চলতি বছর হজ বাতিলকারী দেশের সংখ্যা বাড়ছেই

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রকোপের কারণে চলতি বছর হজ পালিত হবে কিনা তা নিয়ে সৌদি আরব সরকারের সিদ্ধান্তহীনতার মধ্যেই হজ বাতিলকারী দেশের সংখ্যা বাড়ছে।

এ পর্যন্ত বিভিন্ন দেশের শতকরা প্রায় ২০ ভাগ হজযাত্রীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, তারা এ বছর হজ পালন করতে যাবেন না।

ইসলামের বিধান মতে, আর্থিক ও শারীরিকভাবে সক্ষম প্রত্যেক মুসলিমের জন্য জীবনে একবার হজপালন করা ফরজ।

এ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি মুসলিম ও অমুসলিম দেশ হজে লোক পাঠানো হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে। সিঙ্গাপুর সর্বপ্রথম হজ্ব বাতিলের ঘোষণা দেয়। এরপর ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারত, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, কম্বোডিয়া, সেনেগাল ও ব্রুনাই এই দলে যোগ দেয়।

এই দেশগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ মুসলিম জনসংখ্যা অধ্যুষিত ইন্দোনেশিয়া।

করোনার কারণে চলতি বছর হজ পালিত হবে কিনা তা নিয়ে এখনো সৌদি আরব কোনো সিদ্ধান্ত জানায়নি। গত মার্চ মাসে সৌদি আরবে করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর ওমরাহ পালন বন্ধ করে দিয়েছিল রিয়াদ। সেইসাথে কাবা শরীফ জিয়ারতও বন্ধ রাখা হয়। 

পরবর্তীতে স্বাস্থ্যবিধিসহ বেশকিছু শর্তের ভিত্তিতে মক্কা অঞ্চলের বাইরে মদিনার মসজিদে নববীসহ দেশের অন্য প্রদেশের মসজিদগুলো খুলে দেয়া হয় ৩১ মে থেকে। আর মসজিদুল হারাম বাদে মক্কা অঞ্চলের মসজিদগুলো জামাতের উন্মুক্ত করা হয় ২১ জুন ফজরের নামাজের ওয়াক্ত থেকে। হজ ও মসজিদুল হারামের বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত জানায়নি দেশটি।

এদিকে বাংলাদেশ, মিসর, মরক্কো, তুরস্ক, পাকিস্তান, নাইজেরিয়া, লেবানন ও বুলগেরিয়া বলেছে, তারা এখনো সৌদি আরবের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছে। 

ফ্রান্সের মুসলিম ধর্মীয় নেতারা করোনা ঝুঁকির কারণে এ বছর হজ বাতিলের অনুরোধ জানিয়েছেন।

সৌদি সূত্র মতে, প্রতি বছর অন্তত ২৫ লাখ মুসলিম হজ পালনের জন্য দেশটি সফরে যান। চলতি বছর চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ২৮ জুলাই থেকে হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হওয়ার কথা। -পার্সটুডে

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh