বাংলাদেশ গেমসের শ্রেষ্ঠত্ব আনসারের

দেশের অলিম্পিক খ্যাত বাংলাদেশ গেমসে সার্ভিসেস সংস্থাগুলোর আধিপত্য নতুন নয়; ব্যতিক্রম ঘটেনি এবারও। বঙ্গবন্ধু নবম বাংলাদেশ গেমসে শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখেছে বাংলাদেশ আনসার। শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে বাংলাদেশ আনসারকে লড়াই করতে হয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সাথে।

পদক তালিকা অনুযায়ী ১৩২টি স্বর্ণ, ৮০টি রুপা ও ৫৭টি ব্রোঞ্জসহ ২৬৯টি পদক নিয়ে বাংলাদেশ গেমসে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদশে আনসার। এ নিয়ে টানা চতুর্থবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হয়েছে সংস্থাটি। অপরদিকে ১১৫টি স্বর্ণ, ৯৯টি রুপা ও ৮৩টি ব্রোঞ্জসহ ২৯৭টি পদক নিয়ে রানার্সআপ বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। 

অপরদিকে ৬৩টি স্বর্ণ, ৩৯টি রুপা ও ২৫টি ব্রোঞ্জসহ ১২৭টি পদক নিয়ে তৃতীয়স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। 

বাংলাদেশ আনসারের এই সাফল্যে সংস্থাটির ক্রীড়া বিভাগের সহকারী পরিচালক রায়হান ফকির বলেন, ‘আমাদের দলকে আমরা সব সময় অনুশীলনে রাখি। খেলোয়াড় ও কোচদেরও অনেক সুযোগ-সুবিধা দেই। এজন্য আমাদের সাফল্যের ধারাবাহিকতা বেশি।’ 

স্বর্ণজয়ী ও রেকর্ড করা ক্রিড়াবিদদের পুরস্কার প্রদান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘যারা আমাদেরকে স্বর্ণ এনে প্রথম করেছেন। তাদের অবশ্যই আমরা পুরস্কৃত করব। তবে, আর্থিক পুরস্কারের অঙ্কটা এখনো ঠিক হয়নি।’ 

এছাড়া আনসারের সাফল্যের পেছনের গল্প বিষয়ে রায়হান জানান, আমরা প্রতি ডিসিপ্লিনে খেলোয়াড় অন্বেষণ করি। যারা আমাদের ক্যাম্পে সুযোগ পায়। তাদের মাসিক ভাতা দেই। এরপর তারা যখন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ভালো করে তখন তাদের রাজস্ব খাতে অর্ন্তভুক্ত করে দেই। রাজস্ব খাতে অর্ন্তভুক্ত করলে তারা অন্য সব সরকারি চাকুরির মতোই সুবিধা পায়। 

বাংলাদেশ আনসারের হয়ে খেলা রেকর্ড ভারত্তোলক মাবিয়া আক্তার সীমান্ত বলেন, ‘আনসার আমাদের সর্বোচ্চ সম্মান ও সুযোগ-সুবিধা দেয়। এজন্য আমরা ক্রীড়াবিদরাও আনসারকে সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করি।’ 

এবারের বাংলাদেশ গেমসে খেলোয়াড়, কোচ, কর্মকর্তাসহ আনসারের হয়ে ৬০৩ জন এই গেমসে অংশ নিয়েছেন। 

খেলোয়াড়দের ও কোচদের সম্মানী প্রসঙ্গে রায়হান বলেন, ‘খেলোয়াড়দের আমরা মাসিক ১২ হাজার সম্মানী দেই অধিকাংশ ক্ষেত্রে। আর কোচদের ক্ষেত্রে সেটা ১৩ হাজার। এছাড়া আরো সুবিধা রয়েছে।’ 

বাংলাদেশ গেমসের নয়টি আসরের মধ্যে পাঁচটি আসরেই সেরা আনসার। এর আগে ১৯৯২, ৯৬, ২০০২ , ২০১৩ সালে গেমসে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ আনসার। এই সার্ভিসেস সংস্থাটি ১৯৯২ সালে ৫০ স্বর্ণ, ৪৯ রৌপ্য,৩৬ ব্রোঞ্জ মোট ১৩৫  পদক, ৯৬ সালে ৭০ স্বর্ণ, ৪৪ রৌপ্য, ৩৪ ব্রোঞ্জ মোট ১৪৮, ২০০২ সালে ৬৫ স্বর্ণ, ৬১ রৌপ্য, ৬৪ ব্রোঞ্জ মোট ১৯০, ২০১৩ সালে ১১১ পদক ,৭৫ রৌপ্য ৬৪ ব্রোঞ্জ মোট ২৫০ পদক অর্জন করেছিল।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh