বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে বাড়ি ফিরতে চায় ইবির শিক্ষার্থীরা

ইবি প্রতিনিধি

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০২১, ১২:২৭ পিএম

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে দেশব্যাপী চলছে কঠোর বিধিনিষেধ। বন্ধ রয়েছে সব ধরনের গণপরিবহন। এ অবস্থায় নিরাপদে বাড়ি ফেরা নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে ক্যাম্পাসের আশপাশে অবস্থানরত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে। 

এমন পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজস্ব পরিবহনযোগে বিভাগীয় শহরে পৌঁছে দেওয়ার দাবি জানিয়ে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রমৈত্রী। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কঠোর বিধিনিষেধে বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহের বিভিন্ন মেসে অবস্থান করছে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী। এ দিকে কুষ্টিয়া জেলায় করোনা সংক্রমের উর্দ্ধগতি ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এমতাবস্থায় স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে মেসে অবস্থান করছেন শিক্ষার্থীরা। অনেক শিক্ষার্থী জ্বরসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে মেসে অবস্থান করছেন। এতে অভিভাবকরাও সন্তানদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছেন। 

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যঝুঁকির কথা চিন্তা করে গুগল ফর্মে শিক্ষার্থীদের তথ্য চেয়ে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। আজ সোমবার (১২ জুলাই) শিক্ষার্থীদের গুগল ফরমে তথ্য পূরণের সময় শেষ হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী এলাকায় অবস্থানরত বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী মাঈদুল ইসলাম বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলে কোরবানির ঈদের পর হল বন্ধ রেখে পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিলে আমি রংপুর থেকে চলে আসি। একইসাথে টিউশনি করাই। বিশ্ববিদ্যালয়ের আশেপাশের মেসগুলো শিক্ষার্থীদের তুলনায় অনেক কম। ঈদের পরে এলে থাকার জায়গা পাওয়াটা মুশকিল হয়ে যাবে। সেটা ভেবে আমিসহ আমার বন্ধুরা মেসে চলে আসি। তাছাড়া বাড়ি থেকেও তেমন লেখাপড়া হয় না। কিন্তু হঠাৎ করে করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় বিধিনিষেধের ঘোষণা চলে আসে। দিনে দিনে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় আমরা খুবই আতঙ্কের মধ্যে আছি। 

দাওয়াহ বিভাগের শিক্ষার্থী আল মামুন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী প্রায় প্রতিটি ঘরে ঘরে করোনার উপসর্গ। যে কোনো সময় আমরা নিজেরাই আক্রান্ত হয়ে পড়তে পারি। তাছাড়া শেখপাড়া এলাকায় বেশিরভাগ সময়ই প্রয়োজনীয় ওষুধ পাওয়া যায় না। এ অবস্থায় এখানে অবস্থান করাটা আমাদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের একটি সিদ্ধান্তই পারে আমাদের এ অবস্থা থেকে উদ্ধার করতে। আমরা প্রশাসনের কাছে জোড় দাবি জানাচ্ছি, প্রশাসন যেন নিজস্ব পরিবহনে আমাদের বিভাগীয় শহরে পৌঁছে দেয়।

এ বিষয়ে পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, আজ বেলা ১২ টায় এ বিষয়ে মিটিং হবে। মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান বলেন, আমরা বিষয়টি নিয়ে এখনো পজিটিভ আছি। আজ শিক্ষার্থীদের গুগল ফরমে তথ্য পূরণের সময় শেষ হবে। এরপর এটা নিয়ে বসব। শিক্ষার্থীদের তালিকা দেখে আমরা পরবর্তী পরিকল্পনা গ্রহণ করব। আগামী ১৪ তারিখ পর্যন্ত বিধিনিষেধ আছে। এরপর সরকারের পক্ষ থেকে কী সিদ্ধান্ত হয়, সেটাও আমাদের দেখতে হবে।  

শিক্ষার্থীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আব্দুস সালাম জানান, শিক্ষার্থীদের তালিকা করে পরবর্তী পরিকল্পনা নেয়া হবে।

প্রধান সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ | প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh