আফগানিস্তানে চরম বিপর্যয় এড়ানোর অঙ্গীকার জি-২০ নেতাদের

আফগানিস্তানের দরিদ্ররা চরম খাদ্য সংকটে ভুগছে। ছবি : বিবিসি

আফগানিস্তানের দরিদ্ররা চরম খাদ্য সংকটে ভুগছে। ছবি : বিবিসি

আফগানিস্তানকে চরম অর্থনৈতিক সংকট থেকে রক্ষা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বিশ্বের প্রধান ২০টি অর্থনীতির জোট জি-২০ নেতারা।

আফগান অর্থনীতি রক্ষায় শত কোটি ডলার দিতে জাতিসংঘ আহ্বান জানানোর পর বিশ্ব নেতারা গতকাল মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) একটি ভার্চুয়াল সামিটে অংশ নেন।

জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল বলেছেন, দেশটিকে চরম বিশৃঙ্খলার মধ্যে পড়তে দেয়া ঠিক হবে না।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জোর দিয়ে বলেছেন, সেখানে যেসব সাহায্য দেয়া হবে, তা দিতে হবে স্বাধীন আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর মাধ্যমে, সরাসরি তালেবানের হাতে নয়।

তবে এখন পর্যন্ত যতটুকু অর্থ সহায়তা পাওয়া গেছে, তা কয়েক মিলিয়ন ডলার হতে পারে, যা জরুরি খাদ্য ও ওষুধের জন্য দেয়া হচ্ছে।

আফগানিস্তান নিয়ে আন্তর্জাতিক পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানানো হচ্ছে এমন সময় যখন দাতব্য কর্মীরা আশঙ্কা করছেন, দেশটিতে বড় ধরনের মানবিক সংকট হতে পারে।

নতুন প্রতিশ্রুতির মধ্যে ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডের লেয়েন বলেছেন, আফগানিস্তান ও প্রতিবেশী যেসব দেশ শরণার্থীদের গ্রহণ করছে, তাদের জন্য ১০০ বিলিয়ন ডলার সহায়তা দেয়া হবে।

চ্যান্সেলার মেরকেল গত মাসের নির্বাচনে অংশ নেননি, ফলে নতুন সরকার গঠিত হওয়ার পর তাকে সরে যেতে হবে। কিন্তু তিনি আফগানিস্তানের জন্য ৬০০ মিলিয়ন ইউরো সহায়তা দেয়ার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেছেন।

তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, পুরো আফগানিস্তানের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা বা আর্থিক পদ্ধতি যদি ভেঙ্গে পড়ে, তাহলে আমাদের কারও কোনও উপকারই হবে না। তখন আর মানবিক সহায়তাও দেয়া যাবে না। আসলে সীমারেখা টানা সহজ নয়। কিন্তু চার কোটি মানুষ যদি বিদ্যুৎ না থাকা বা আর্থিক পদ্ধতি ভেঙ্গে পড়ার কারণে চরম বিশৃঙ্খলার মধ্যে পড়ে, সেটা তো আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের লক্ষ্য হতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, জাতিসংঘের সহায়তা দেয়া সব প্রতিষ্ঠানে তালেবানের অংশগ্রহণ থাকা উচিত। সেইসঙ্গে তিনি জোর দিয়ে বলেছেন, এক্ষেত্রে মেয়ে ও নারীদের অধিকারের বিষয়েও সম্মান দিতে হবে।

মেরকেলের বক্তব্যের সঙ্গে একমত জানিয়েছেন ইতালির প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘি। তিনি বলেন, তালেবানের সঙ্গে জি-২০ দেশগুলোর যোগাযোগ করতে হবে। কিন্তু তার মানেই এটা ইসলামপন্থী তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি দেয়া নয়।

ইতালি এই সামিটের আয়োজন করে। তবে এই ভার্চুয়াল সামিটে জি-২০ দেশগুলোর সব সদস্য উপস্থিত ছিলেন না। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের পক্ষে প্রতিনিধি ছিলেন। তবে দ্রাঘি বলেছেন, বৈঠকে অংশ নেয়া সব সদস্যই আরও বেশি সহায়তা দিতে সম্মত হয়েছেন।

আফগানিস্তান যাতে আল-কায়েদা বা ইসলামিক স্টেট (আইএস) গ্রুপের মতো জঙ্গিদের স্বর্গরাজ্যে পরিণত না হয়, সেটা নিশ্চিত করার ব্যাপারেও আলোচনা করেছেন বিশ্বনেতারা। সেইসঙ্গে বিদেশি নাগরিক ও দেশ ছাড়তে আগ্রহী আফগানদের বিষয়েও আলোচনা হয়েছে।

শীর্ষ নেতাদের এই বৈঠক এমন সময়ে হলো যখন দাতব্য সহায়তা, সন্ত্রাস প্রতিরোধ ও বিদেশিদের সরিয়ে আনার কাতারে আলোচনায় বসেছেন পশ্চিমা ও আফগান কর্মকর্তারা।

আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার ও তালেবানের ক্ষমতা নেয়ার পর এই প্রথম দুই পক্ষের সরাসরি আলোচনা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। -বিবিসি

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //