নাইজেরিয়ায় ৩ শতাধিক স্কুলছাত্রীকে অপহরণ

ছবি: বিবিসি

ছবি: বিবিসি

নাইজেরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের একটি স্কুল থেকে তিন শতাধিক স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করেছে অজ্ঞাত বন্দুকধারীরা।

গতকাল শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে জামফারা রাজ্যের জাঙ্গেবে শহরের ওই বোর্ডিং স্কুল থেকে মেয়েদের অপহরণ করার পরে বন্দুকধারীরা তাদের একটি বনে নিয়ে গিয়েছে বলে ধারণা করছে পুলিশ।

সাম্প্রতিক সময়ের মধ্যে এটি কোনো স্কুল থেকে গণ অপহরণের সবচেয়ে বড় ঘটনা। সশস্ত্র দলগুলো প্রায়ই মুক্তিপণের জন্য স্কুলছাত্রীদের আটক করে।

দেশটির প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদু বুহারি এই অপহরণের ঘটনাকে অমানবিক ও সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য বলে নিন্দা জানিয়েছেন।

তিনি এক বিবৃতিতে বলেন, ডাকাতরা বিপুল পরিমাণ মুক্তিপণের আশায় নিরীহ স্কুল শিক্ষার্থীদের টার্গেট করে আমাদের ব্ল্যাকমেইল করতে চাইছে। তাদের বলতে চাই এই প্রশাসনকে ব্ল্যাকমেইল করে দমিয়ে রাখা যাবে না। আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য জিম্মিদের জীবিত অবস্থায়, কোনো ক্ষতি হতে না দিয়ে, নিরাপদে উদ্ধার করা।

তিনি আরো বলেন, কর্তৃপক্ষ ওই দস্যুদের বিরুদ্ধে বিশাল বাহিনী মোতায়েন করতে পারলেও আশঙ্কা আছে যে তারা স্কুল ছাত্রীদের মানবঢাল হিসাবে ব্যবহার করতে পারে।

এর আগে গত সপ্তাহে প্রতিবেশী নাইজার রাজ্যের কাগারা থেকে ২৭ শিক্ষার্থীসহ অন্তত ৪২ জন অপহৃত হন। যাদের আজ পর্যন্ত উদ্ধার করা যায়নি। ২০১৪ সালে ইসলামি জঙ্গিগোষ্ঠী বোকো হারাম উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় শহর চিবক থেকে ২৭৬ জন স্কুল ছাত্রীকে অপহরণ করে। যে ঘটনা সারা বিশ্বকে নাড়া দিয়েছিল।

তবে সবশেষ এই অপহরণের ঘটনাটি কোনো সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রের কাজ বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

শুক্রবার স্থানীয় সময় রাত ১টার দিকে এই হামলার ঘটনা ঘটে। একদল বন্দুকধারী পিকআপ ও বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল নিয়ে জাঙ্গেবে শহরের সরকারি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রবেশ করে, ছাত্রীদের অপহরণ করে নিয়ে যায়। স্কুলটির একজন শিক্ষক সংবাদমাধ্যম ‘পাঞ্চ’কে এ তথ্য জানান।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বন্দুকধারীদের মধ্যে কয়েকজন সরকারী সুরক্ষা বাহিনীর পোশাক পরে ছিল ও তারা স্কুল ছাত্রীদের জোর করে গাড়িতে চাপিয়ে নিয়ে যায়।

তবে অন্য প্রত্যক্ষদর্শীরা বিবিসিকে জানিয়েছেন, সশস্ত্র বাহিনী কোনো গাড়ি করে নয়, বরং পায়ে হেঁটে স্কুল প্রাঙ্গণে প্রবেশ করে। শতাধিক বন্দুকধারী এই স্কুলে প্রবেশ করেছিল।

এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, তারা স্কুলের গেটটি ভেঙে নিরাপত্তাকর্মীর ওপর গুলি চালায়। তারপরে তারা হোস্টেলে প্রবেশ করে ও নামাজের সময় হয়েছে বলে মেয়েদের জাগিয়ে তোলে। সব মেয়েদের জড়ো করার পরে অস্ত্রধারীরা তাদেরকে নিয়ে জঙ্গলের দিকে চলে যায়। এ সময় মেয়েগুলো ভীষণ কাঁদছিল। জঙ্গলের দিকে যাওয়ার সময় ফাঁকা গুলি ছুড়ছিল অস্ত্রধারীরা।

পরে অপহৃত ছাত্রীদের মা-বাবা পাগলপ্রায় হয়ে স্কুলের বাইরে জড়ো হন এবং কেউ কেউ তাদের মেয়েদের খোঁজ করতে ঝোপের ভেতরে ঢুকে পড়েন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।

বিবিসিকে স্কুলটির এক শিক্ষক জানান, এই সময়ে বিদ্যালয়ের ৪২১ জন শিক্ষার্থী ছিলেন। তারমধ্যে কেবল ৫৫ জনের খোঁজ মিলেছে।

পুলিশ বিবৃতিতে জানিয়েছে, ওই মেয়েদের খুঁজে বের করতে পুলিশের পাশাপাশি সামরিক বাহিনীর একটি দল জাঙ্গেবেতে মোতায়েন করা হয়েছে।

জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ বলেছে, নাইজেরিয়ায় আবারো ছাত্রীদের গণ অপহরণের ঘটনায় তারা একইসাথে ক্ষুব্ধ ও শোকগ্রস্ত। এই ঘটনাকে তারা ‘পাশবিক’ ও ‘শিশু অধিকার লঙ্ঘন’ বলে আখ্যা দিয়েছে।

কোনো দল বা গোষ্ঠী এখন পর্যন্ত এই অপহরণের দায় স্বীকার করেনি। জামফারায় সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলো প্রায়শই মুক্তিপণের জন্য অপহরণ করে থাকে। -বিবিসি

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh