র‍্যাবের ওপর ‘নিষেধাজ্ঞা’ চায় মার্কিন সিনেটের কমিটি

যুক্তরাষ্ট্র সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটি বাংলাদেশের র‍্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়নে (র‍্যাব) শীর্ষ কমান্ডারদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের দাবি জানিয়ে দেশটির সরকারকে চিঠি দিয়েছেন।

মার্কিন সিনেটে ডেমোক্রেটিক পার্টির সিনেটর বব মেনেনডেজ ও রিপাবলিকান পার্টির সিনেটর টড ইয়াং তাদের আট সিনেট সহকর্মী গত মঙ্গলবার মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ও অর্থমন্ত্রী স্টিভেন মানুচিনকে অনুরোধ করেছেন।

মার্কিন সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্কবিষয়ক কমিটির ওয়েবসাইট গত মঙ্গলবার এ তথ্য প্রকাশ হয়েছে। র‍্যাবের বিরুদ্ধে অভিযোগে বলা হয়, এই বাহিনীটি ২০১৫ সাল থেকে চার শতাধিক মানুষকে বিচার বহির্ভূতভাবে হত্যা করেছে।

তবে র‌্যাবের পক্ষ থেকে অভিযোগ অস্বীকার করে বলা হয়েছে, তারা সব কাজ আইন মেনেই করে।

সিনেটররা লিখেছেন, ‘বাংলাদেশ পুলিশের র‌্যাবের মানবাধিকার লঙ্ঘনের অব্যাহত অভিযোগের বিষয়ে চরম উদ্বেগ জানিয়ে আমরা লিখছি। ২০১৫ সাল থেকে র‌্যাবের বিরুদ্ধে চার শতাধিক মানুষকে বিচারবহির্ভূভাবে হত্যার অভিযোগ রয়েছে। গুম ও নির্যাতনের অনেক ঘটনায় র‌্যাবের বিরুদ্ধে অভিযোগের বিশ্বাসযোগ্য প্রমাণ পাওয়া গেছে। আপাতদৃষ্টে মনে হচ্ছে, এটি ভিন্নমতাবলম্বীদের কণ্ঠরোধের বিষয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বৃহত্তর অভিযানের অংশ এবং এতে র‌্যাবকে বিচারের মুখোমুখি হতে হয় না। তাই মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে র‌্যাবের সুনির্দিষ্ট জ্যেষ্ঠ সদস্যদের বিরুদ্ধে গ্লোবাল মেগনিটস্কি হিউম্যান রাইটস অ্যাকাউন্টেবিলিটি অ্যাক্ট এবং ফারদার কনসোলিডেটেড অ্যাপ্রোপ্রিয়েশনস অ্যাক্ট-২০২০–এর ৭০৩১ (সি) ধারাসহ প্রয়োজনীয় কাঠামোর আওতায় র‌্যাবের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের অনুরোধ করছি।’

যুক্তরাষ্ট্রের আইনে মানবাধিকার লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার বাধ্যবাধকতার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে সিনেটররা র‍্যাব কমান্ডারদের বিরুদ্ধে প্রযোজ্য সকল কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানান।

সিনেট সদস্যদের চিঠির বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, এভাবে একটি দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীদের বিষয়ে মন্তব্য করা দুঃখজনক। র‌্যাব কাউকে গুম করেনি বা নির্যাতনও করে না।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ এ বিষয়ে বলেছেন, র‌্যাব বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত নয়। যে ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাগুলো ঘটে, তা অভিযানিক দলের সাথে সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনীর সাথে গুলি বিনিময়ের সময় ঘটে থাকে। র‌্যাব সব সময় আইনের বাধ্যবাধ্যকতা মেনেই অভিযান পরিচালনা করে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh