দেশের ১৫ জেলায় বন্যা

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশ: ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪০ পিএম

কুড়িগ্রামের উলিপুর থেকে তোলা ছবি। -স্টার মেইল

কুড়িগ্রামের উলিপুর থেকে তোলা ছবি। -স্টার মেইল

দেশের প্রধান দুই নদী যমুনা ও পদ্মার পানি বৃদ্ধির  প্রবণতা অব্যাহত থাকায় নতুন করে আরো ৪টি জেলার নিম্নিাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। বন্যা কবলিত নতুন চারটি জেলার মধ্যে রয়েছে- নিলফামারী, লালমনিরহাট, মুন্সিগঞ্জ ও গাজীপুর।

এ নিয়ে মোট ১৫টি জেলার নদী-সংলগ্ন বিভিন্ন উপজেলার অধিকাংশ নিম্নিাঞ্চল বন্যার পানিতে ডুবে গেছে। অসময়ে বন্যার কারণে রোপা-আমন চাষিরা বিপাকে পড়েছে।

বাসসের খবরে জানানো হয়, জেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো প্রতিবেদন ও বাংলাদেশ পানি  উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের সর্বশেষ বুলেটিন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে আজ শুক্রবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের এক বুলেটিনে জানানো হয়েছে, আগামী ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র-যমুনা বেসিনের প্রধান নদী যমুনার পানি সমতলে বৃদ্ধি পেয়েছে। অপরদিকে  গঙ্গা-পদ্মা বেসিনের অন্যতম প্রধান নদী পদ্মার পানি সমতলে বাড়ছে।

দেশের প্রধান দুই নদীর পানি বৃদ্ধির এই প্রবণতা আগামী ২৪ ঘণ্টায় অব্যাহত থাকতে পারে। তবে, ব্রহ্মপুত্র নদের পানি গত ২৪ ঘণ্টায় স্থিতিশীল রয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্রের পানি স্থিতিশীল থাকার সম্ভাবনার কথাও বুলেটিনে উল্লেখ করা হয়েছে।

মেঘনা অববাহিকায় প্রবাহিত নদ-নদীর পানি হ্রাস পেতে শুরু করেছে এবং পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় পানি কমার প্রবণতা অব্যাহত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্যমতে, উজানে বৃষ্টিপাতের কারণে, অসময়ে সৃষ্ট বন্যায় যে ১৫টি জেলার নিম্নিাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে- কুড়িগ্রাম, নিলফামারী, লালমনিরহাট, গাইবান্ধা, জামালপুর, বগুড়া, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, রাজবাড়ী, ফরিদপুর শরীয়তপুর ও গাজীপুর।

এসব জেলার প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন, বন্যাকবলিত এলাকার দুর্গত মানুষের মাঝে স্ব-স্ব জেলা-প্রশাসনের পক্ষ থেকে সরকারি বরাদ্দ অনুসারে শুকনো খাবারসহ অন্যান্য খাবারের সমন্বিত প্যাকেট বিতরণের কার্যক্রম চলছে।

এছাড়াও, শুক্রবার সকাল ৯টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র-যমুনা এবং গঙ্গা-পদ্মা বেসিনের প্রধান নদ-নদীগুলোর ২২টি পানি-পর্যবেক্ষণ পয়েন্টে বিপৎসীমার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছিল বলেও বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের বুলেটিনে উল্লেখ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ১৯টি পয়েন্টে বিপৎসীমার উপর দিয়ে পানি প্রবাহের কথা জানানো হয়েছিল।

এদিকে, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নিয়মিত পর্যবেক্ষাণাধীন ১০৯টি পানি-পর্যবেক্ষণ স্টেশনের মধ্যে (বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে আজ শুক্রবার সকাল ৯টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায়) পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, ৫৪টি পয়েন্টে পানি বেড়েছে। অপরদিকে, পানি কমেছেও ৫৪টিতে এবং একটির পানি অপরিবর্তিত ছিল।

প্রধান সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ | প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh