বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খান

শাহরুখ খান

শাহরুখ খান

শাহরুখ খানকে নিয়ে দর্শকদের উন্মাদনা একটুও কমেনি। বরং দিন দিন বাড়ছেই। তাকে ভক্তরা ডাকেন বলিউড বাদশাহ বলে, আবার অনেকে বলেন রোমান্সের রাজা। 

দীর্ঘদিন ধরে বলিউড বাদশাহর কোনো সিনেমা নেই। তাতে কি? বাদশাহ তো বাদশাই। তার কোটি কোটি ভক্ত অপেক্ষায় আছে রুপালি পর্দায় বাদশাহকে দেখার জন্য। শাহরুখ দুই বছর অভিনয় থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রেখেছেন। এখন তার শুধু প্রযোজনা ও ক্রিকেট দল নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটছে। 

ভক্তদের জন্য আশার খবর হচ্ছে খুব দ্রুত বিরতি থেকে সিনেমা নিয়ে ফিরছেন বলিউডের বাদশাহ। তবে খান সাহেব এ ব্যাপারে এখনো বিস্তারিত কিছু বলেননি। 

বলিউড শাসন করা বাদশাহর জীবন কিন্তু মোটেও সুখকর ছিল না। আর ১০ জনের মতোই ছিল তার জীবন সংগ্রামের গল্প। একদম শূন্য থেকে শুরু করতে হয়েছিল তাকে। প্রতিটি মুহূর্তেই ছিল সংগ্রাম আর যাতনার কথা। সেই কথাগুলো নানা সময়েই তিনি বলেছেন বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে।


অভিনেতা হিসেবে তার পথ চলার শুরু ১৯৮৯ থেকে। ‘ফৌজি’ টিভি সিরিয়ালের মাধ্যমে পর্দায় আসেন তিনি। বলিউডে তার অভিষেক হয় ১৯৯২ সালে ‘দিওয়ানা’ ছবির মাধ্যমে। এ ছবিতে দুর্দান্ত অভিনয় করে সেরা নবাগত হিসেবে ফিল্মফেয়ার পুরস্কার পান। তারপর ‘চমৎকার’, ‘দিল আসনা হে’ ও ‘রাজু বান গেয়া জেন্টলম্যান’ এর মতো ছবিতে অভিনয় করে সকলের নজর কাড়েন।

‘ডর’ ও ‘বাজিগর’ ছবিতে নিজের অভিনয়ের জাদু দিয়ে পৌঁছে যান সাফল্যের চূড়ায়। একের পর এক হিট ছবি দিয়ে জনপ্রিয়তার তুঙ্গে অবস্থান করেন। তিন দশকের ক্যারিয়ারে মোট ১৪ বার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার জিতেন এই গুণী অভিনেতা। এর মধ্যে আটবার সেরা অভিনেতা হয়েছেন। ২০০২ সালে তাকে পদ্মশ্রী পুরস্কারে ভূষিত করে ভারত সরকার। 

ব্যক্তিজীবনে তিন সন্তানের জনক শাহরুখ খান। স্ত্রী গৌরি খানের সাথে মাত্র ১৮ বছর বয়সে প্রথম দেখা হয়েছিল তার। তারপর চার বছরের সম্পর্ক ও ১৯৯১ সালে বিয়ে।

পকেটে টাকা নেই, মাথার ওপরে ছাদ নেই। অভিনেতা হওয়ার আশায় দিল্লি থেকে কয়েকশ’ মাইল পেরিয়ে স্বপ্ননগরী মুম্বাইতে এসেছিল ছেলেটা; কিন্তু বলার মতো কোনো কাজও নেই হাতে। বাড়ি থেকে টাকা-পয়সা যা নিয়ে এসেছিল, সব তখন শেষ।


হতাশ সেই ছেলেটা একদিন মুম্বাইয়ের রাস্তায় দাঁড়িয়ে চিৎকার করে বলেছিল, ‘এই শহরটা আমার সবকিছু কেড়ে নিয়েছে, আমাকে শেষ করে দিয়েছে একদম! একদিন আমি এই শহরটাকে দেখে নেব, এই শহরের রাজা হবো আমি!’ এবং তিনি হয়েছেনও তাই। আরোহন করেছেন সাফল্যের সর্বোচ্চ শিখরে। বলিউড বাদশা ভীষণ মা-ভক্ত। বাবার মৃত্যুর পর তার মা ব্যবসাকে আবার নতুন করে গড়ে তোলেন। শাহরুখ বিভিন্ন সময়ে গণমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, আজকের এই অবস্থানের পেছনে রয়েছে তার মায়ের অনুপ্রেরণা। কিং খান বিশ্বাস করেন যে, তার মা তাকে সারাক্ষণ দেখে রাখছেন।

বলিউডের সফল দম্পতি শাহরুখ-গৌরি। দীর্ঘ পাঁচ বছর লুকিয়ে প্রেম করে দিল্লির সম্ভ্রান্ত ব্রাহ্মণ পরিবারের মেয়ে গৌরি শিবারকে চলচ্চিত্র জীবন শুরু করার আগেই ভালোবেসে বিয়ে করেন তিনি। হিন্দু রীতিতেই গৌরির গলায় মালা পরিয়েছিলেন ১৯৯১ সালের ২৫ অক্টোবর। দুই ছেলে আরিয়ান, আবরাম ও মেয়ে সুহানাকে নিয়ে তাদের সুখের সংসার। মজার বিষয় হলো, গৌরির পায়ের সৌন্দর্য দেখে প্রথম প্রেমে পড়েছিলেন তিনি। সে ঘোর নাকি এখনো কাটাতে পারেননি তিনি।

এই দম্পতির প্রথম সন্তান আরিয়ান খান। তাদের কন্যা সুহানা খান ও সর্বশেষ আবরাম খান। খান ইসলাম ধর্ম পালন করলেও তিনি তার স্ত্রীর ধর্ম হিন্দুকেও সম্মান করেন। তার সন্তানরাও দুটি ধর্মই পালন করে।


বাবার নামে এসিড আক্রান্ত নারীদের সাহায্যের জন্য খুলেছেন ‘মীর ফাউন্ডেশন’। প্রতিবন্ধী, বন্যাদুর্গতদের পাশে সব সময় থেকেছেন বলিউডের নাম্বার ওয়ান খান। করোনা মোকাবেলায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ত্রাণ তহবিলে আড়াই কোটি রুপি দান করেন। পাশাপাশি রাজ্যের স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য ৫০ হাজার কিটও দিয়েছেন। কোয়ারোন্টিন সেন্টার গড়তে চারতলা অফিস দিয়ে দেন শাহরুখ-গৌরি।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh