শেরপুরে কিশোর গ্যাংয়ের হামলায় কৃষি কর্মকর্তা আহত

শেরপুর প্রতিনিধি

প্রকাশ: ১৭ জানুয়ারি ২০২৪, ১০:১০ এএম

হামলায় আহত কৃষি কর্মকর্তা। ছবি: শেরপুর প্রতিনিধি

হামলায় আহত কৃষি কর্মকর্তা। ছবি: শেরপুর প্রতিনিধি

শেরপুরে চাঁদা না দেওয়ায় কিশোর গ্যাংয়ের হামলায় আব্দুল হামিদ নামে এক কৃষি কর্মকর্তা গুরুতর আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় শেরপুর সদর থানায় মামলা হলেও ঘটনার তিনদিন পরেও কোন আসামি গ্রেপ্তার হয়নি।‌ বর্তমানে ওই কৃষি কর্মকর্তা শেরপুর জেলা হাসপাতালে গুরুতর অবস্থায় ভর্তি রয়েছেন। এদিকে এ ঘটনায় কোন আসামি গ্রেপ্তার না হওয়ায় আতঙ্ক ও ক্ষোভ বিরাজ করছে পরিবারের অন্যান্য সদস্যের মাঝে।

মামলার বিবরণী এবং আহত কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল হামিদ জানান, বেশ কয়েক বছর আগে বর্তমান জামালপুর জেলার কৃষি বিভাগের বীজ প্রত্যয়ন কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. আব্দুল হামিদ শেরপুর পৌরসভার পুরাতন গরুহাটি শিববাড়ি মহল্লায় দশ শতক জমি কিনে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। সম্প্রতি তিনি ওই জমির উপর বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করেছেন। এতে স্থানীয় কিছু মাদকসেবী সন্ত্রাসী কিশোর গ্যাং সদস্য আব্দুল হামিদের কাছে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। টাকা না দিলে বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেওয়ার হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছিলেন।

এরই জের ধরে গত ১৩ জানুয়ারি শনিবার রাত ৮ টার দিকে ওই কৃষিবিদ আব্দুল হামিদের নির্মাণাধীন ভবনের কাঠ ও বাঁশ এনে ওই কিশোর গ্যাং সদস্যদের মধ্যে তিলক, শ্রাবণ, শিশির, সিয়াম, তানভীরসহ ১০/১২ জন কিশোর ও যুবক আগুন জ্বালিয়ে আগুন পোহাতে ছিলেন। এসময় আব্দুল হামিদ মসজিদ থেকে নামাজ পড়ে বাড়িতে যাওয়ার পথে তাদের কাছে জিজ্ঞেস করে কেন তার কাঠ ও বাঁশ পোড়ানো হচ্ছে। এ কথা জিজ্ঞেস করা পরই কিশোর  গ্যাং  সদস্যরা রড ও লাঠি দিয়ে আব্দুল হামিদের উপর হামলা চালায়।

এসময় তিনি প্রাণে বাঁচতে বাড়ির ভিতরে ঢুকে ভিতর থেকে গেইট লাগিয়ে দেয়। এরপরও কিশোর গ্যাং সদস্যরা দেওয়াল টপকে বাড়ির ভিতরে প্রবেশ করে বাড়ি ঘরে ভাঙচুর চালায় এবং ঘরে প্রবেশ করে নগদ ৫ লাখ টাকা এবং ১০ লাখ টাকা স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায়। এই ঘটনায় আব্দুল হামিদের স্ত্রী লিপি বেগম ডাক চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন ছুটে আসে এবং এলাকাবাসীরা এগিয়ে এসে আব্দুল হামিদকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ঘটনার পরের দিন ১৪ জানুয়ারি রবিবার আব্দুল হামিদ বাদী হয়ে শেরপুর সদর থানায় ৯ জনকে আসামি করে একটি অভিযোগ দাখিল করলেও ঘটনার তিনদিন পরেও কোন আসামি গ্রেপ্তার না হওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেন বাদী কৃষিবিদ আব্দুল হামিদ।

এছাড়া এ কিশোর গ্যাং এর অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসীও এ ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তারসহ শাস্তি দাবি করেছে।

এ বিষয়ে মঙ্গলবার রাতে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ জানায়, কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল হামিদের উপর কিশোরদের হামলার ঘটনায় মামলা রুজু করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে। দ্রুত আসামিদের গ্রেপ্তার করা হবে।

সম্পাদক ও প্রকাশক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh