কলম্বিয়া উপকূলে নৌকাডুবি : নিখোঁজ ১০ বাংলাদেশি

অভিবাসী বাংলাদেশিরা। ছবি : সংগৃহীত

অভিবাসী বাংলাদেশিরা। ছবি : সংগৃহীত

কলম্বিয়ার কর্ডোবার পুয়ের্তো এস্কোনিডো উপকূলে নৌকা ডুবে অন্তত ১০ বাংলাদেশি নিখোঁজ আছেন। এ ঘটনায় চার বাংলাদেশিসহ পাঁচজনকে উদ্ধার করা হয়েছে। 

নৌকাটিতে কমপক্ষে ১৮ জন অভিবাসী ছিল এবং অন্যরা নেপালের নাগরিক বলে ধারণা করা হচ্ছে।

স্থানীয় সময় গত মঙ্গলবার (২২ জুন) রাতে ক্যারিবিয়ান সাগরের উরাবা উপসাগর থেকে তাদের উদ্ধার করেন একদল জেলে। পরে কোস্টগার্ড ও জেনারেল মেরিটাইম ডিরেক্টরেট (ডিমার) সদস্যরা উদ্ধার কাজে যোগ দেয়।

কলম্বিয়ার কারাকোল টেলিভিশনের খবরে বলা হয়েছে, তারা সবাই নৌকায় করে কলম্বিয়ার নিকোলি পাড়ি দিয়ে পানামা যাওয়ার সময় দুর্ঘটনায় পড়ে। উরাবা এন্টিওকুইনো অঞ্চলে এই অবৈধ মাইগ্রেশন রুটটির শেষ গন্তব্য পানামার ভয়ঙ্কর দরিয়েন জঙ্গল হয়ে যুক্তরাষ্ট্র।

উদ্ধার চার বাংলাদেশির মধ্যে তিনজনের ছবি কলম্বিয়ার গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হলেও কারোর পরিচয় জানাতে পারেনি।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, উদ্ধার বাংলাদেশিদের অবস্থা সংকটজনক। কারণ তারা হিট স্ট্রোক, হাইপোথার্মিয়া ও অপুষ্টিতে ভুগছেন। বর্তমানে তারা সান জেরেনিমো দে মন্টেরিয়া হাসপাতালে আছেন। এর মধ্যে একজন অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের কলম্বিয়ান অভিবাসন কর্তৃপক্ষের হেফাজতে রাখা হয়েছে।

পুয়ের্তো এস্কোনিডোর মেয়র বলেছেন, যেখানে তাদের পাওয়া গেছে সেখানে তারা কয়েক ঘণ্টা অবরুদ্ধ ছিল। তাদের সবার ডিহাইড্রেশনের লক্ষণ আছে ও তাদের মধ্যে একজন আশঙ্কাজনক অবস্থায় আছেন।

কোস্টগার্ড স্টেশনের কমান্ডার ক্যাপ্টেন লুজ পেরেলা গোনজালবেজ সিলভা স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, উদ্ধার অভিবাসী জানিয়েছে- তাদের নৌকাটি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে ডুবে যায়। তাদের কাছে পাসপোর্ট বা কোনো দলিল পাওয়া যায়নি। তাই প্রাথমিকভাবে তাদের পরিচয় পাওয়া কঠিন হয়ে পড়ে।

পুয়ের্তো এস্কোনিডোর পৌরসভার প্রতিনিধি আর্সিসিও ম্যানুয়েল ভার্গাস বলেছেন, একজন দোভাষীর মাধ্যমে নিশ্চিত করা হয়- এই অভিবাসীরা এশীয় বংশোদ্ভূত। আরো স্পষ্টভাবে বললে, তারা বাংলাদেশের নাগরিক, যারা নিকোলি থেকে পানামার পথে রওনা হয়েছিলেন।

কলম্বিয়ান নৌবাহিনী জানিয়েছে, কোস্টগার্ডের তিনটি ইউনিটের পাশাপাশি জেলেরাও নিখোঁজদের সন্ধান চালিয়ে যাচ্ছে।

নিখোঁজদের মধ্যে একজনের পরিচয় নিশ্চিত করেছে তার পরিবার। তিনি নোয়াখালীর সোনাইমুড়ির উপজেলার আমাশ্যা পাড়ার শেখ দিদার। এছাড়া নিখোঁজদের আরেকজন একই উপজেলার শিবপুরের বলে নিশ্চিত হতে পারলেও তার নাম, পরিচয় পাওয়া যায়নি।

নিখোঁজ শেখ দিদারের বড় ভাই নুর ইসলাম জানান, এক বছর আগে তার ভাই দেশ ছেড়েছিলেন। দীর্ঘ সময় আটলান্টিক পাড়ের ছোট দেশ সুরিনেমে কাজ করেন। কিছুদিন আগে ব্রাজিল হয়ে কলম্বিয়ায় পৌঁছেন। গত রবিবার তার সাথে পরিবারের শেষ কথা হয়। তখনই জানতে পারেন পরদিন দিদার পানামা রওনা হবেন। -ডেইলি স্টার 

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh