সপ্তাহে তিনদিন ছুটি, মাইক্রোসফটে উৎপাদন বেড়েছে ৪০%

ব্যতিক্রমী ও নতুন একটি উদ্যোগ নিয়েছেল মাইক্রোসফট জাপান। সপ্তাহে চার কর্মদিবস আর তিনদিন ছুটি চালু করেছিল তারা। আর ফলও মিলেছে হাতেনাতেই। 

প্রতিষ্ঠানের খরচ তো কমেছেই, সঙ্গে উৎপাদন বেড়ে গেছে প্রায় ৪০ শতাংশ।

মাত্র এক মাসের জন্য গত আগস্টে পরীক্ষামূলকভাবে চালু হয়েছিল ‘ওয়ার্ক-লাইফ চয়েস চ্যালেঞ্জ সামার-২০১৯’।

জাপানে এমনিতেই শনি ও রবিবার সাপ্তাহিক ছুটি। মাইক্রোসফট জাপান নতুন কর্মসংস্কার প্রকল্পের অংশ হিসেবে তার ২৩শ’ কর্মীকে বেতন কাটা ছাড়া শুক্রবারও ছুটি দেয়ার ঘোষণা দেয়।

এর ফলাফল নিয়ে শুরুতে কিছুটা শঙ্কা ছিল। কিন্তু ওই মাসে প্রতিষ্ঠানের উৎপাদনশীলতা বেড়ে যায় ৩৯ দশমিক ৯ শতাংশ। এছাড়া ওই সময় কর্মীদের অতিরিক্ত ছুটি নেয়ার হার কমেছে ২৫ দশমিক ৪ শতাংশ। বিদ্যুৎ সাশ্রয় হয়েছে ২৩ দশমিক ১ শতাংশ, ফলে ব্যয়ও কমে গেছে প্রতিষ্ঠানের।

তবে সময় কমে যাওয়ায় কর্মপরিকল্পনায় কিছুটা পরিবর্তন আনতে হয়েছিল তাদের। অনেক মিটিং বাতিল অথবা সংক্ষিপ্ত করা হয়। মুখোমুখির বদলে কিছু মিটিং অনলাইনে সারা হয়।

মাস শেষে জানা যায়, প্রতিষ্ঠানের ৯২ দশমিক ১ শতাংশ কর্মীই তিনদিন ছুটির বিষয়টি পছন্দ করেছে। এবারের সাফল্যের কারণে মাইক্রোসফট জাপান সামনের বছরও এই কর্মসূচি পালনের পরিকল্পনা করছে।

তবে করপোরেট জগতে চারদিন কর্মদিবসের অভিজ্ঞতা এই প্রথম নয়। এর আগে ২০১৮ সালে নিউজিল্যান্ডের ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি পারপেটুয়াল গার্ডিয়ান তার ২৪০ জন কর্মীকে দুই মাস ধরে সপ্তাহে তিনদিন ছুটি দেয়। এরপর কর্মীরা জানান, তারা তাদের কর্মজীবনের ব্যালেন্স করতে পারছেন এবং অফিসে তাদের মনোযোগ বেড়েছে। তাদের স্ট্রেস লেভেল ৭ শতাংশ পর্যন্ত কমেছে।

কর্মীরা বলেন, তারা অফিসে কম সময় কাজ করে আরো বেশি উৎপাদন করতে পারবে। মানবসম্পদ বিষয়ক পরামর্শদাতা সংস্থা রবার্ট হাফ এক হাজার ৫০০ কর্মী ও ছয়শ’ মানবসম্পদ বিষয়ক পরিচালকদের ওপর একটি সমীক্ষা করে। এতে দেখা গেছে, ৬৬ শতাংশ কর্মী সপ্তাহে পাঁচদিনেরও কম সময় কাজ করতে চান।

হার্ভার্ড বিজনেস রিভিউয়ের প্রকাশিত আরেকটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, দিনে কাজের সময় আট ঘণ্টা থেকে কমিয়ে গড়ে ছয় ঘণ্টা করা হলে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি পায়। 

যুক্তরাষ্ট্রের মাল্টিন্যাশনাল সফটওয়্যার কোম্পানি ক্রোনোসের ওয়ার্কফোর্স ইনস্টিটিউট ২০১৮ সালে তিন হাজার কর্মীর ওপর একটি সমীক্ষা চালায়। এতে দেখা গেছে, ফুলটাইম কর্মীদের অর্ধেকেরও বেশি ভেবেছিলেন- তারা প্রতিদিন পাঁচ ঘণ্টা তাদের কাজ করতে পারবেন। -গার্ডিয়ান

মন্তব্য করুন

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh