করোনাভাইরাস

আগামী মার্চেই ইউরোপে মৃত্যু ২০ লাখ ছাড়াতে পারে

মার্চের মধ্যে আরও সাত লাখ মানুষের মৃত্যু হতে পারে। ছবি : রয়টার্স

মার্চের মধ্যে আরও সাত লাখ মানুষের মৃত্যু হতে পারে। ছবি : রয়টার্স

ইউরোপ যেভাবে দিন দিন করোনাভাইরাস সংক্রমণের নয়া ভরকেন্দ্র হয়ে উঠছে তাতে আগামী কয়েক মাসে প্রচুর মৃত্যুর আশঙ্কা করছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। 

ডব্লিউএইচও’র ইউরোপ শাখা জানিয়েছে, এই মার্চের মধ্যে আরও সাত লাখ মানুষের মৃত্যু হতে পারে। যার ফলে ইউরোপে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা ২০ লাখ ছাড়িয়ে যাবে। ইউরোপজুড়ে মৃত্যুর প্রধান কারণ হিসেবে দাঁড়িয়েছে করোনা মহামারি। 

এই পরিস্থিতিতে প্রবীণ ও অসুস্থদের দ্রুত বুস্টার ডোজ দেওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞেরা।

গত শনিবার (২০ নভেম্বর) বিবিসিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আঞ্চলিক পরিচালক হ্যান্স ক্লুগ বলেছেন, ইউরোপে করোনার সংক্রমণ নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা খুব চিন্তিত। অঞ্চলটিতে দৈনিক মৃতের সংখ্যা ৪ হাজার ২০০ জনে দাঁড়িয়েছে, যা গত সেপ্টেম্বর মাসে দৈনিক মৃত্যুর চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ। অপরদিকে যুক্তরাজ্যসহ গোটা ইউরোপে মোট মৃত্যু ইতিমধ্যে ১৫ লাখ ছাড়িয়েছে।

এমন পরিস্থিতিকে ‘অত্যন্ত ভয়াবহ’ উল্লেখ করে ডব্লিউএইচও বলেছে, ইউরোপের ৫৩টি দেশের মধ্যে ২৫টি দেশেই করোনা পরিস্থিতি অতিমাত্রার উদ্বেগজনক। এই ধারাবাহিকতা চলতে থাকলে আগামী বছরের মার্চের শুরুতে মোট মৃতের সংখ্যা ২২ লাখ ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে সংস্থাটি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, দ্রুত সংক্রমণশীল ডেলটা ধরনের কারণে ইউরোপজুড়ে করোনার সংক্রমণ বেড়েছে। এছাড়া ইউরোপের অনেকে দেশে স্বাস্থ্যবিধি শিথিল করায়ও সংক্রমণ বাড়ছে। এর মধ্যে রয়েছে মাস্ক পরিধান করা শিথিল করা এবং সামাজিক দূরত্ব না মানা।

ক্লুগ বলেছেন, টিকাদান ছাড়াও অন্য কর্মসূচি গ্রহণ করা দেশগুলোর জন্য খুবই জরুরি ছিল। এর মানে হলো ঠিকমতো টিকার ডোজগুলো নেওয়া এমনকি প্রয়োজনে বুস্টার ডোজও গ্রহণ করা।

গত সোমবার (২২ নভেম্বর) থেকে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সিদের মধ্যে টিকাকরণ শুরু করেছে ইসরায়েল। প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট ফেসবুকে জানান, ‘দেশে শিশুদের মধ্যে সংক্রমণের নতুন ঢেউ উঠছে। সম্প্রতি যে পরিমাণ নতুন সংক্রমিতের নাম নথিভুক্ত হয়েছে তার অর্ধেকই শিশু।’ 

যুক্তরাষ্ট্রের ওই টিকা প্রস্তুতকারীর সংস্থা ফাইজার জানিয়েছে, তাদের টিকার দুটো ডোজ নেওয়ার ৪ মাস পরেও ১২ থেকে ১৫ বছর বয়সিদের শরীরে ওই প্রতিষেধক ১০০ শতাংশ কার্যকর থাকছে।

অন্যদিকে ইউরোপের দেশগুলোতে ফের করোনা বাড়তে থাকায় জার্মানি ও ডেনমার্ক সফরে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। সোমবার মার্কিন সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা (সিডিসি) ও প্রশাসনের তরফে এ কথা জানানো হয়েছে। এই দুই দেশে সফরের ক্ষেত্রে ‘লেভেল ৪ : অতি বিপজ্জনক’ সতর্কতা জারি করেছে সিডিসি। 

সিডিসির এই তালিকায় জার্মানি, ডেনমার্ক ছাড়া ইউরোপের অন্য যে দেশগুলোর নাম রয়েছে সেগুলো হলো- অস্ট্রিয়া, ব্রিটেন, বেলজিয়াম, গ্রিস, নরওয়ে, সুইৎজারল্যান্ড, রোমানিয়া, আয়ারল্যান্ড ও চেক প্রজাতন্ত্র।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত ইউরোপে ১০০ কোটি ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে, এছাড়া মোট জনসংখ্যার ৫৩ দশমিক ৫ শতাংশ টিকা পেয়েছে। 

তবে সংস্থাটি এটাও বলেছে, টিকাদানের এই হারে দেশগুলোর মধ্যে বেশ পার্থক্য রয়েছে। যেমন কোনও কোনও দেশে মোট জনসংখ্যার মাত্র ১০ শতাংশ লোক টিকা পেয়েছেন, আবার কোনও কোনও দেশে ৮০ শতাংশেরও বেশি জনগণ টিকা পেয়েছেন।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //