রংপুরে ধর্ষণের মামলায় পুলিশ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার

রংপুর প্রতিনিধি

প্রকাশ: ১৮ মার্চ ২০২২, ০৭:৩২ পিএম | আপডেট: ১৯ মার্চ ২০২২, ০৪:৪৮ পিএম

এসআই স্বপন কুমার

এসআই স্বপন কুমার

ধর্ষণের মামলায় রংপুরের পীরগাছা থানার এসআই স্বপন কুমারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ শুক্রবার (১৮ মার্চ) বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে জেলা পুলিশ লাইন্স থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে, বিকাল ৪টার দিকে ভুক্তভোগীর ভাই পীরগাছা থানায় মামলাটি করেন।

ধর্ষণ মামলায় এসআই স্বপন কুমারকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পীরগাছা থানার ওসি সরেস চন্দ্র।

এর আগে, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে তাকে পীরগাছা থানা থেকে প্রত্যাহার করে জেলা পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করা হয়। এরপর থেকে তাকে কঠোর নজরদারিতে রাখা হয়েছিল। মামলা হওয়ার পরপরই তাকে সেখান থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানিয়েছেন, প্রায় ছয় মাস আগে এসআই হিসেবে পীরগাছা থানায় যোগদান করে স্বপন কুমার। পীরগাছা বাজারে জনৈক রিপন স্বর্ণকারের বাড়িতে ভাড়ায় বসবাস করতো। গত ১৬ মার্চ সন্ধ্যার দিকে উপজেলার সুখানপুকুর গ্রামের এক রিকশাচালককে (৫২) বাড়িতে কাজের কথা বলে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে নেশা জাতীয় ট্যাবলেট খাইয়ে দেয়। এরপর রিকশাচালক অচেতন হয়ে পড়লে তাকে ধর্ষণ করে। এতে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে প্রথমে পীরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন চিকিৎসক।

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক আশফাক হোসেন জানিয়েছেন, বর্তমানে ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন এই ভুক্তভোগী।

অন্যদিকে, একই উপজেলার আরেকজনকে একই কায়দায় বাসায় ডেকে নেয় এসআই স্বপন কুমার। এর মধ্যে আগের ধর্ষণের ঘটনাটি জানাজানি হলে পীরগাছা বাজারের ব্যবসায়ীরা এসআই স্বপনের ভাড়া বাসা ঘেরাও করে বিক্ষোভ করে। খবর পেয়ে পীরগাছা থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে স্বপনকে উদ্ধার করতে তার বাসায় গেলে সেখান থেকে আরেক ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করে। এসআই স্বপনকে বাসা থেকে পীরগাছা থানায় নিয়ে গেলে সে ধর্ষণের কথা স্বীকার করে। মধ্যরাতেই তাকে পীরগাছা থানা থেকে প্রত্যাহার করে রংপুর পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করে।

এলাকাবাসী, পুলিশ ও ভুক্তভোগী রিকশাচালক জানান, এসআই স্বপন একজন বিকৃত রুচির যুবক। সে পীরগাছা থানায় যোগদানের পর থেকে বেশ কয়েকজনকে বাসায় ডেকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে ধর্ষণ করেছে। চক্ষুলজ্জার কারণে কেউ মুখ খোলেনি। তবে একজন গুরুতর অসুস্থ হওয়ায় এবং হাসপাতালে ভর্তি করায় বিষয়টি জানাজানি হয়।

ভুক্তভোগীর বড় ভাই ও মামলার বাদী জানান, ১৬ মার্চ এসআই স্বপন কৌশলে তার ভাইকে বাসায় নিয়ে গিয়ে বিস্কুট, মিষ্টি ও চা খাওয়ায়। এর সাথে চেতনা নাশক ওষুধ মিশিয়ে খাইয়ে দিলে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তাকে ধর্ষণ করে। পুরো ঘটনা বর্ণনা করে শুক্রবার বিকালে পীরগাছা থানায় এসআই স্বপনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, স্বপন তিন বছর আগে পুলিশে যোগ দেয়। তার বিরুদ্ধে প্রাথমিকভাবে বেশ কয়েকজনকে ধর্ষণের সত্যতা মিলেছে।

পীরগাছা থানার ওসি সরেস চন্দ্র বলেন, এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর ভাই বাদী হয়ে মামলা দায়ের করার পরপরই স্বপনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এরপর আদালতে পাঠানো হলে বিচারক কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

প্রধান সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ | প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh