আজ পবিত্র হজ

ঐতিহাসিক আরাফার ময়দানে হাজীরা

প্রকাশ: ০৮ জুলাই ২০২২, ০৮:২৩ এএম | আপডেট: ০৮ জুলাই ২০২২, ০৮:৫৫ এএম

পবিত্র কাবা শরীফ। ছবি: এএফপি

পবিত্র কাবা শরীফ। ছবি: এএফপি

আজ শুক্রবার (৮ জুলাই)। ঐতিহাসিক আরাফার ময়দান মুখরিত হবে লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক ধ্বনিতে। সেলাইবিহীন শুভ্র কাপড়ে হাজীরা এখানে দিনভর ইবাদত-বন্দেগিতে মশগুল থাকবেন। এখানেই দেওয়া হবে হজের মূল খুতবা। 

মূলত সৌদি আরবের স্থানীয় সময় ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করাকেই হজের দিন বলা হয়। এ দিনের নাম ইয়াওমুল আরাফা। এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার (৭ জুলাই) মিনা প্রান্তরে সারা দিন ইবাদত-বন্দেগি করেছেন হাজীরা। আজ সূর্যোদয়ের আগেই আরাফার ময়দানে সবার পৌঁছার কথা।

সাড়ে চৌদ্দশ’ বছর আগে এই আরাফাতের ময়দানে দাঁড়িয়েই সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হজরত মোহাম্মদ (সা.) বিদায় হজের ঐতিহাসিক ভাষণ দিয়েছিলেন। লাখো মানুষের উদ্দেশে প্রদত্ত এই ভাষণের পর আল্লাহর পক্ষ থেকে ঘোষণা এসেছিল দ্বীনের পরিপূর্ণতা লাভের। 

আজও সেই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে ভাষণ দেওয়া হয়। ভাষণে গোটা বিশ্বের সার্বিক পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়। এদিন হাজীরা এক আবেগঘন পরিবেশে মহান আল্লাহর জন্য নিজের জীবন উৎসর্গ করে কান্নাকাটি করতে থাকেন। কৃত পাপের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেন; নিজের পরিবার-পরিজন, সমাজ ও রাষ্ট্রের সুখ-শান্তির জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করেন।

আজ শুক্রবার দুপুরে মসজিদে নামিরা থেকে হজের খুতবা (ভাষণ) দেওয়া হবে। এবার হজের খুতবা দেবেন শায়খ ড. মোহাম্মদ বিন আবদুল করিম আল ঈসা। শায়খ আল ঈসা একজন সৌদি রাজনীতিক এবং দেশটির সাবেক বিচারমন্ত্রী। 

বর্তমানে তিনি ‘রাবেতাতুল আলামিল ইসলামির’ (দ্য মুসলিম ওয়ার্ল্ড লিগ) সেক্রেটারি জেনারেল ও ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক হেলাল অর্গানাইজেশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন। হজের আরবি খুতবা বাংলাসহ মোট ১৪টি ভাষায় শোনা যাবে। এ বছর হজের খুতবার বাংলা অনুবাদক হিসেবে মনোনীত হয়েছেন মোহাম্মদ শোয়াইব রশীদ ও তার সহকারী খলিলুর রহমান।

হাজীরা দিনভর আরাফায় অবস্থান শেষে সন্ধ্যায় মুজদালিফায় যাবেন। সেখানে মাগরিব ও এশার নামাজ একত্রে আদায় করবেন। মুজদালিফায় খোলা আকাশের নিচে সারারাত অবস্থানের পর শয়তানের স্তম্ভে পাথর নিক্ষেপের জন্য প্রস্তুতি নেবেন। 

আগামীকাল শনিবার (৯ জুলাই) ফজরের নামাজ শেষে বড় জামারায় (প্রতীকী বড় শয়তান) পাথর নিক্ষেপ করতে ফের মিনায় যাবেন তারা। পাথর নিক্ষেপ শেষে পশু কোরবানি করে মাথা মুণ্ডন করবেন।

করোনা মহামারির কারণে গত দুই বছর হজে সৌদি আরবের বাইরে কেউ অংশ নিতে পারেননি। করোনা পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে থাকায় এবার সীমিত আকারে হজ পালনের সুযোগ দিচ্ছে সৌদি আরব। এ বছর বিভিন্ন দেশ থেকে ১০ লাখ মুসলিম হজ পালনের সুযোগ পাচ্ছেন। বাংলাদেশ থেকে প্রায় ৬০ হাজার হজযাত্রী হজ পালনের সৌভাগ্য পেয়েছেন। 

এবার করোনার বিধিনিষেধের কড়াকড়ি না থাকায় অনেকেই মাস্কবিহীন অবস্থায় হজ কার্যক্রমে যোগ দিয়েছেন। তবে সবার করোনা সম্পূর্ণ টিকা নিশ্চিত করা হয়েছে।

প্রধান সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ | প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh