বাগেরহাটে চিকিৎসককে পেটালো ইউপি সদস্য

বাগেরহাট প্রতিনিধি

প্রকাশ: ০৮ এপ্রিল ২০২১, ০৭:০৭ পিএম

বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মধ্যে প্রবেশ করে উপসহকারী মেডিকেল অফিসার ও পরিবার পরিকল্পনা সহকারীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে ইউপি সদস্য সুমন শেখের বিরুদ্ধে। মারধরে আহত উপসহকারী মেডিকেল অফিসার নিরোধ চন্দ্র বিশ্বাসকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিবার পরিকল্পনা সহকারী বেগ মশিউর রহমান কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েছেন। 

বুধবার (৭ এপ্রিল) দুপুরে গজালিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এই ঘটনা ঘটে। উপসহকারী মেডিকেল অফিসার নিরোধ চন্দ্র বিশ্বাস কচুয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। স্থানীয় এক নারীর সাথে অবৈধ সম্পর্কের অপরাধে মশিউরকে মারধর করেছে এমন দাবি করেছেন ইউপি সদস্য সুমন শেখ।

উপসহকারী মেডিকেল অফিসার নিরোধ চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, একজন নারী স্বাস্থ্য কেন্দ্র এসেছিলেন ঔষধ ও পরামর্শ নিতে। ওই নারী ঔষধ নিয়ে বের হয়ে যায়। এর পরেই গজালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নং সদস্য সুমন শেখ স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মধ্যে প্রবেশ করে পরিবার পরিকল্পনা সহকারী বেগ মশিউর রহমানকে অতর্কিতভাবে মারধর শুরু করেন। আমাকে গালিগালাজ করেন। একপর্যায়ে আমার হাতের উপর চেয়ার দিয়ে বাড়ি দেয়। পরে মাথা ও মুখে আঘাত করলে আমি অজ্ঞান হয়ে পরে যাই। পরবর্তীতে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

নিরোধ চন্দ্র বিশ্বাস আরো বলেন, এর আগেও সুমন শেখ এই হাসপাতালে তাণ্ডব চালিয়েছে। ৭-৮ মাস আগে একজন বিষ খাওয়া রোগী স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে আসছিলেন সুমন। রোগীর অবস্থা গুরুত্বর হওয়ায় আমি কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যেতে বলি। এই ঘটনার জেরে পরবর্তীতে সুমন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভাংচুর চালিয়েছিল। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহোদয়ের মাধ্যমে তখন বিষয়টি সুরাহা হয়েছিল। 

ইউপি সদস্য সুমন শেখ বলেন, পরিবার পরিকল্পনা সহকারী বেগ মশিউর রহমানের সাথে স্থানীয় এক নারীর সাথে অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে। যার ফলে এলাকায় অনেক ঝামেলা সৃষ্টি হচ্ছে। এজন্যই মশিউরকে মারধর করেছি। মশিউরকে মারার সময় ঠেকাতে আসলে উপসহকারী মেডিকেল অফিসার নিরোধ চন্দ্র বিশ্বাস আহত হয়েছেন।

এদিকে যে নারীর সাথে মশিউরের অবৈধ সম্পর্কের কথা ইউপি সদস্য সুমন শেখ বলেছেন মশিউরকে ধর্মের ভাই উল্লেখ ওই নারীর স্বামী বলেন, মশিউর আমার ধর্মের ভাই। আজ ৫-৬ বছর আমাদের সাথে পারিবারিক সম্পর্ক। কিন্তু সুমন দীর্ঘদিন এই নিয়ে আমাদের সাথে ঝামেলা সৃষ্টি করার চেষ্টা করছে। কয়েক মাস আগে জরুরি প্রয়োজনে মশিউরের অফিসে আমার স্ত্রী কিছু টাকা ধার আনতে যায়। তখন সুমন আমার স্ত্রী ও মশিউরকে এক সাথে করে ছবি তুলে ফেসবুকে দেয়ার ভয় দিয়ে এক লাখ টাকা আদায় করে। আর গতকালকে বিষয় আমরা কিছু জানি না।

অন্যদিকে মারধরের ঘটনার পর থেকে পরিবার পরিকল্পনা সহকারী বেগ মশিউর রহমানের মুঠোফোন বন্ধ রয়েছে।

কচুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, উপসহকারী মেডিকেল অফিসার নিরোধ চন্দ্র বিশ্বাস মারধরের কথা উল্লেখ করে ইউপি সদস্য সুমন শেখের নামে একটি অভিযোগ দিয়েছেন। আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

প্রধান সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ | প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh