গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের ৪১ বছর

বাংলাদেশে গ্রুপ থিয়েটার চর্চার ৫০ বছর

মানুষ, সমাজ, দেশ ও শিল্পের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে সারাদেশের নাট্যকর্মীদের সামগ্রিক দাবি আদায়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের প্রয়োজনে গঠিত হয়েছিল বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন। ১৯৮০ সালের ২৯ নভেম্বর ছিল সংগঠনটির প্রতিষ্ঠার দিন এ বছর প্রতিষ্ঠার ৪১ বছর উদযাপন করেছে বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন। 

এ ছাড়া স্বাধীন বাংলাদেশে গ্রুপ থিয়েটার চর্চারও ৫০ বছর উদযাপিত হচ্ছে সারাদেশে নানা আয়োজনে। স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে একদল মুক্তিযোদ্ধা নাট্যকর্মীর হাতে নব-উদ্যোমে শুরু হয়েছিল গ্রুপ থিয়েটার চর্চা। আরণ্যক নাট্যদল, ঢাকা থিয়েটার, নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়, নাট্যচক্র, থিয়েটারসহ অসংখ্য নাট্যদল ৫০ বছরের নাট্যচর্চায় শক্তিশালী ভিত রচনা করেছে। যার পথ ধরে এগিয়ে চলেছে দেশের নাট্যাঙ্গন। স্বাধীন বাংলাদেশের ৫০ বছরের গ্রুপ থিয়েটারচর্চার অন্যতম কাণ্ডারি নাট্যব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদ এ বিষয়ে বলেন- মুক্তিযুদ্ধের আগেও বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় নাটক মঞ্চায়ন হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের আগেই ‘ড্রামা সার্কেল’ নামে নাট্যদল গড়ে উঠেছে; কিন্তু নিয়মিতভাবে যে নাটক করা যায়, সেটি স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়েই বড় আকার ধারণ করেছে। মুক্তিযুদ্ধের পর পরই আমরা বেশ কয়েকজন নাটকে নিবেদিত হয়েছি। মূলত কলকাতায় নাটক দেখেই আমরা উদ্বুদ্ধ হয়েছিলাম। স্বাধীনতার পর একে একে গড়ে উঠেছে নাট্যদল। নব-উদ্যোমে শুরু হয়েছে নাট্যচর্চা। অনেকগুলো নাট্যদল মিলে ১৯৮০ সালে আমরা প্রতিষ্ঠা করেছি গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন। ৪১ বছর ধরে নানা কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে পরিচালিত হচ্ছে ফেডারেশন। 

তবে এখন গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের আরও গতিশীল হওয়া উচিত বলে মনে করি। এ বছর স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপিত হচ্ছে, একই সঙ্গে বাংলাদেশে গ্রুপ থিয়েটার চর্চারও ৫০ বছর উদযাপিত হচ্ছে। নব-উদ্যোমে বাংলাদেশের নাট্যচর্চা এগিয়ে যাবে বলে প্রত্যাশা করি। 

গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন গঠনের স্মৃতি বলতে গিয়ে নাট্যব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার বলেন- ১৯৭৬ সালের ১৫ থেকে ২৯ ফেব্রুয়ারি ঢাকার শিল্পকলা একাডেমিতে একটি নাট্যোৎসব হয়েছিল। সেখানে ঢাকার কয়েকটি নাট্যদল এবং চট্টগ্রামের একটি নাট্যদল অংশ নেয়। তখন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক ছিলেন অধ্যাপক মুহম্মদ সিরাজুল ইসলাম। এরপর ১৯৭৯ সালের ১৫ থেকে ২৭ এপ্রিল নাটক সরণির মহিলা সমিতি মিলনায়তনে ‘গ্রুপ থিয়েটার উৎসব ১৯৭৯’ আয়োজন করা হয়। ১১ সদস্যের উৎসব পরিচালনা পরিষদের আহ্বায়ক ছিলেন নাসির উদ্দীন ইউসুফ। উৎসবটিতে ঢাকার ১৭টি নাট্যদল অংশ নেয়। সেই উৎসবের পরই মূলত বিভিন্ন নাট্যদলের অগ্রজরা মনে করেন সকল নাট্য সংগঠনকে নিয়ে একটা সম্মিলিত প্ল্যাটফর্ম গঠন করা জরুরি। আবার বিরুদ্ধ মতও ছিল কারও কারও। কেউ কেউ মনে করেছিলেন এতে নাট্যদলগুলোর মাঝে আরও বিভাজন তৈরি হবে। ১৯৮০ সালের ২৯ নভেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে থিয়েটার পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে আমি নাট্যদলগুলোর একটি প্রতিনিধি সভা আহ্বান করেছিলাম। মামুনুর রশীদের সভাপতিত্বে সেদিনের সভায় ঢাকার ২১টি, বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ১৭টিসহ মোট ৩৮টি নাট্যদলের প্রতিনিধিরা উপস্থিত হয়েছিলেন। সেদিনের সভায় নাট্যদলগুলোর একটি ফেডারেশন গঠনের ব্যাপারে সবাই একমত হন। তাই ২৯ নভেম্বরকেই পরবর্তী সময়ে চিহ্নিত করা হয় গ্রুপ থিয়েটার দিবস। 

গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই দেশের গ্রুপ থিয়েটারচর্চা এবং নানা প্রগতিশীল আন্দোলন সংগ্রামে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছে উল্লেখ করে রামেন্দু মজুমদার বলেন, শতাব্দী প্রাচীন কালাকানুন অভিনয় নিয়ন্ত্রণ আইন বাতিলের দাবিতে ফেডারেশন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। বঙ্গবন্ধু ১৯৭৫ সালে সেন্সর প্রথা সহজ করেছিলেন এবং নাটকের ওপর থেকে প্রমোদকর প্রত্যাহার করেছিলেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ সরকার ২০০০ সালে অভিনয় নিয়ন্ত্রণ আইন বাতিল করে এবং আমাদের ওপর থেকে সরে যায় সেই জগদ্দল পাথর। তবে বর্তমান সময়ে গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন তার প্রতিবাদী চরিত্র কিছুটা হারিয়েছে বলে মনে করেন রামেন্দু মজুমদার। 

তিনি বলেন, ‘এখন আন্দোলন সংগ্রামে সেই প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর হয়ে উঠতে পারছে না গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন।’ বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের প্রথম নারী সভাপতি ছিলেন সারা যাকের। ২০০০ সালের দিকে তিনি সংগঠনটির নেতৃত্ব দিয়েছেন। সারা যাকের বলেন, ‘স্বাধীন বাংলাদেশের গ্রুপ থিয়েটার চর্চার শুরু থেকেই নারীরা যুক্ত ছিল, দলের নাটকে অভিনয় করাটাই মূলত নারীদের প্রধান কাজ ছিল। তখন নারীরা সাংগঠনিক কাজে খুব একটা সামনে আসতে চাইত না। তখন আমার মনে হলো নারীদেরও সাংগঠনিক কাজে যুক্ত হওয়া দরকার। সেই ভাবনা থেকেই গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের নেতৃত্বে আসি এবং প্রথম নারী সভাপতি হিসেবে নেতৃত্ব দিয়েছি।’ 

গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক কামাল বায়েজীদ বলেন, সারাদেশে এবারও নানা আয়োজনে গ্রুপ থিয়েটার দিবস উদযাপিত হয়েছে। গত ২৯ নভেম্বর আমরা জাতীয় নাট্যশালায় শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, প্রয়াত নাট্যজনদের স্মরণ করার মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করেছি। এ ছাড়া বিভিন্ন জায়গায় নাট্যদলগুলো দিবসটি উদযাপন করেছে।

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //