চ্যাম্পিয়ন্স লিগে দুই বছর নিষিদ্ধ ম্যানচেস্টার সিটি

উয়েফার শাস্তির কোপে পেপ গার্দিওলার দল

উয়েফার শাস্তির কোপে পেপ গার্দিওলার দল

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে মাঠে নামার আগেই বড় ধাক্কা এলো ম্যানচেস্টার সিটি শিবিরে। আর্থিক অনিয়মের দায়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের আগামী দুই মৌসুম থেকে ম্যানচেস্টার সিটিকে নিষিদ্ধ করেছে উয়েফা।

ক্লাব লাইসেন্সিং ও ফাইনান্সিয়াল ফেয়ার প্লে (এফএফপি) বা আর্থিক স্বচ্ছতার নিয়ম লঙ্ঘন করার কারণে সিটিকে ইউরোপের ক্লাব প্রতিযোগিতা থেকে ২০২০-২১ ও ২০২১-২২, এই দুই মরসুমের জন্য নির্বাসিত করে উয়েফা। 

শুক্রবার এক বিবৃতিতে এই নির্দেশ দিয়েছে ইউরোপের ফুটবলের নিয়ামক সংস্থা। যার অর্থ আগামী দুই মরসুম চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলতে দেখা যাবে না সের্খিয়ো আগুয়েরো, রাহিম স্টার্লিংদের ক্লাব ম্যান সিটিকে। এছাড়াও শাস্তি হিসেবে উয়েফা ম্যান সিটিকে জরিমান করেছে ৩০ মিলিয়ন ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২৭৬ কোটি টাকা)। 

আর ১১ দিন পরেই ২৬ ফেব্রুয়ারি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বৈরথে সান্তিয়াগো বের্নাবাউ স্টেডিয়ামে রিয়াল মাদ্রিদের বিরুদ্ধে প্রথম পর্বের ম্যাচ খেলতে নামবে পেপ গার্দিওলার প্রশিক্ষণাধীন দল। তার আগে এই শাস্তির ধাক্কায় হতাশ ম্যান সিটির ফুটবলার ও সমর্থকেরা। 

তবে উয়েফার এই রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে লোজানের ক্রীড়া-আদালতে (কোর্ট অব আরবিট্রেশন ফর স্পোর্ট, ক্যাস) আবেদন করার সুযোগ থাকছে ম্যান সিটির সামনে। সেই রাস্তায় হাঁটতে পারেন গত বছরের ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন ক্লাবের কর্তারা। 

ক্লাবের তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, এই রায়ে ক্লাব হতাশ হলেও বিস্মিত নয়। উয়েফার তদন্ত চলাকালীন পূর্ণ সহযোগিতা করা হয়েছিল। প্রয়োজনে ক্রীড়া আদালতে আবেদন করা হবে।

যদিও উয়েফার তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে,  ২০১২-১৬, এই চার বছরে স্পনসরদের কাছ থেকে প্রাপ্ত অর্থের ব্যাপারে ক্লাব ঠিক তথ্য দেয়নি উয়েফাকে। তদন্তেও সহযোগিতা করেনি ম্যাঞ্চেস্টার সিটি। তাই এই শাস্তির রাস্তায় হেঁটেছে তারা।

মন্তব্য করুন

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh