‘দূতাবাসের কর্মকর্তাদের অন্তত সপ্তাহে একদিন নারী শ্রমিকদের খোঁজ নিতে হবে’

সিনিয়র রিপোর্টার

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০২৩, ১১:১২ পিএম

 ‘নারী অভিবাসী সুরক্ষায় গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত। ছবি: সাম্প্রতিক দেশকাল

‘নারী অভিবাসী সুরক্ষায় গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত। ছবি: সাম্প্রতিক দেশকাল

প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে বিপুল সংখ্যক নারী শ্রমিক জীবিকার প্রয়োজনে বিভিন্ন দেশে যান। তবে প্রায়ই ভাগ্যের চাকা ঘোরাতে যাওয়া এসব শ্রমিকের নানাভাবে হয়রানির মুখে পড়তে হয়। এসব ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর দূতাবাসগুলোর কর্মকর্তাদের যথাযথ ভূমিকা দেখা যায় না। তবে প্রতি সপ্তাহে অন্তত একদিন দূতাবাসের কর্মকর্তারা নারী শ্রমিকদের খোঁজ নিলে তাদের হয়রানি কমবে।

আজ মঙ্গলবার (১০অক্টোবর) জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট আয়োজিত ‘নারী অভিবাসী সুরক্ষায় গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে একথা বলেন জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক নূরুন নাহার হেনা।

তিনি বলেন, অভিবাসী নারীরা তাদের বৈদেশিক আয়ের পুরোটাই দেশে পাঠিয়ে দেন। এবিষয়ে নিয়মিত রেকর্ড রাখা প্রয়োজন। বিদেশে আমাদের প্রবাসী নারীরা নানা ধরনের নির্যাতনের শিকার হন তাদের সে চিত্র উঠে আসে না। তাই এ অভিবাসী নারীদের প্রকৃত চিত্র তুলে ধরতে গণমাধ্যমকর্মীদের ভূমিকা অপরিসীম।

গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) নূরুন নাহার হেনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ নারী শ্রমিক কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক সুমাইয়া ইসলাম, জাতীয় প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক আশরাফ আলী।

প্রধান আলোচক সুমাইয়া ইসলাম বলেন, অভিবাসী নারী শ্রমিকদের মর্যাদা নিশ্চিত ও কর্মক্ষেত্রে ঝুঁকি হ্রাস করতে সরকারকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে। পাশাপাশি বিদেশী দূতাবাস, রিক্রুটিং এজেন্সিকে নারী অভিবাসী শ্রমিকদের ব্যাপারে অধিকতর মানবিক হতে হবে।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক আশরাফ আলী বলেন, অভিবাসী নারীদের সুরক্ষিত করতে অভিবাসন প্রক্রিয়ার সঙ্গে সম্পৃক্ত সকল পক্ষকে সচেতন করতে গণমাধ্যমকর্মীরা শক্তিশালী ভূমিকা পালন করতে পারে।

জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের পরিচালক (প্রশিক্ষণ প্রকৌশল) মো. নজরুল ইসলাম অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন। অন্যান্যদের মধ্যে জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ফায়জুল হক, পরিচালক এ. কে. এম আজিজুল হক, পরিচালক ড. মো. মারুফ নাওয়াজ সেমিনারে আলোচনা করেন।

এছাড়া মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন সিনিয়র সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম, সিনিয়র সাংবাদিক সেলিনা শিউলি, তাহসিনা জেসি, মইনুল হোসেন পিনু, সেবিকা দেবনাথ, ফারুক আলম, আবু সালেহ রনি প্রমুখ।

সেমিনারে পরিচালক হিসেবে ইনস্টিটিউটের উপপরিচালক মো. আবুজার গাফ্ফারী এবং সমন্বয়ক হিসেবে সহকারী পরিচালক তানজিম তামান্না দায়িত্ব পালন করেন।

সম্পাদক ও প্রকাশক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh