পর্যটকশূন্য কুয়াকাটা

খান রুবেল

প্রকাশ: ২৩ এপ্রিল ২০২১, ০১:১৫ পিএম

করোনার বিধিনিষেধে কুয়াকাটা সৈকত পর্যটকশূন্য। বরিশাল প্রতিনিধি

করোনার বিধিনিষেধে কুয়াকাটা সৈকত পর্যটকশূন্য। বরিশাল প্রতিনিধি

করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় আবারও দেশে সব পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ করা হয়েছে। ফলে কুয়াকাটা সৈকত এখন পর্যটকশূন্য হয়ে পড়েছে। দীর্ঘ ১৮ কিলোমিটার সৈকতজুড়ে এখন শুধু সমুদ্রের ঢেউয়ের গর্জন। সৈকতের জিরো পয়েন্টের পূর্ব-পশ্চিমে বালিয়ারি ছাড়া আর কিছুই চোখে পড়ছে না। 

পর্যটক না থাকায় বন্ধ রয়েছে হোটেল-মোটেল খাবার রেস্টুরেন্টগুলো। চিরচেনা কুয়াকাটা, এখন যেন স্থানীয়দের কাছেই অচেনা লাগছে। বিভিন্ন মাধ্যমে জানা গেছে, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সারাদেশের মতো পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটায় পর্যটকদের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসন। একই সঙ্গে হোটেল-মোটেল বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছেন। 

ট্যুরিজম ব্যবসায়ীরা জানান, ট্যুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকে সৈকতে মাইকিং করার পর সব ট্যুরিজম অফিস বন্ধ রাখা হয়েছে। এ ছাড়া তাদের ভ্রমণতরীগুলো ঘাটে বাঁধা রয়েছে। কুয়াকাটা ইলিশপার্ক অ্যান্ড রিসোর্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রুমান ইমতিয়াজ তুষার বলেন, প্রশাসনের নির্দেশনার পর প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে। একইসঙ্গে পার্ক অ্যান্ড রিসোর্টের কর্মচারীদের ছুটি দেওয়া হয়েছে।’ 

কুয়াকাটা ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন আনু বলেন, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় দীর্ঘ ১৫ দিন পর্যটকদের জন্য নিষেধাজ্ঞা জারি থাকায় পর্যটনমুখী ব্যবসায়ীরা আবারও ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে সৈকতে অবস্থানরত ট্যুর অপারেটরসহ স্বল্প আয়ের মানুষগুলো।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা জোনের ইনচার্জ সিনিয়র এএসপি সোহরাব হোসাইন বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় সমুদ্রসৈকতসহ পুরো পর্যটন এলাকা পর্যটক ও দর্শনার্থী শূন্য রাখাসহ স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থা জারি করা হয়েছে। বর্তমানে কুয়াকাটায় কোনো পর্যটক নেই। পরবর্তী নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত হোটেল-মোটেলে বুকিং না রাখার জন্য হোটেল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করা হয়েছে।

এ ছাড়া স্থানীয় দোকান মালিক, পরিবহন শ্রমিক-ব্যবসায়ী ও জনগণের মধ্যে মাস্ক ও লিফলেট বিতরণ করে করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ সম্পর্কে সচেতন করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এ লক্ষে ট্যুরিস্ট পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করছে বলেও জানান তিনি।

প্রধান সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ | প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh