নাফ নদীতে ১৯ যাত্রী নিয়ে ডুবে গেল স্পিড বোট

কক্সবাজার প্রতিনিধি

প্রকাশ: ০৬ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১০ পিএম

স্পিড বোট থেকে উদ্ধার হওয়া এক যাত্রী। ছবি: কক্সবাজার প্রতিনিধি

স্পিড বোট থেকে উদ্ধার হওয়া এক যাত্রী। ছবি: কক্সবাজার প্রতিনিধি

কক্সবাজারের টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটের নাইক্ষ্যংদিয়া পয়েন্টে ঢেউয়ের কবলে পড়ে সেন্টমার্টিনের কামালের মালিকানাধীন একটি স্পিড বোট ডুবে যায়। এ ঘটনায় স্থানীয় জেলেরা ৩ শিশুসহ ১৯ যাত্রীকে উদ্ধার করেছে মুমূর্ষু অবস্থায়। এদের মধ্যে ৭ জন টেকনাফের রাজমিস্ত্রী ও ১২ জন স্থানীয় বাসিন্দা। দুইজন স্পিড বোটের চালক ও সহকারী।

গতকাল শুক্রবার (৫ এপ্রিল) দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটের নাফ নদীর নাইক্ষ্যংদিয়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।

টেকনাফ উপজেলার সেন্টমার্টিন ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে যাত্রীবাহী আরেক একটি স্পিড বোট ও স্থানীয় জেলেরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে সাগরে ভাসতে থাকা লোকজনদের উদ্ধার করে। এ ঘটনায় আমার পরিষদের এক গ্রাম পুলিশও ছিল। তবে উদ্ধার হওয়াদের নাম ও পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেননি তিনি।

সেন্টমাটিন ইউনিয়ন পরিষদের ৭নং ওয়াডের গ্রাম পুলিশ নুর হক বলেন, দুপুর ১২টার দিকে ৩ শিশুসহ ১৯ জন যাত্রী নিয়ে একটি স্পিড বোট সেন্টমার্টিন থেকে শাহ পরীর দ্বীপের উদ্দেশে রওনা দেয়। স্পিড বোটটি নাফ নদীর নাইক্ষ্যংদিয়া পয়েন্টে পৌঁছালে বড় ঢেউয়ের আঘাতে উল্টে যায়। এতে স্পিড বোটে থাকা যাত্রীরা পানিতে ভাসতে থাকে। অদক্ষ ড্রাইভারের কারণে এ দুর্ঘটনা হয়েছে। আমিও সাগরে দুইটি বাচ্চা নিয়ে ১ ঘণ্টা ভেসে ছিলাম। পরে স্থানীয় জেলেরা ও অন্য একটি যাত্রীবাহী স্পিড বোট আমাদের উদ্ধার করে।

সেন্টমাটিন সেন্টমার্টিন স্পিড বোট মালিক সমবায় সমিতির সভাপতি ও ইউপি সদস্য খোরশেদ আলম বলেন, যে স্পিড বোডটি দুর্ঘটনা কবলিত হয়েছে এটা আমাদের সমিতির নয় এবং উপজেলা প্রশাসনের অনুমতি বিহীন। সেন্টমার্টিনের জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে অনুমোদনহীন ও অদক্ষ ড্রাইভার দিয়ে কয়েকটি স্পিড বোট সেন্টমার্টিন থেকে টেকনাফ যাত্রী পরিবহন করে আসছে।

সম্পাদক ও প্রকাশক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh