সীমিত লকডাউনে অফিসগামীদের ভোগান্তি

সকালে অফিসগামীদের ভোগান্তিতে পড়তে হয়। ছবি : সংগৃহীত

সকালে অফিসগামীদের ভোগান্তিতে পড়তে হয়। ছবি : সংগৃহীত

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যু বেড়ে যাওয়ায় আগামী ১ জুলাই থেকে সারাদেশে সর্বাত্মক ‘লকডাউন’ ঘোষণা করেছে সরকার। তবে এর আগে আজ সোমবার (২৮ জুন) সকাল শুরু হয়েছে তিনদিনের সীমিত বিধিনিষেধ (লকডাউন)। আগামী বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত এই লকডাউন চলবে। 

গতকাল রবিবার (২৭ জুন) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, লকডাউন চলাকালে দেশে পণ্যবাহী যানবাহন ও রিকশা ব্যতীত সব গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। রাজধানী ঢাকার ভেতরে কোনো ধরনের গণপরিবহন চলবে না। বন্ধ ধাকবে শপিংমল, মার্কেট, বিনোদন কেন্দ্র। হোটেল-রেস্তোরাঁ খোলা থাকলেও বসে খাওয়া যাবে না।

আজ সকাল থেকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ঢাকার রাস্তায় গণপরিবহন চলছে না, তবে অনেক ব্যক্তিগত গাড়ি ও রিকশা চলাচল করতে দেখা যাচ্ছে। পরিবহনের অভাবে ঢাকার সড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে অফিসগামী যাত্রীদের ভোগান্তির শিকার হতে দেখা গেছে। অনেকে দীর্ঘক্ষণ ধরে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থেকেছেন কোনো যানবাহনের অপেক্ষায়।

অনেক সড়কে ব্যক্তিগত পরিবহনের জটও দেখা গেছে। ছবি : সংগৃহীত

গণপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকলেও খোলা রয়েছে সরকারি-বেসরকারি অফিস। অফিসগুলোকে তাদের কর্মী আনা-নেয়ার ব্যবস্থা করতে বলা হয়েছে। বহু প্রতিষ্ঠানই তা করেনি। ফলে অফিসগামীদের সেই ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। 

সকালে দেখা গেছে, কেউ কেউ রিকশা, রাইড শেয়ারিং মোটরসাইকেল, পণ্যবাহী যান, পিকআপে উঠেও অফিসে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। সাথে অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হয়েছে অফিসগামী মানুষের। 

দেশে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার কারণে আগের বিধিনিষেধের সাথে আরো কিছু নতুন শর্ত যোগ করে এই লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এর আগে, জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি ১৪ দিনের সম্পূর্ণ শাটডাউন দেয়ার সুপারিশ করেছিল।

নতুন শর্ত

১. সারাদেশে পণ্যবাহী যানবাহন ও রিকশা ছাড়া সব গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নিয়মিত টহলের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

২. সব শপিংমল, মার্কেট, পর্যটনকেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার ও বিনোদন কেন্দ্র বন্ধ থাকবে।

৩. খাবারের দোকান, হোটেল-রেস্তোরাঁ সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খাবার বিক্রয় (শুধুমাত্র অনলাইন/টেকওয়ে) করতে পারবে।

৪. সরকারি-বেসরকারি অফিস/প্রতিষ্ঠানগুলো শুধুমাত্র প্রয়োজনীয় সংখ্যক কর্মকর্তা-কর্মচারীর উপস্থিতি নিশ্চিত করতে নিজ নিজ অফিসের ব্যবস্থাপনায় তাদের আনা-নেয়া করতে হবে।

৫. জনসাধারণকে মাস্ক পরার জন্য আরো প্রচার প্রচারণা চালাতে হবে এবং প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //