‘বিদায়ের দাবি দেখে সরকার ভীত’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, এই সরকার সব ক্ষেত্রে ব্যর্থ হয়েছে এবং আজকে যে বিদায়ের দাবি উঠেছে তাতে সরকার ভীত। ভয়ের কারণে তারা এসব পদক্ষেপ নিচ্ছে। তারই অংশ হচ্ছে তারেক রহমান ও ডা. জোবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে মামলা চালু করা ও সম্পত্তি জব্দের আদেশ। আমাদের চলমান আন্দোলনকে স্তব্ধ করার জন্য সরকার এসব কর্মকাণ্ড করছে। গত ১৪ বছর ধরে আমাদের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নির্যাতন হচ্ছে, গুম হয়েছে, বিচার বহির্ভূত হত্যা হয়েছে।

আজ শনিবার (৭ জানুয়ারি) সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

সম্মেলনে তিনি বলেন, দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ১০ দফা, আন্দোলন এবং রাষ্ট্র কাঠামো মেরামত কর্মসূচি দেওয়ার পরে সরকার স্বৈরাচারী কায়দায় পুলিশি ও আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাদেরকে দমন করতে চাচ্ছে। 

তিনি আরো বলেন, গত ৭ ডিসেম্বর বিএনপির কার্যালয়ে পুলিশ দিয়ে হামলা চালিয়েছে সরকার। সেদিন তার দলের ৪০০ নেতাকর্মীকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পরদিন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসসহ সারাদেশে বিশেষ অভিযানের নামে হাজার হাজার নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মোশাররফ বলেন, এই সরকার সব ক্ষেত্রে ব্যর্থ হয়েছে এবং আজকে যে বিদায়ের দাবি উঠেছে তাতে সরকার ভীত। ভয়ের কারণে তারা এসব পদক্ষেপ নিচ্ছে। তারই অংশ হচ্ছে তারেক রহমান ও ডা. জোবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে মামলা চালু করা ও সম্পত্তি জব্দের আদেশ। আমাদের চলমান আন্দোলনকে স্তব্ধ করার জন্য সরকার এসব কর্মকাণ্ড করছে। গত ১৪ বছর ধরে আমাদের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নির্যাতন হচ্ছে, গুম হয়েছে, বিচার বহির্ভূত হত্যা হয়েছে। এসব নির্যাতন করে আমাদের দমন করা যাবে না বলেও মন্তব্য করেন মোশাররফ। 

এদিন দুর্নীতি দমন কমিশন বিএনপি দমন কমিশনে পরিণত হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, আশ্চর্যজনক হলেও সত্য, যেসব সম্পত্তির মালিক তারেক রহমান নন, কোনো দলিলে বা চুক্তিতে যেখানে তারেক রহমানের নাম, স্বাক্ষর বা সংশ্লিষ্টতা নেই, তাকে সেসব সম্পত্তির গায়েবি মালিক বানিয়ে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। এমনকি তারেক রহমান এবং ডা. জোবাইদা রহমানের কর পরিশোধকৃত সম্পদ নিয়েও কাল্পনিক অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সরকারের নির্মম প্রতিহিংসায় দেশ আজ পুড়ে ছারখার হয়ে যাচ্ছে। দেশে বিরাজমান সীমাহীন দুর্নীতির মহাতাণ্ডব দুদকের চোখে পড়ে না।

তিনি বলেন, তারেক রহমান ও ডা. জোবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগে মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে তা অবান্তর, ভিত্তিহীন, অমূলক। যে আদেশ দেওয়া হয়েছে তা প্রতিহিংসামূলক ফরমায়েশি। এসব মামলা, আদেশ, রায় দিয়ে তারেক রহমানের নেতৃত্ব প্রশ্নবিদ্ধ বা ডা. জোবাইদা রহমানকে হেয় প্রতিপন্ন করতে পারবে না এবং গণতন্ত্র, মানবাধিকার, ভোটাধিকার ও আইনের শাসন পুনঃপ্রতিষ্ঠায় চলমান আন্দোলন বিভ্রান্ত বা নস্যাৎ করতে পারবে না।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2023 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //