নওমি ওসাকার গল্প

নওমি ওসাকা

নওমি ওসাকা

লন টেনিসকে মূলত শীতপ্রধান দেশগুলোর খেলা বলেই মনে করা হয়। ইউরোপ ও আমেরিকানদেরই একচ্ছত্র দাপট লন টেনিস তথা টেনিসে। ইউরোপিয়ান-আমেরিকানদের সেই রাজত্বে এশিয়ানরাও রাজত্ব করতে পারে, ২০১১ সাল পর্যন্তও এটা বিশ্বাস করা ছিল কঠিন।

অবশেষে ২০১১ সালে সেই বিশ্বাসটা ভেঙে দেন চীনা মেয়ে লি না। এশিয়ার প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে (পুরুষ ও নারী মিলিয়ে) গ্র্যান্ডস্লাম জিতে লি না বরং টেনিস দুনিয়ায় এই বিশ্বাসের বীজটা বুনে দেন, এশিয়ানরাও পারে। বিশ্ব টেনিসে চীনের সাবেক এই তারকার মশালটা পরের চার বছরে এশিয়ার আর কেউ হাতে নিতে পারেননি। 

তবে লি নার উত্তরসূরি হিসেবে মশালটা হাতে নেওয়ার জন্য ঠিকই একজন প্রস্তুত হচ্ছিলেন। তিনি নওমি ওসাকা। শুধু প্রস্তুতি নেওয়া নয়, ২০১৮ সালে এশিয়ার দ্বিতীয় মেয়ে হিসেবে গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপাও জিতে নেন নওমি। সেরেনা উইলিয়ামসকে হারিয়ে নওমি জিতে নেন ইউএস ওপেনের শিরোপা। 


ক্যারিয়ারের প্রথম সেই গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপাটাও জেতেন ২০ বছরে পা দেওয়ার আগেই। ২০১৮ সালের আগস্টে ইউএস ওপেনের ফাইনালে সেই পাওয়ার টেনিস দিয়েই সেরেনাকে কাবু করেন উনিশের নওমি ওসাকা। আজ ২৩-এ দাঁড়িয়ে মেয়েদের এককে রাজত্ব করছেন নওমি। এই বয়সেই জিতে নিয়েছেন চারটি গ্র্যান্ড স্লাম। জাপানি মেয়ে পূর্বসূরি লি নাকে টেক্কা দিয়েছেন র‌্যাঙ্কিংয়েও। এশিয়ার প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে নওমি গড়েছেন বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে এক নম্বরে ওঠার রেকর্ডও। 

সর্বশেষ দুটি গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপাই জিতেছেন নওমি। ২০২০ সালে ইউএস ওপেন শিরোপা জেতার পর ২০২১ সালে জিতেছেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেন শিরোপাও। ব্যাক-টু-ব্যাক গ্র্যান্ড স্লাম জয়, এই কীর্তি এরই মধ্যে দু’বার গড়েছেন নওমি। ক্যারিয়ারে এ পর্যন্ত জেতা চারটি গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপার দুটি তিনি জিতেছেন ইউএস ওপেনে, দুটি অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে। ২০১৮ সালে ইউএস ওপেন জেতার পর ২০১৯ সালে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের শিরোপাও জিতে নেন তিনি। সেবারই গড়েন প্রথম এশিয়ান হিসেবে ব্যাক-টু-ব্যাক গ্র্যান্ড স্লাম জেতার রেকর্ড। মাঝে এক বছর কাটিয়ে আবারও সেই কীর্তি গড়েছেন তিনি। 

নওমির এখন লক্ষ্য ফ্রেঞ্চ ওপেন ও উইম্বলডন শিরোপা। সেই লক্ষ্যেই প্রস্তুত করছেন নিজেকে। 


বড় হয়ে নওমি যে বড় টেনিস খেলোয়াড় হবেন, সেই আভাস মিলেছিল মাত্র ৩ বছর বয়সেই। হাইতিয়ান বাবা ও জাপানি মায়ের ঘরে জন্ম দেওয়া নওমির টেনিসে হাতেখড়ি সেই ৩ বছর বয়সেই! বাবা লিওনার্দো ফ্রাঙ্কোইসের হাত ধরেই তার টেনিসের হাতেখড়ি। মেয়ের ভবিষ্যতের কথা ভেবে ছোট্টবেলাতেই নওমিকে নিয়ে পাড়ি জমান যুক্তরাষ্ট্রে। ২০০৬ সালে যখন টেনিস শেখার জন্য জাপান ছেড়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় পাড়ি জমান, নওমির বয়স তখন সবে ৮ পেরিয়ে ৯-এর ঘরে। 

চারটি গ্র্যান্ড স্লামসহ এ পর্যন্ত মোট সাতটি ডব্লিউটিএ শিরোপা জিতেছেন। যার মধ্যে আছে ইন্ডিয়ানা ওয়েলসের শিরোপাও। টেনিস খেলে প্রাইজমানি হিসেবেই এরই মধ্যে কামিয়েছেন ১ কোটি ৯৬ লাখ ৭৪ হাজার ৩২ ইউএস ডলার। এর চেয়েও বেশি কামিয়েছেন বিজ্ঞাপনী চুক্তি থেকে। বিজ্ঞাপনী চুক্তি করেছেন বিশ্বের অন্য অনেক নামিদামি কোম্পানির সঙ্গেও। 


লাজুক স্বভাবের নওমি কোর্টের বাইরের জীবনেও বেশ সুখেই আছেন। যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় এবং আলোচিত তরুণ র‌্যাপ সংগীতশিল্পী কোরদেয়ার সঙ্গে চুটিয়ে প্রেম করছেন বলেই খবর।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh