সন্তানের জন্মের পরে বাবাও অবসাদে ভুগতে পারেন

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশ: ২০ জুলাই ২০২১, ১১:০৩ এএম

ইংরেজিতে এই সমস্যাকে বলে ‘পোস্টপার্টাম ডিপ্রেশন’। প্রতীকী ছবি

ইংরেজিতে এই সমস্যাকে বলে ‘পোস্টপার্টাম ডিপ্রেশন’। প্রতীকী ছবি

সন্তানের জন্মের পরে অবসাদে ভুগছেন নতুন মা। এ কথা শুনে এখন আর অবাক হবেন না অনেকেই। এতদিনে এই ধরনের অবসাদের কথা যথেষ্ট প্রচলিত। কিন্তু বাবাও যে একই রোগে ভুগতে পারেন, সে কথা কি জানেন।

ইংরেজিতে এই সমস্যাকে বলে ‘পোস্টপার্টাম ডিপ্রেশন’। শিশুর জন্মের পরে চারপাশের অনেক কিছুই বদলে যায়। মায়েদের জীবন একেবারেই সন্তানকেন্দ্রিক হয়ে পড়ে। এত বদলের সাথে মানিয়ে নেয়ার চাপ অনেক ক্ষেত্রে ডেকে আনে অবসাদ।

তবে একই কারণে এমন অবসাদের ভুগতে পারেন বাবারাও। সন্তানের জন্মের পরে শারীরিকভাবে তাদের ক্ষেত্রে কোনো বদল আসে না। তবে রোজের জীবনধারা একেবারেই বদলে যায়। রাতের পর রাত জেগে থাকা। নিজের পছন্দের কাজ করতে না পারা। স্ত্রী ব্যস্ত থাকেন শিশুকে নিয়ে। ফলে প্রয়োজনের সময়েও নিজের সঙ্গীকে বিশেষ কাছে পাওয়া যায় না। তার উপরে থাকে সন্তানের প্রতি সব দায়িত্ব ঠিকভাবে পালন করার চাপ। সবে মিলে নবজাতকের বাবার মনের উপরে পড়ে অনেকটা চাপ। তার জেরে কেউ কেউ ভোগেন অবসাদে।

সন্তানের জন্মের পরে ক্লান্তি অনেকের মধ্যেই আসে। কিন্তু তা যদি দিনের পর দিন চলতে থাকে, তবে ভেবে দেখা প্রয়োজন। এই অবসাদের উপসর্গ একেক জনের ক্ষেত্রে একেক রকম। কারও খিদের বোধ কমে যায়, কারও আবার দ্রুত ওজন কমতে থাকে। সর্বক্ষণ মন খারাপ, ঘুম না আসা, বিনা কারণেই অপরাধবোধ এবং বিভিন্ন জায়গায় ব্যথা হতে পারে।

কে কখন অসুস্থ হয়ে পড়বেন, তা অবশ্যই আগে থেকে বোঝা সম্ভব নয়। তবে যাদের পরিবারে অন্য কেউ মানসিক অসুখে ভুগেছেন, তেমন পুরুষদের মধ্যে এই অসুখ বেশি দেখা যায়। অর্থনৈতিক সমস্যা থাকলেও সন্তানের জন্মের পরে অবসাদে ভোগেন কিছু মানুষ।

এমন কোনো উপসর্গ যদি কারও ক্ষেত্রে দেখা যায়, তবে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া প্রয়োজন। প্রথমেই চিকিৎসকের কাছে না যেতে ইচ্ছা করলে অন্তত অন্য বাবাদের সাথে কথা বলে দেখা যেতে পারে। তাহলেও খানিকটা সামলে নেয়া যায় এই পরিস্থিতি।

প্রধান সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ | প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh