ইবিতে সাপের উপদ্রব, আতঙ্কে শিক্ষার্থীরা

ইবি প্রতিনিধি

প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০১:১৫ পিএম

ইবিতে বেড়েছে বিষধর সাপের উপদ্রব। ছবি: ইবি প্রতিনিধি

ইবিতে বেড়েছে বিষধর সাপের উপদ্রব। ছবি: ইবি প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) বিষধর সাপের উপদ্রব বেড়েছে। আবাসিক হল, রাস্তাসহ বিভিন্ন স্থানে এসব সাপের উপদ্রবের কারণে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিয়াউর রহমান হল, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল, লালন শাহ হল ও ক্যাম্পাসের বিভিন্ন রাস্তায় বিষাক্ত সাপ দেখেছে শিক্ষার্থীরা। ক্যাম্পাসে ঝোপঝাড় বেড়ে যাওয়ায় সাপের উপদ্রব বেড়েছে দাবি শিক্ষার্থীদের। 

একাধিক শিক্ষার্থী অভিযোগ করে বলেন, ক্যাম্পাস ঝোপঝাড়ে ভরে গেছে। সাপের ব্যাপক উপদ্রব দেখা দেয়ায় আবাসিক হলে বিশেষ করে নিচ তলায় থাকা অনিরাপদ হয়ে উঠেছে। এছাড়া রাস্তাঘাটেও চলাচল করা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এজন্য সবাইকে আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাতে হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এবিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে যেকোনো সময় সাপের কামড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। তাই সাপ নিধনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানান তারা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক এলাকাসহ ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থান ঝোপঝাড়ে পূর্ণ হয়ে আছে। এমনকি আবাসিক হলের চারপাশ ঝোপঝাড়ে পরিপূর্ণ। ফলে গরমের কারণে সন্ধ্যার পর এসব বিষধর সাপ ঝোপঝাড় থেকে বেরিয়ে আসছে প্রতিনিয়ত। সাপের উপদ্রব রোধে কোনো ব্যবস্থা না থাকায় আবাসিক হল, রাস্তাঘাটসহ এসব সাপ বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়াচ্ছে। ফলে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে।

লালন শাহ হলের আবাসিক শিক্ষার্থী  ইমতিয়াজ ইমন বলেন, এ হলে মাঝে মধ্যেই সাপের দেখা মিলে। নিয়মিত হলের চারপাশে এসিড দেওয়া হলে আমরা একটু নিরাপদ বোধ করি। কিন্তু তা নিয়মিত করা হয়না। এমনকি নিয়মিত ঝোপঝাড় পরিষ্কার করা হয় না।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের আবাসিক শিক্ষার্থী হামজা নূর বলেন, গত বৃহস্পতিবার তৃতীয় তলায় আমার রুমের সামনে পাঁচ হাত লম্বা একটি সাপ দেখতে পাই। এসময় আমি আতঙ্কিত হয়ে পড়ি। একা হওয়ায় সাপটি মারতে পারিনি। পরে সাপটি নিচে চলে গেছে। হলের চারপাশে ঝোপঝাড়ে ভরে গেছে। এগুলো নিয়মিত পরিষ্কার না করার কারণে সাপের উপদ্রব বেড়েছে।

এবিষয়ে এস্টেট অফিসের প্রধান মো. সামছুল ইসলাম জোহা বলেন, নিয়মিত ঝোপঝাড় পরিষ্কারের কাজ চলমান। বাকী জায়গাগুলো দ্রুতই পরিষ্কার করানো হবে।

এবিষয়ে প্রভোস্ট কাউন্সিলের সভাপতি অধ্যাপক ড. দেবাশীষ শর্মা বলেন, কার্বলিক এসিড দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট হল প্রভোস্টদের অবহিত করা আছে। আজ ফের অবহিত করা হবে, যাতে হলগুলোর চারপাশ পরিষ্কার করার পাশাপাশি এসিড দেওয়া হয়।

সম্পাদক ও প্রকাশক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh