন তারা। এছাড়া, কমিটিতে সিনিয়র-জুনিয়র জটিলতাও রয়েছে, যা দ্রুত মিটিয়ে ফেলার পরামর্শ দিয়েছেন নেতারা।

নবম সংসদ নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করেছিলেন আশিকুর রহমান শান্ত। তিনি এবার যুবলীগের নির্বাহী সদস্য হয়েছেন। তার আরেক পরিচয়, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপির সভাপতি আন্দালিব রহমান পার্থর ছোট ভাই।

যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হয়েছেন ফরিদপুর-৪ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য নিক্সন চৌধুরী, যিনি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও নৌকার প্রার্থীকে হারিয়েছেন দুইবার। এছাড়া, সম্প্রতি স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে প্রকাশ্যে বিরোধে জড়িয়ে সমালোচিত হন এবং মামলায় জড়ান।

আইনজীবী চৌধুরী মৌসুমী ফাতেমা কবিতা যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে নির্বাহী সদস্য হয়েছেন। কমিটি ঘোষণা হওয়ার পরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খালেদা জিয়ার সঙ্গে তার দুটি ছবি ছড়িয়ে পড়ে।

এই ৩ জনসহ আরো কয়েকজনের যুবলীগের পদ পাওয়া নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা চলছে, যদিও প্রকাশ্যে কেউ কথা বলছেন না।

পদায়নে রাজনীতিতে জ্যেষ্ঠতার বিষয়টি উপেক্ষিত হওয়ায় উদ্বেগ জানিয়েছেন যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক। ভুল-ত্রুটি থাকার কথা স্বীকার করেছেন আরেক নেতা আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রাজ্জাক।

আগের কমিটির চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীসহ বিতর্কিত হয়েছিলেন যুবলীগের বেশকিছু নেতা। তারপর ঘোষণা দেয়া হয়েছিল সমালোচনার ঊর্ধ্বে থাকবে কমিটি। কিন্তু সেটা এবারও হলো না।


মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh