জিয়াউর রহমানের নাম মুছতে চায় আ.লীগ: মির্জা ফখরুল

ইতিহাস বিকৃতির মাধ্যমে আওয়ামী লীগ জিয়াউর রহমানের নাম মানুষের মন থেকে মুছে ফেলতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ রবিবার (২৭ মার্চ) দুপুরে চট্টগ্রাম নগরের পলোগ্রাউন্ড মাঠে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, চট্টগ্রাম থেকেই সরকার পতনের অন্দোলন শুরু করতে হবে। ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে দেশকে অকার্যকর রাষ্ট্র পরিণত করেছে তারা।  অনতিবিলম্বে জনগণের ভোটের অধিকার দিতে হবে।  

বিএনপির মহাসচিব বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছরে আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসেছে ততবারই ইতিহাস বিকৃতি করেছে। তারা মানুষের মন থেকে জিয়ার নাম মুছে ফেলতে চায়।

এসময় পুলিশকে উদ্দেশ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, পুলিশ জনগণের সেবক। আওয়ামী লীগ আজীবন ক্ষমতায় থাকবে না। র‍্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা এসেছে। এখন আর কার ওপর নিষেধাজ্ঞা আসে তা দেখার বিষয়। তাদের নির্দেশে গুম-খুন হয়েছে। এখন জনগণের নিষেধাজ্ঞা আপনাদের ওপর আসবে। এই নিষেধাজ্ঞা লজ্জার।

তিনি আরও বলেন, এ সরকার জনগণের ভোটের অধিকার হরণ করেছে। দিনের ভোট নেয় রাতে। ১৫৪ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সরকার গঠন করেছে। এখন সময় এসেছে জনগণের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়েও আওয়ামী লীগ সরকার ডিগবাজি খেয়েছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, তারা বলেছে রাশিয়ার যুদ্ধে ভোট দেবে না। কয়দিন আগে আমেরিকা থেকে ধমক খেয়ে ইউক্রেনকে ভোট দিয়ে দিয়েছে।

তিনি বলেন, এ সরকার ৩৫ লাখ মানুষের নামে মামলা দিয়েছে। বিএনপি নেতাকর্মীদের গুম-খুন করা হচ্ছে। মামলা-গুম-খুন করে জনগণকে দমিয়ে রাখা যাবে না।

এসময় বিএনপি মহাসচিব বলেন, সরকার পতনে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে চট্টগ্রাম থেকেই নতুন মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়েছে।

এতে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ইতিহাসের সত্য কথা বললে আওয়ামী লীগের গা জ্বলে। তাই আমাদের কালুরঘাট যেতে দেয়নি তারা। আমাদের আওয়ামী লীগের লোকজন ভয় পায়। তাই আওয়ামী লীগের প্রশাসন আমাদের কালুরঘাট যেতে দেয়নি।

সমাবেশে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান, মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আবদুস সালাম, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভুঁইয়া, জয়নাল আবেদীন ফারুক, গোলাম আকবর খোন্দকার, কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, সাংগঠনিক সম্পাদক শ্যামা ওবায়েদ, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহবায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন, সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক এম নাজিম উদ্দীন, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, নির্বাহী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মীর হেলাল, কেন্দ্রীয় যুবদল সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দীন টুকুসহ বিএনপির অঙ্গ সংগঠনের নেতারা।

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //