হোয়াইট হাউসের সামনে মোদিবিরোধী বিক্ষোভ

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির যে সাক্ষাৎ ও বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে, তার বিরোধিতা করে হোয়াইট হাউসের সামনে বিক্ষোভ করেছেন একদল মানুষ।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) হোয়াইট হাউসের সামনের লাফায়েত স্কয়্যার পার্কে তারা বিক্ষোভ করেন বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে আল জাজিরা।

বিক্ষোভকারীদের প্রায় সবার হাতেই ছিল ‘ভারতকে ফ্যাসিবাদ থেকে রক্ষা করো’ লেখা প্ল্যাকার্ড। লাফায়েত স্কয়্যারে তারা সবাই মোদির বিরুদ্ধে স্লোগান দিচ্ছিলেন।

পাশপাশি ভারতে মানবাধিকার লঙ্ঘণ, মুসলিম ও অন্যান্য ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকজনকে নির্যাতন, নতুন কৃষি আইন এবং কাশ্মিরের স্বায়ত্বশাসন বাতিলের জন্য নরেন্দ্রা মোদি ও তার রাজনৈতিক দল বিজেপিকে দায়ী করে বক্তব্য দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা।

চার দেশের নিরাপত্তা সহযোগিতা জোট কোয়াডের (কোয়াড্রিলাটেরাল সিকিউরিটি ডায়লগ) বৈঠকে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্র গেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। তবে কোয়াডের বৈঠকের আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গেও দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন তিনি।

চলতি বছর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পর প্রথমবারের মতো নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সশরীরে সাক্ষাৎ হচ্ছে বাইডেনের। দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট ইস্যুসমূহের পাশাপাশি করোনা মহামারি মোকাবিলা, জলবায়ু পরিবর্তন এবং ইন্দো-প্রশান্ত অঞ্চলের নিরাপত্তার মতো বিষয়গুলো উঠে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।

চলতি ‍সপ্তাহের শুরুর দিকে বাইডেন প্রশাসনের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা আল জাজিরাকে বলেছিলেন, ‘দুই নেতার দ্বিপাক্ষিক বৈঠক কোয়াডের বৈঠককে আরও গতিশীল এবং তাৎপর্যপূর্ণ করে তুলবে। কারণ যে বিষয়গুলো নিয়ে তাদের মধ্যে আলোচনা হবে, তার অনেগুলো কোয়াড বৈঠকের আলোচ্যসূচিতেও রয়েছে।’

এদিকে, বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউসের বাইরে আন্দোলনরত বিক্ষোভকারীরা আল জাজিরাকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারের সময় বাইডেন প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন- তিনি মার্কিন পররাষ্ট্র নীতিতে মানবাধিকারকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেবেন। যদি তিনি নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ বৈঠক করেন-ে সেক্ষেত্রে এটি প্রতিশ্রুতিবিরুদ্ধ কাজ হবে; কারণ, বিক্ষোভকারীদের ভাষ্য- মানবাধিকারের প্রতি মোদি এবং তার দল বিজেপির কোনো প্রকার সম্মান বা শ্রদ্ধা নেই।

প্রসঙ্গত, গত বছর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচার চলাকালে জো বাইডেন এবং তার ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল ও সেখানে জরুরি অবস্থা জারি, আসামে নাগরিকত্ব বিল কার্যকরের পদক্ষেপ ও মুসলিমবিরোধী নাগরিকত্ব আইন এবং দিল্লিতে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার কঠোর সমালোচনা করেছিলেন।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //