চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত ইন্দুরকানী উপজেলাবাসী

ইমন চৌধুরী

প্রকাশ: ০৯ এপ্রিল ২০২১, ০২:২৯ পিএম

সরকারের কোটি কোটি টাকা খরচ করেও চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলার লাখো মানুষ। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে ৫০ শয্যাবিশিষ্ট আধুনিক ভবন ও প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র, মেডিক্যালের বিভিন্ন সরঞ্জামাদিসহ পর্যাপ্ত অফিস ব্যবস্থাপনা থাকলেও গত ১২ বছরেও চালু হয়নি ইনডোর সেবা বা আবাসিক চিকিৎসা। লোকবলেও রয়েছে সংকট, আবার যারা দায়িত্বে আছেন মানছেন না অফিস টাইম। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির নৈশপ্রহরী দিয়ে চালানো হচ্ছে ইমারজেন্সি বিভাগ। 

স্থানীয় বেশকিছু রোগী ও স্বজনদের কাছ থেকে জানা যায়, ২০০৮ সালে ইন্দুরকানী হাসপাতালটি চালু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত ইনডোর সেবা চালু হয়নি শুধু বিশুদ্ধ পানির অভাবে। ফলে এ উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এবং উন্নত মানের চিকিৎসার প্রয়োজনে রোগীদের পিরোজপুর, খুলনা, বরিশাল এমনকি ঢাকাতে গিয়েও চিকিৎসাসেবা নিতে হচ্ছে। স্থানীয়রা জানান, হাসপাতালের উন্নয়নে কয়েক কোটি টাকা খরচ করে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করা হলেও মূল সমস্যা বিশুদ্ধ পানির অভাব। পানি সমস্যা সমাধানে কাজ করেনি কর্তৃপক্ষ। সেই কারণেই চালু হচ্ছে না আবাসিক চিকিৎসা।

এদিকে হাসপাতালটিতে লোকবলেরও সংকট যেমন রয়েছে, তেমনি যারা দায়িত্বে আছেন মানছেন না অফিস টাইম। হাসপাতালটির হাজিরা খাতায় দেখা যায় প্রধান সহকারী খালেদা নাসরিনসহ কয়েকজন কর্মকর্তার স্বাক্ষর নেই নিয়মিত। শুধু তাই নয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির নৈশপ্রহরী দিয়ে চালানো হচ্ছে ইমারজেন্সি বিভাগ।

ইন্দুরকানী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. মো. আমিন-উল-ইসলাম। তিনি বলেন, হাসপাতালটিতে লোকবলেও সংকট রয়েছে। তবে লোকবল পানি সমস্যা সমাধান হলে আবাসিক চিকিৎসাও দিতে পারব।

উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান দিলরুবা মিলন নাহার জানান, দ্রুতই সমস্যা সমাধানে চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে। প্রতিদিন শত শত রোগী বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে আসেন; কিন্তু ইনডোর সেবা চালু না থাকার কারণে তাদের প্রায় ২৪ কিলোমিটার দূরে জেলা শহরের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য যেতে হচ্ছে। এই সমস্যা দ্রুত সমাধানে এগিয়ে আসবে সরকার এমনটাই প্রত্যাশা ভুক্তভোগী জনগণের।

প্রধান সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ | প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh