ইছামতী নদী থেকে ৫ কেজি স্বর্ণসহ মরদেহ উদ্ধার

বেনাপোল প্রতিনিধি

প্রকাশ: ১৩ মার্চ ২০২৪, ০৭:০৬ পিএম

মরদেহ থেকে উদ্ধারকৃত স্বর্ণের বার। ছবি: বেনাপোল প্রতিনিধি

মরদেহ থেকে উদ্ধারকৃত স্বর্ণের বার। ছবি: বেনাপোল প্রতিনিধি

যশোরের শার্শার সীমান্তের ইছামতী নদী থেকে নিখোঁজের তিনদিন পর (৫ কেজি ২৭০ গ্রাম ওজন) ৪০টি স্বর্ণের বারসহ মশিয়ার রহমান (৫২) নামে এক পাচারকারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে বিজিবি সদস্যরা।

আজ বুধবার (১৩ মার্চ) সকাল ১০ টার দিকে সীমান্তের অগ্রভুলোট এলাকার হরিশচন্দ্রপুর গ্রামের সীমান্ত ঘেষা ইছামতী নদী থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত মশিয়ার সীমান্তের হরিশচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত গোলাম রহমানের ছেলে।

পরিবার ও স্থানীয়রা জানায়, গত রবিবার সন্ধ্যার দিকে স্থানীয় কিছু লোক মশিয়ারকে বাড়ি থেকে ফোনে ডেকে নিয়ে যায়। রাত বাড়ার পর তিনি বাড়িতে না ফেরায় পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি করে কোথাও না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েন। পরে জানতে পারে স্বর্ণ ব্যবসায়ী আব্দুর রহিম বক্সের ছেলে হাবিব ও জেহের আলীর ছেলে জামাল হোসেন তাকে স্বর্ণের একটি চালান দিয়ে ভারতে পাঠিয়েছেন। পথিমধ্যে ইছামতী নদী পার হওয়ার সময় নদীতে পড়ে যান মশিয়ার। সেই থেকে নিখোঁজ ছিলেন মশিয়ার। তিনদিন খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে আজ সকালে ১৭/৭ এস আর ৬০ পিলারের ৫০ গজ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ইছামতী নদীতে মরদেহটি ভেসে ওঠে। এসময় বিজিবি সদস্যরা মরদেহটি উদ্ধার করে। তার মরদেহে কস্টটেপ দিয়ে মোড়ানো অবস্থায় চারটি প্যাকেটে ৪০ স্বর্ণের বার পাওয়া যায়। 

খুলনা-২১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল খুরশিদ আনোয়ার জানান, জব্দ স্বর্ণ যশোর ট্রেজারি শাখায় জমা দেওয়া হবে। পাচারকারীর মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য শার্শা থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

সম্পাদক ও প্রকাশক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh