বজ্রপাতে প্রাণ গেলো ১৮ জনের

দেশের ছয় জেলায় বজ্রপাতে ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে নেত্রকোনায় নয়জন, ফরিদপুরে চারজন, মানিকগঞ্জে দুজন এবং সুনামগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ ও ময়মনসিংহে একজন করে মারা গেছেন। 

মঙ্গলবার (১৮ মে) বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এসব ঘটনা ঘটেছে। বজ্রপাতের এসব খবর জানিয়েছেন জেলা প্রতিনিধিরা। তাদের পাঠানো খবর তুলে ধরা হলো-

নেত্রকোনা

নেত্রকোনার চার উপজেলায় হাওরে কাজ করতে গিয়ে বজ্রপাতে নয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে কেন্দুয়া উপজেলায় দুজন, মদনে দুজন, খালিয়াজুরীতে তিনজন কৃষক ও পূর্বধলায় এক শিশু রয়েছে।

এছাড়া বজ্রপাতে খালিয়াজুরীতে পাঁচজন ও মদনে চারজন আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার বিকেল পৌনে ৩টায় এ ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলেন, কেন্দুয়ার পাইকুড়া ইউনিয়নের বৈরাটী গ্রামের মো. বায়েজিদ মিয়া (৪২) ও কান্দিউড়া ইউনিয়নের কুণ্ডলী গ্রামের মো. ফজলুর রহমান (৫৫), খালিয়াজুরীর মেন্দিপুর ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামের খেলু ফকিরের ছেলে কৃষক অছেক মিয়া (৩২) একই গ্রামের আমির সরকারের ছেলে কৃষক বিপুল মিয়া (২৮), বাতুয়াইল গ্রামের মঞ্জুরুল হকের ছেলে মনির হোসেন, মদন উপজেলার পশ্চিম ফতেপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে হাফেজ মো. শরীফ (১৮) ও একই গ্রামের মৃত আব্দুল মন্নাফের ছেলে মাওলানা আতাবুর রহমান (১৯) ও পূর্বধলার দলামূলগাঁও ইউনিয়নের টাকলি গ্রামের ইছাক মিয়ার ছেলে জুনাইদ (৮)।

মানিকগঞ্জ

মঙ্গলবার বিকেলে জেলার সদর উপজেলার গিলন্ডে ঘুড়ি উড়াতে গিয়ে এক স্কুলছাত্র ও পৌরসভার পৌলী এলাকায় ধান কাটতে গিয়ে বজ্রপাতে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছেন আরো দুইজন।

মৃতরা হলেন- সদর উপজেলার গিলন্ড গ্রামের মাসুদ মোল্লার ছেলে দশম শ্রেণির ছাত্র আসিফ (১৫) এবং ঘিওর উপজেলার বড়টিয়া গ্রামের বাসিন্দা আজমত আলী (৫০)। আহতদের মধ্যে অনিক নামে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ফরিদপুর

জেলায় বজ্রপাতে নারীসহ চারজনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেল ৪টা ও সাড়ে ৫টার দিকে ফরিদপুর পৌরসভার পশ্চিম গঙ্গাবর্দী, পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের মোল্লা ডাঙ্গী মহল্লায়, সদর উপজেলার নর্থ চ্যানেল ও মধুখালী উপজেলার চাঁদপুরে এ ঘটনা ঘটে।

ধান নিয়ে বাড়িতে ফেরার সময় বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ফরিদপুর পৌরসভার ১১ নম্বর ওয়ার্ডের মোল্লাডাঙ্গী মহল্লায় বজ্রপাতে আনোয়ারা বেগম (৪৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়। আনোয়ারা বেগম মোল্লা ডাঙ্গী গ্রামের বাসিন্দা কৃষক কাবুল শেখের স্ত্রী।

এদিকে, বিকেল ৪টার দিকে ধান নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে ফরিদপুর পৌরসভার পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম গঙ্গাবর্দী মহল্লায় বজ্রপাতে কৃষক কবির মোল্লার (৪৮) মৃত্যু হয়েছে।

এছাড়া বিকেলে বজ্রপাতে সদর উপজেলার নথ চ্যানেল ইউনিয়নে মারা যান দুলাল খান (৫৮) নামের এক কৃষক।

মধুখালী উপজেলায় বৃষ্টির মধ্যে পাটক্ষেতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে কবির শেখ (৪১) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। বিকেল সাড়ে ৫টায় এ ঘটনা ঘটে। তিনি উপজেলার কামালদিয়া ইউনিয়নের চানপুর গ্রামের নবিন শেখের ছেলে।

ময়মনসিংহ

তারাকান্দা উপজেলায় ফুটবল খেলার সময় বজ্রপাতে আতিকুল ইসলাম নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এসময় আহত হয়েছেন আরো একজন। দুপুর ২টায় উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের খলিশাজান গ্রামে খোলা মাঠে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মৃত আজিজুল উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের খলিশাজান গ্রামের আজমত আলীর ছেলে।

সুনামগঞ্জ

দোয়ারাবাজা উপজেলায় বজ্রপাতে আবু তাহের (৩৫) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। বিকেলে উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মৃত আবু তাহের দোয়ারাবাজার সদর ইউনিয়নের তেগাঙ্গা গ্রামের তাজউদ্দিনের ছেলে।

কিশোরগঞ্জ

নিকলীতে বজ্রপাতে মো. আরিফুল ইসলাম (১৭) নামের এক কিশোর গরু আনতে গিয়ে বজ্রপাতে মৃত্যু হয়। দুপুরে উপজেলার গুরুই ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী বিয়াতিরচর হাওরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মৃত আরিফুল গুরুই ইউনিয়নের বেতি নোওয়াগাঁও এলাকার মিয়া চাঁনের ছেলে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh