ICT Division

ইডেনে ছাত্রীদের অনৈতিক কাজে বাধ্য করার প্রমাণ পায়নি তদন্ত কমিটি

ইডেন মহিলা কলেজ শাখা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের অন্তঃকোন্দলে প্রকাশ্যে আসে কলেজটির ছাত্রীদের অনৈতিক কাজে বাধ্য করার অভিযোগের বিষয়টি। তবে কলেজ কর্তৃপক্ষের গঠিত তদন্ত কমিটি এই অভিযোগের পক্ষে কোনো প্রমাণ বা সূত্র পায়নি। ফলে বিষয়টিকে মিথ্যা হিসেবেই প্রতিবেদন দাখিলের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। এ অভিযোগের সত্যতা নেই বলে দাবি করেছেন কলেজের অধ্যক্ষ সুপ্রিয়া ভট্টাচার্যও। তবে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন একপেশে হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী। কলেজ শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের অপকর্মের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দেয়ার সাহস কর্তৃপক্ষের নেই বলেও দাবি করেছেন তারা।

তদন্তের বিষয়ে ইডেন মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ সুপ্রিয়া ভট্টাচার্য গণমাধ্যমকে জানান, অভিযোগটির সত্যতা যাচাইয়ের জন্য তারা কলেজের অন্তত এক হাজার শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলেছেন। তবে কারও কাছ থেকে এ বিষয়ে সামান্যতম প্রমাণ বা সূত্র পাননি তারা। ফলে ছাত্রীদের অনৈতিক কাজে বাধ্য করার অভিযোগের বিষয়টি সত্যি নয় বলে শিগগিরই প্রতিবেদন জমা দেবে কমিটি।

এদিকে কলেজ শাখা ছাত্রলীগের দু'গ্রুপের সংঘর্ষে সৃষ্ট ঘটনা ও যৌন শোষণের মতো গুরুতর অভিযোগসমূহের সত্য-মিথ্যা উদঘাটনে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি করার দাবি জানিয়েছিলেন দেশের ২১ জন নারী আন্দোলনকর্মী। অভিযোগের সত্যতা মিললে জড়িতদের বিরুদ্ধে মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনে কঠিন শাস্তির দাবি করেছিলেন তারা। তাদের এ দাবির বিষয়ে অধ্যক্ষ কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

গত ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের অন্তঃকোন্দলে উত্তপ্ত হতে শুরু করে ইডেন কলেজ। পরে ২৫ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়ায়। এতে কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তামান্না জেসমিন ওরফে রীভা, সাধারণ সম্পাদক রাজিয়া সুলতানাসহ আহত হন অন্তত ১০ জন৷

ছাত্রলীগের দু'গ্রুপের বিরোধ ও পরবর্তীতে শিক্ষার্থীদের অনৈতিক কাজে বাধ্য করার অভিযোগ তদন্তে কলেজ প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। গত ২৫ সেপ্টেম্বর কলেজ প্রশাসনের পক্ষ থেকে চার সদস্য বিশিষ্ট এই তদন্ত কমিটি গঠন করা হলেও অধ্যক্ষ তা জানান ২৭ সেপ্টেম্বর সকালে। তবে তদন্ত কমিটিতে কারা রয়েছেন বা ঠিক কত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে হবে সে বিষয়ে  শুরু থেকেই লুকোচুরি করে আসছেন তিনি।

এ বিষয়ে অধ্যক্ষ সুপ্রিয়া ভট্টাচার্য বলেন, কলেজের সাধারণ শিক্ষকদের মধ্য থেকে চারজনকে নিয়ে এই কমিটি গঠন করা হয়েছে।  তদন্ত কমিটিতে কারা আছেন, তা তো বলা যাবে না৷ গঠিত কমিটি দু-এক দিনের মধ্যেই প্রতিবেদন জমা দিবে। প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে৷

এদিকে কলেজ কর্তৃপক্ষের প্রতিবেদন নিরপেক্ষ হবে না বলে অভিযোগ করেছেন কলেজটির সাধারণ শিক্ষার্থীরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন জানিয়েছেন, ইডেন কলেজে রীভা-রাজিয়ার কথাই শেষ কথা। তারা ইডেনের ডন। তাদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দেয়ার সাহস কলেজ কর্তৃপক্ষের নেই। ইডেন কলেজে ছাত্রলীগ নেত্রীদের বিতর্কিত সকল কাজের বিষয়েই কর্তৃপক্ষ বরাবরই নীরব ভূমিকা পালন করেছে৷ ছাত্রীনিবাসগুলোতে নামেই আছে প্রশাসন, সিটে তোলা বা নামানোর কাজটি করে ছাত্রলীগের নেত্রীরাই। ফলে সাধারণ ছাত্রীদের তাদের কথার বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই। তাদের মুখ বুজেই পালন করতে হয় নেত্রীদের সব হুকুম। তাই তদন্ত প্রতিবেদনও যে ছাত্রলীগের পক্ষপাতদুষ্ট হবে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।


সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //