দুই গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মামলা

রাজশাহী প্রতিনিধি

প্রকাশ: ২৩ জুলাই ২০২২, ০১:৩৪ পিএম

 পুঠিয়া থানা। ছবি: রাজশাহী প্রতিনিধি

পুঠিয়া থানা। ছবি: রাজশাহী প্রতিনিধি

রাজশাহীর পুঠিয়া থানায় ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। এর আগে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেছিলেন, মামলা নথিভুক্ত করতে পুলিশ গড়িমসি করছিল ও আপোস করতে চাপ দিচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ১৭ মে বিকেলে উপজেলার একটি ইউনিয়নের এক গৃহবধূ (২৫) ছাগল চরাতে বাড়ির পাশে বিলে যান। এ সময় আগে থেকে ওঁত পেতে থাকা একই গ্রামের লুতু শেখের ছেলে জহুরলাল (৩৫) ওই গৃহবধূকে একটি পাটখেতে নিয়ে যান।

সেখানে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। পরে স্থানীয় লোকজন ভুক্তভোগীকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় পরদিন ভুক্তভোগীর স্বামী বাদী হয়ে অভিযুক্ত জহুরলালের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ দেন।

ভুক্তভোগীর স্বামী বলেন, আমরা গরিব মানুষ আর অভিযুক্ত প্রভাবশালী। এ কারণে পুলিশ তাকে আটক করছে না। বরং এ ঘটনার পর থেকে কিছু টাকা নিয়ে বিষয়টি আপস করতে অভিযুক্তসহ থানার পুলিশ চাপ দিচ্ছে।

অন্যদিকে গত ৭ জুলাই একই ইউনিয়নে ধর্ষণ চেষ্টার শিকার হন আরেক গৃহবধূ (২২)। কাঁচা ঘর লেপ দিতে মাটি আনার জন্য বাড়ির পাশে একটি বাঁশঝাড়ে যান তিনি। সেখানে ওই গ্রামের ফরমান আলী নামের (৪৫) এক ব্যক্তি তাকে দেশীয় অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করেন।

এ ঘটনায় ওই ভুক্তভোগী পরদিন ৮ জুলাই ফরমান আলীকে অভিযুক্ত করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেন। সম্প্রতি থানার পুলিশ বিষয়টি মীমাংসা করে দিতে মোল্লাপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির একজন ইনচার্জকে দায়িত্ব দেয়। তবে ভুক্তভোগী বিষয়টি আপস করতে নারাজ।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূ বলেন, ১০ হাজার টাকা নিয়ে এ ঘটনা ভুলে যেতে বলে পুলিশ। তবে আমি এর সঠিক বিচার দাবি করছি। গত কিছুদিন থেকে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাসহ সমাজপতিদের কাছেও অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।

তবে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, দুটি ঘটনা আমার জানা আছে। এর মধ্যে গত ৭ জুলাই যেটা অভিযোগ দিয়েছে, সেটি ধর্ষণ হয়েছে বলে মনে হয়নি। পারিবারিক ঝামেলার কারণে এই অভিযোগ হতে পারে। তবে ওই বিষয়ে মীমাংসা করতে মোল্লাপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির একজন ইনচার্জকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, গত ১৭ মের ঘটনাটিও পারিবারিক ঝামেলার কারণে থানায় অভিযোগ দিয়েছে। আমরা মামলা নিতে প্রস্তুত। কিন্তু তারা দুই পক্ষ নিয়ে বসে একটা সমাধান চাইছে।

প্রধান সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ | প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh