সাম্প্রতিক দেশকালের সপ্তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

ছবি: সুশোভন সরকার

ছবি: সুশোভন সরকার

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকালের সপ্তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত হয়েছে। শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে রাজধানীর মোহাম্মদপুরে সাম্প্রতিক দেশকাল কার্যালয়ে কেক কাটা, আলোচনা সভা, আনন্দ-আড্ডা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ নানা আয়োজনে উদযাপিত হয়েছে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। 

শুভাকাঙ্ক্ষীদের প্রাণবন্ত উপস্থিতিতে সাম্প্রতিক দেশকাল কার্যালয় ছিল মুখর। আনন্দ আয়োজনে বিশিষ্ট ও প্রবীণ নাগরিক, অধ্যাপক, বুদ্ধিজীবী, শিক্ষাবিদ, চিকিৎসক, কলামিস্ট, যুব ও ছাত্রনেতাসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার অসংখ্য মানুষের ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হয় সাম্প্রতিক দেশকাল পরিবার। কবি, শিল্পী, সাহিত্যিক, ক্রীড়াবিদ, চলচ্চিত্র ও নাট্য ব্যক্তিত্বের পদচারণায়ও মুখর ছিল উৎসবস্থল। 

অনুষ্ঠানে আলোচনাসভা শেষে কেক কাটা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ, রেডিয়েন্ট ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের চেয়ারম্যান নাসের শাহরিয়ার জাহেদী, শিক্ষাবিদ সলিমুল্লাহ খান, বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, বিদ্যুৎ বিশেষজ্ঞ ও পাওয়ার সেলের সাবেক মহাপরিচালক বিডি রহমাতুল্লাহ, নাট্যকর্মী ও লেখক ফ্লোরা সরকার, কথা সাহিত্যিক আন্দালিব রাশদী ও খন্দকার মাহমুদুল হাসান, রাজনৈতিক বিশ্লেষক রইস উদ্দিন আরিফ, উবিনীগের নির্বাহী পরিচালক ফরিদা আখতার, গবেষক হেলাল মহিউদ্দিন, নাট্যব্যক্তিত্ব আজিজুল হাকিম ও জিনাত হাকিম, লেখক মো. তানিম নওশাদ ও সেলিম সোলায়মান প্রমুখ।

সাম্প্রতিক দেশকাল সম্পাদক ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ স্বাগত বক্তব্যে বলেন, একটি সমৃদ্ধ ও অগ্রসরমান দেশ গঠনে ইতিবাচক ভূমিকা পালনই সাম্প্রতিক দেশকাল প্রকাশনার অন্যতম লক্ষ্য। আমরা সামাজিক মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ও মানবাধিকার সংরক্ষণের সংগ্রামে সহযোগী হতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ, দুর্নীতি ও অন্যায় প্রতিরোধে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

তিনি বলেন, আমাদের চারপাশেই তরুণ অনেক লেখক আছেন, যাদের লেখার জায়গা একেবারেই সঙ্কুচিত। তাদের কচি হাতের লেখাগুলো ছাপার অক্ষরে পরিণত করেছি। প্রবীণদের পাশাপাশি আমাদের পাতায় পাতায় গুরুত্ব পেয়েছেন তরুণ লেখকরা। আমরা জন্ম দিয়েছি অসংখ্য নতুন কুঁড়ির। আগামী দিনগুলোতে তারা সৌরভ ও সৌন্দর্য ছড়াতে থাকবে, আমরা নিশ্চিত। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজনকে সামনে রেখে আমাদের দায়িত্ব এসব কুঁড়ির যত্ন নেয়া এবং আরো নতুন কুঁড়ির জন্ম দেয়া। তাইতো আমরা সাম্প্রতিক দেশকালকে নবীন-প্রবীণ লেখকদের মিলনকেন্দ্রে পরিণত করার চেষ্টা করছি। আমরা নিরন্তর পুনর্নির্মাণের চেষ্টা করছি; নতুনের সংযোজনে পৌনঃপুনিকতার একঘেয়েমির হাত থেকে পাঠক ও শ্রোতাদের পরিত্রাণ দেয়ার চেষ্টা করছি। ধীরে ধীরে তা স্পষ্ট, দৃষ্টিগ্রাহ্য হবে।

ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, সাম্প্রতিক দেশকাল আমি নিয়মিত পড়ি। বাংলাদেশে আরো অনেক পত্রিকা আছে। অন্যান্য পত্রিকার সঙ্গে এ পত্রিকার একটা পার্থক্য- অন্য পত্রিকা কোনো না কোনো পক্ষ নিয়ে থাকে কিন্তু সাম্প্রতিক দেশকাল নিরপেক্ষ। এটিই হলো সাম্প্রতিক দেশকালের বৈশিষ্ট্য।

সলিমুল্লাহ খান বলেন, বাংলা একাডেমিসহ অন্যরা বাংলা বানান রীতি নিয়ে যে স্বেচ্ছাচারিতা চালাচ্ছে- সে স্বেচ্ছাচারিতা বন্ধে সাম্প্রতিক দেশকালকে ভূমিকা রাখতে হবে।

সাম্প্রতিক দেশকালের প্রকাশকের পক্ষ থেকে দেয়া বক্তব্যে মো. নাসের শাহরিয়ার জাহেদী বলেন, সাম্প্রতিক দেশকাল সৃজনশীল ও ভালো লেখা গুরুত্ব দিয়ে ছাপতে চায়। পত্রিকাটির প্রচার সংখ্যা আস্তে আস্তে বাড়ছে, এটি বড় কৃতিত্ব।

অনুষ্ঠান শেষে সংগীত পরিবেশন করেন বাউলশিল্পী লতিফ সরকার।

মন্তব্য করুন

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh