মালদ্বীপের কোলঘেঁষে নতুন নৌঘাঁটি বানাচ্ছে ভারত

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৪ মার্চ ২০২৪, ০৯:৪২ পিএম

ভারতীয় নৌবাহিনীর সদস্য। ছবি- সংগৃহীত

ভারতীয় নৌবাহিনীর সদস্য। ছবি- সংগৃহীত

মালদ্বীপের সঙ্গে টানাপোড়েনের মধ্যেই নিরাপত্তা বাড়াতে লাক্ষাদ্বীপে নতুন নৌঘাঁটি বানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত। শনিবার এক বিবৃতিতে ভারতের নৌবাহিনী জানায়, মালদ্বীপে চীনের ক্রমবর্ধমান উপস্থিতি নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে। নতুন ঘাঁটিটি এই অঞ্চলে দিল্লির নজরদারি বাড়াতে সহায়তা করবে।

গত মাসের শুরুর দিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির লাক্ষাদ্বীপ সফরের পরই নতুন এই পদক্ষেপ নিচ্ছে দিল্লির প্রতিরক্ষামন্ত্রণালয়। আগামী ৬ মার্চ দেশটির নৌবাহিনী এ পরিকল্পনা ঘোষণা করবে।

লাক্ষাদ্বীপের মিনিকয় দ্বীপে প্রাথমিকভাবে আইএনএস ‘জটায়ু’ রণতরী মোতায়েন করা হবে। পরে এই তরীকে কেন্দ্র করে গড়ে তোলা হবে ‘আইএনএস জটায়ু’ নৌঘাঁটি। ঘাঁটিটি থেকে মালদ্বীপ সংলগ্ন সাগর এলাকায় নজর রাখা সম্ভব হবে।

বার্তা সংস্থা রয়র্টাসের প্রতিবেদনে জানা যায়, লাক্ষাদ্বীপের সবচেয়ে দক্ষিণের দ্বীপ মিনিকয়। মালাক্কা প্রণালী এবং এডেন উপসাগর ও হরমুজ প্রণালীর মধ্য দিয়ে চলে যাওয়া বাণিজ্যপথের দুই পাশজুড়ে এই দ্বীপের অবস্থান। সেখানে নৌঘাঁটি হলে ভারতের নৌবাহিনীর আভিযানিক ক্ষমতা আরও বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে।

গত বছর মালদ্বীপের চীনপন্থী প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুইজ্জু দেশ থেকে ভারতীয় সেনাদের প্রত্যাহারের প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালান। নির্বাচনে ভারত-বিরোধী অবস্থানের কারণে জনসাধারণের বিপুল সমর্থন পেয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন তিনি। মুইজ্জু প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর ভারত ও মালদ্বীপের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের অবনতি ঘটে।

নির্বাচিত হওয়ার পরপরই দিল্লিকে মালদ্বীপে অবস্থানরত ৮৯ ভারতীয় সেনা ও নিরাপত্তা কর্মীকে প্রত্যাহার করে নেওয়ার আহ্বান জানান মুইজ্জু। পরে এই বিষয়ে দুই দেশের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দলের বৈঠকও হয়। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আগামী ১০ মার্চের মধ্যে ভারতীয় সেনাদের প্রথম ব্যাচটি মালদ্বীপ ছাড়বে। এছাড়া বাকি সেনা সদস্যদের আগামী দুই মাসের মধ্যে মালদ্বীপ ছাড়ার কথা রয়েছে।

সম্পাদক ও প্রকাশক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh