ফের নওয়াজ হতে পারেন পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী: বিদেশি মিডিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশ: ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৪:৪৬ পিএম

পিএমএল-এন প্রধান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ । ছবি: সংগৃহীত

পিএমএল-এন প্রধান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ । ছবি: সংগৃহীত

আজ পাকিস্তানে চলছে জাতীয় পরিষদ নির্বাচন। নানা রাজনৈতিক টালমাটাল আর সহিংসতার কবলে থাকা দেশটিতে এবারের নির্বাচনে সরাসরি মাঠে নেই সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও পিটিআই প্রধান ইমরান খান। আর এমন পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো দেশটির ভাবী প্রধানমন্ত্রী কে হতে যাচ্ছেন তা নিয়েও প্রকাশ করেছে নানা প্রতিবেদন। ইতোমধ্যেই বিবিসি, গার্ডিয়ান এবং এএফপি তাদের পূর্বাভাসে বলেছে, তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ ২০২৪ সালের এই নির্বাচনে চতুর্থবারের মতো নির্বাহী ক্ষমতা পেতে পারে।  এর আগে তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতাচ্যুত নওয়াজ শরীফ কয়েক বছর নির্বাসনে থাকার পর গত বছর দেশে ফিরেছেন। তবে নির্বাচিত হলে ২০১৭ সালে ক্ষমতাচ্যুত হওয়া অভিযোগগুলো থেকে মুক্ত হওয়ার সব সুযোগ পাবেন তিনি।

আর প্রধানমন্ত্রী হওয়ার কারণে, নওয়াজ শরিফকে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের অস্থির সমর্থকদের মুখোমুখি হতে হবে, যিনি বর্তমানে আদিয়ালা কারাগারে বন্দী এবং সাইফার মামলায় ১০ বছরের কারাদণ্ড, তোশাখানায় ১৪ বছর ও অন্যদিকে একটি অবৈধ বিয়ে সংক্রান্ত মামলায় সাত বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন। ওয়াশিংটন পোস্ট বলছে, পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) প্রধান যদি ৮ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে বিজয়ী না হন তাহলে সেটা হবে আসলেই অবাক হওয়ার মতো কাণ্ড।

আর ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘গত সপ্তাহে করাচিতে সমবেত হওয়া বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা হলে তারা একটি ঝুলন্ত পার্লামেন্টের পাশপাশি একটি দুর্বল জোট সরকারের ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন। আর তাদের বেশিরভাগই আশা করছেন এর নেতৃত্ব দেবেন নওয়াজ শরিফ - বা তার ভাই সাবেক প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরিফ।’ 

ব্রুকিংস ইনস্টিটিউশনের পররাষ্ট্রী নীতি বিষয়ক ফেলো মাদিহা আফজালের উদ্ধৃতি দিয়ে ব্লুমবার্গের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, যদি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নওয়াজের প্রত্যাবর্তন ঘটে, তাহলে তাকে দুটি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে। তার একটি হলো- পাকিস্তানের অর্থনৈতিক সমস্যার সঠিক ব্যবস্থাপনা করা, বিশেষ করে মুদ্রাস্ফীতির কারণে দেশটির অর্থনীতির হযবরল অবস্থার সামাল দেয়া ও অন্যটি হলো- শক্তিধর সেনাবাহিনীর সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন। 

সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রচারণায় পরিষ্কার ফ্রন্টরানার ছিলেন ইমরান খানের দীর্ঘদিনের শত্রু নওয়াজ শরীফ। ৭৪ বছর বয়সী সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ ঐতিহাসিক চতুর্থ মেয়াদে ক্ষমতায় ফিরতে মরিয়া। আর এমন হলে স্বেচ্ছা নির্বাসনের পর সেটা হবে তার রাজনীতিতে ফিরে আসার এক উল্লেখযোগ্য ঘটনা। কিন্তু শক্ত চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হবেন বর্ষীয়ান এই নওয়াজ। প্রএদিকে থমবার প্রধানমন্ত্রী পদে প্রার্থী হচ্ছেন প্রয়াত বেনজির ভুট্টোর ছেলে ৩৫ বছর বয়সী বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি। এই চ্যালেঞ্জটি আসছে তার পক্ষ থেকেই। কিংস কলেজ লন্ডনের প্রফেসর ও বৃটিশ সাবেক সিনিয়র কূটনীতিক টিম উইলাসে-উইলসে বলেন, নওয়াজ শরীফ বর্ষীয়ান। যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের মধ্যে খুব ভালভাবে ভারসাম্য বজায় রেখেছেন তিনি। আবার ভারতের সঙ্গেও সুসম্পর্ক চাইবেন। 

এপির রিপোর্টে বলা হয়েছে, গত অক্টোবরে দেশে ফেরার পর থেকেই আদালত অভিযোগ ও জেলের শাস্তি উল্টে দেয়ার পর চতুর্থ মেয়াদে ক্ষমতায় ফেরার পথ বেশ স্পষ্ট হয়েছে নওয়াজ শরীফের। তার কঠোর প্রতিদ্বন্দ্বী ও শত্রু ইমরান খান কারাগারে। এটা যেন ২০১৮ সালের নির্বাচনের ঘটনার হুবুহু প্রতিচ্ছবি। তখন মামলায় লড়াই করছিলেন নওয়াজ আর সেই ফাঁকে ইমরান খান হয়ে যান প্রধানমন্ত্রী। ফলে বিশ্লেষকরা নওয়াজ শরীফের আরেকটি বিজয়ের পূর্বাভাস দিচ্ছেন। 

যুক্তরাষ্ট্রের আরেক থিংকট্যাংক কাউন্সিল অব ফরেন রিলেশন্স বলেছে, নওয়াজ শরীফের পথ পরিষ্কার। পাকিস্তানের রাজনীতিতে টিকে থাকা রাজনীতিক। সেনাবাহিনী তাকে সমর্থন দেয়ায় তিনিই হতে পারে প্রধানমন্ত্রী। এমনকি তার দল পার্লামেন্টের নিয়ন্ত্রণ পেতে পারে। নওয়াজ শরীফ এমন একজন ব্যক্তি, যিনি সেনাবাহিনীপন্থি নীতি গ্রহণের পাশপাশি এ বিষয়ে শিথিলতা দেখান। 

আর স্পুটনিক লিখেছে, নির্বাচনের পর দেশটির নতুন নেতাকে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সঙ্কট এবং ক্রমবর্ধমান সন্ত্রাসী সমস্যার মতো চ্যালেঞ্জগুলো নিয়ে কাজ করতে হবে। এসব আভ্যন্তরীণ ইস্যু পাকিস্তানের পররাষ্ট্রনীতিতেও বড় প্রভাব ফেলতে পারে। বিশেষ করে তা প্রতিবেশী এবং আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক অংশীদারদের সঙ্গের সম্পর্ককে প্রভাবিত করবে। অন্যদিকে টেলিগ্রাফের রিপোর্টে প্রধান বিরোধী শক্তি ইমরান খানকে ফৌজদারি অপরাধে ঢেকে দিয়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। 

পাকিস্তানের চলমান নির্বাচন নিয়ে এভাবেই আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো নওয়াজ শরিফকে নিয়ে বিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। 

সূত্র: জিওটিভি

সম্পাদক ও প্রকাশক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh