পশ্চিমবঙ্গে প্রথম পর্বের ভোটে ব্যাপক সংঘর্ষ

প্রথম পর্বে ভোট মাত্র ৩০টি আসনে, মোতায়েন ছিল প্রচুর নিরাপত্তা কর্মী। তারপরও বিক্ষিপ্ত ঘটনার মধ্যে দিয়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে।

প্রথম দফায় রাজ্যের পাঁচ জেলার মোট ৩০ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ। নজিরবিহীন নিরাপত্তা বলয়ে ভোট হচ্ছে ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম মেদিনীপুর, পূর্ব মেদিনীপুর, পুরুলিয়া, বাঁকুড়ার মোট ৩০টি আসনে। পাঁচ জেলায় মোট ৭৩০ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। ভাগ্য নির্ধারিত হবে মোট ১৯১ জন প্রার্থীর। ভোটযুদ্ধে শামিল বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট ও তারকা প্রার্থীও। 

আজ শনিবার (২৭ মার্চ) পশ্চিমবঙ্গে প্রথম পর্বের ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার পর থেকে সংঘর্ষ শুরু হয়। এদিন সকালেই কোশিয়ারিতে একজন বিজেপি কর্মীর মরদেহ উদ্ধার হয়। বেশ কিছু জায়গায় উত্তেজনা দেখা দেয়। পূর্ব মেদিনীপুরের দক্ষিণ কাঁথি বিধানসভা কেন্দ্রে শুভেন্দু অধিকারীর ভাই ও পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান সৌম্যেন্দু অধিকারীর গাড়ি ভাঙা হয়েছে। 

সৌম্যেন্দুর অভিযোগ, তৃণমূল রিগিং করছে খবর পেয়ে তিনি এসেছিলেন, তারপরই তার উপর হামলা করা হয়েছে। তৃণমূলের দাবি, বিজেপি ওখানে কারচুপি করেছে।

হামলা হয়েছে বামেদের নেতৃত্বাধীন সংযুক্ত মোর্চা প্রার্থী সুশান্ত ঘোষের উপরও। সেখানেও তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে। পুরুলিয়ায় তৃণমূলের এক প্রার্থীকে টিভি ক্যামেরার সামনেই বিরোধীদের হুমকি দিতে দেখা গেছে। তিনি বলেছেন, গুলি মেরে দেবো। নির্বাচন কমিশন ঘটনার অ্যাকশন টেকেন রিপোর্ট চেয়েছে।

আবার খেজুরিতে সংঘর্ষে এক তৃণমূল কর্মীর মাথা ফেটেছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির দলের অভিযোগ, বিজেপি এই কাজ করেছে। পূর্ব মেদিনীপুরের বেশ কয়েকটি জায়গায় একই অভিযোগ করেছে তৃণমূল। পূর্ব মেদিনীপুর হলো শুভেন্দু অধিকারীর শক্ত ঘাঁটি।

এদিন সবচেয়ে বেশি উত্তেজনা ছিল পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুরে। এখানে সকাল থেকেই তৃণমূল অভিয়োগ করে যে, প্রচুর বাইরের লোক ঢুকিয়েছে বিজেপি। তাদের বুথে ঢুকিয়ে দেয়া হয়েছে। তারা সমানে ছাপ্পা ভোট দিয়ে যাচ্ছে। দলের এমপি সুদীপ ব্যানার্জির নেতৃত্বে তৃণমূল নেতারা নির্বাচন কমিশনের কাছে গিয়েও নালিশ জানায়।

পটাশপুরে গতকাল শুক্রবার সারারাত ধরে বিজেপি ও তৃণমূলের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। বোমাবাজিও হয়েছে। পটাশপুর থানার ওসিসহ দুই পুলিশকর্মী আহত হয়েছেন।

আবার উল্টো অভিযোগ করেছে বিজেপি। তাদের দাবি, তৃণমূল বুথে কর্মী ঢুকিয়ে ছাপ্পা মারার  চেষ্টা করেছে। দক্ষিণ কাঁথি কেন্দ্রের একটি বুথে অভিযোগ ওঠে, ইভিএমে বোতাম টিপলেই ভোট পদ্মে গিয়ে পড়ছে। এনিয়ে বেশ খানিকক্ষণ ভোটগ্রহণ বন্ধ থাকে। প্রতিবাদ, তর্ক-বিতর্কের পর ভিভিপ্যাট মেশিন বদল করে আবার ভোটগ্রহণ শুরু হয়।

তবে সংঘর্ষ ও উত্তেজনা সত্ত্বেও প্রথম পর্বে ভাল ভোট পড়ছে। দুপুর ২টা পর্যন্ত ৫ জেলার ৩০ আসনে ভোটের হার ৫৫ শতাংশ। -ডয়চে ভেলে

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh